• বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫
ads
১১ কিলোমিটার সড়কের জন্য কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি

চাঁদপুর শরীয়তপুর ফেরিরুটে চাঁদপুর অংশের সংস্কার হওয়া সড়ক। পাশে শরীয়তপুর অংশে নারায়নপুর পর্যন্ত বেহাল দশা। প্রতিনিয়তই সড়কে আটকে যাচ্ছে যানবাহন

ছবি : বাংলাদেশের খবর

যোগাযোগ

১১ কিলোমিটার সড়কের জন্য কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি

  • মো. মহিউদ্দিন আল আজাদ
  • প্রকাশিত ৩০ আগস্ট ২০১৮

চাঁদপুর-শরীয়তপুর রুটে শরীয়পতুর মেঘনার পশ্চিম পাড়ে চলাচলের অনপুযোগী ১১ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার না করায় প্রতিমাসে কয়েক কোটি টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। যার ফলে এরুটে চলাচলকারী যানবাহনের সংখ্যা দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। আর যেসব যানবাহন চলাচল করছে তারা প্রতিনিয়তই বড় ধরনের দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, গত ৩ মাস পূর্বে এরুটের চাঁদপুর অংশে হরিণা ঘাট থেকে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ভাটিয়ালপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত সোয়া ১১.২৮ কিলোমিটার সড়ক বেহাল অবস্থায় ছিলো। কিন্তু সরকার এ সড়কের বরাদ্দ দেয়ার কারণে দ্রুত কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। পবিত্র ঈদুল আযহার পূর্বেই সড়কটি সংস্কার হওয়ায় যাতায়াতের সংখ্যা বেড়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ আবার এ রূটে চলাচল শুরু করেছে। কিন্তু শরীয়তপুর অংশের নরসিংহপুর ফেরিঘাট থেকে নারায়নপুর পর্যন্ত প্রায় ১১ কিলোমিটার সড়কই এখন বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ওই সড়কটি চলাচলের পুরোপুরি অযোগ্য।

চট্টগ্রাম, ফেনি ও খুলনার মধ্যে চলাচলকারী কমপোর্ট পরিবহনের বাস চালক সিরাজুল ইসলাম ও দিদার পরিবহনের চালক রহমান মিয়া জানান, ফেনি থেকে সকাল সাড়ে ৬টায় রওয়ানা হয়ে সকাল সাড়ে ৯টায় চাঁদপুর ফেরিঘাটে এসেছেন। কিন্তু ফেরি পারপার আর শরীয়তপুর অংশে বেহাল সড়ক দিয়ে খুলনা যেতে প্রায় সন্ধ্যা হয়ে যাবে। সড়কটি সংষ্কার না হওয়া যানবাহন, চালক ও যাত্রীদের অর্থ এবং সময় দু’টোই অপচয় হচ্ছে।

বিআইডাব্লিউটিসি চাঁদপুর কার্যালয়ের ব্যাবস্থাপক (বাণিজ্য) পারভেজ খান জানান, চাঁদপুর-শরীয়পতপুর ফেরি রুটের চাঁদপুর অংশের সড়কে এখন আর কোন ধরনের সমস্যা নেই। বর্তমানে দু’টি ফেরি নিয়মিত যানবাহন পারাপার করছেন। ২৯ আগষ্ট বুধবারও ৩লাখ টাকা সরকারের রাজস্ব আদায় হয়েছে। শরীয়তপুর অংশের সড়কটি দ্রুত সংস্কার হলে রাজস্ব কয়েকগুন বৃদ্ধি পাবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads