• বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৫
ads
আখাউড়া-সিলেট রেলপথ উন্নীত হবে ডুয়েলগেজে

আখাউড়া-সিলেট ডুয়েলগেজ রেলপথ হবে চীনের ঋণ সহায়তা

ছবি : সংগৃহীত

যোগাযোগ

বিলুপ্ত হবে মিটারগেজ

আখাউড়া-সিলেট রেলপথ উন্নীত হবে ডুয়েলগেজে

  • জাহিদুল ইসলাম
  • প্রকাশিত ০৪ এপ্রিল ২০১৯

বাংলাদেশে মিটারগেজ প্রযুক্তির রেলপথ রয়েছে ১ হাজার ৮০৮ কিলোমিটার। অন্যদিকে দেশের উত্তর অঞ্চলের ৬৫৯ কিলোমিটারজুড়ে রয়েছে ব্রডগেজ লাইন। এর ফলে দুই ধরনের রেললাইনে আলাদা প্রযুক্তির ট্রেন চলাচল করছে। এ অসুবিধা দূর করতে সারা দেশের মিটারগেজ রেললাইনকে ব্রডগেজ বা ডুয়েলগেজে রূপান্তরের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ নির্দেশের আলোকে ইতোমধ্যে ৪১০ কিলোমিটার রেলপথকে ডুয়েলগেজে উন্নীত করা হয়েছে। পদ্মা সেতু রেল সংযোগ ও চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নির্মাণাধীন রেললাইনেও ব্যবহার হচ্ছে ডুয়েলগেজ প্রযুক্তি। এ ধারাকে এক ধাপ এগিয়ে নিতে আখাউড়া থেকে সিলেট পর্যন্ত রেললাইনকে ডুয়েলগেজে উন্নীত করা হচ্ছে। এ সংক্রান্ত একটি উন্নয়ন প্রকল্প জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভার অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, আগামী ৯ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে রাজধানীর এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে একনেকের সভা অনুষ্ঠিত হবে। ১৬ হাজার ১০৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয় ধরে রেলের ডুয়েলগেজ প্রকল্পটি সভার আলোচ্যসূচিতে রয়েছে। প্রকল্পটির আওতায় বিদ্যমান মিটারগেজ রেললাইনকে ডুয়েলগেজে উন্নীত করার পাশাপাশি সিলেট রেলস্টেশনসহ বেশ কয়েকটি স্টেশনের আধুনিকায়নের কাজ করা হবে।

সূত্র জানায়, ১৬ হাজার ১০৪ কোটি টাকা ব্যয় ধরে প্রস্তাবিত প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় করা হবে ৫ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা। এ প্রকল্পে চীন থেকে ঋণ বাবদ নেওয়া হবে ১০ হাজার ৬৫৪ কোটি টাকা। জি-টু-জি পদ্ধতিতে এ প্রকল্পে অর্থায়ন করবে চীন। ২০২৫ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ করার লক্ষ্য বেঁধে দেওয়া হচ্ছে।

প্রকল্পের কাজ শেষ হলে ঢাকা থেকে সিলেট ও চট্টগ্রাম থেকে সিলেট রুটে বড় কনটেইনার ও যাত্রী পরিবহনে গতি আসবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া এ প্রকল্পের মাধ্যমে ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের সঙ্গে বাংলাদেশকে যুক্ত করাও সম্ভব হবে বলে দাবি করছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

প্রকল্পের প্রস্তাবে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সিলেট দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগীয় শহর। এ অঞ্চলটি তেল, গ্যাস, ক্যালসিয়াম কার্বনেটসহ বিভিন্ন খনিজসম্পদের সবচেয়ে বড় উৎস। চা উৎপাদনের প্রধান কেন্দ্রও সিলেট। ব্রিটিশ শাসন আমলে আসাম ও বন্দরনগরী চট্টগ্রামের মধ্যে কৌশলগত সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে ১৮৯৮ সালে প্রথম করিমগঞ্জ-শাহবাজপুর-কুলাউড়া-আখাউরা-চট্টগ্রাম রেলওয়ে সেকশন স্থাপন করে তৎকালীন আসাম বেঙ্গল রেলওয়ে।

এতে আরও বলা হয়, ১৯১৫ সালে কুলাউড়া-সিলেট সেকশনটি স্থাপন করা হয়। সময়ের পরিক্রমায় অর্থনীতি, পর্যটন এবং অভ্যন্তরীণ ও আঞ্চলিক সংযোগের কারণে এ সেকশনটি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ রুটে পরিণত হয়। শাহবাজপুর-কুলাউড়া-আখাউড়া সেকশনটি ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ের সাব-রুট। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে রেল সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে ভারতীয় ক্রেডিট লাইনের আওতায় কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশনটি পুনর্বাসন করা হচ্ছে। এ অংশটি বাংলাদেশের শাহবাজপুরের সঙ্গে ভারতের মহিশ্মশানকে যুক্ত করবে।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আরও জানান, রেলের ঢাকা-চট্টগ্রাম করিডোরকে ডুয়েলগেজে রূপান্তররের কাজ চলছে। আখাউড়া-লাকসাম ডুয়েলগেজ ডাবল লাইন নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। এ করিডোরের বাকি অংশ ডুয়েলগেজে রূপান্তরের জন্য সমীক্ষা প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। এছাড়া ভারতীয় অনুদানে আগরতলা ও আখাউড়ার মধ্যে ১০ কিলোমিটার রুটে আরেকটি ডুয়েলগেজ লিংক স্থাপনের প্রক্রিয়া চলমান। এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আখাউড়া-সিলেট সেকশনটি ডুলেগেজে রূপান্তরের জন্য প্রকল্পটি প্রস্তাব করা হয়েছে।

এ বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের প্রধান মো. এনায়েত হোসেন বলেন, প্রকল্পটি একনেকে অনুমোদনের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। রেল চলাচল অব্যাহত রেখেই বিশেষ পদ্ধতিতে প্রকল্পের আওতায় রেলপথটি ডুয়েলগেজে রূপান্তর করা হবে। এ সেকশনে ট্রেনের ইঞ্জিন পরিবর্তনে বর্তমান পদ্ধতি বাতিল করে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি চালু করা হবে। রেলপথের পাশের পাহাড় রক্ষায় রিটেইনিং ওয়াল দেওয়া হবে।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, দেশে মোট রেলপথের দৈর্ঘ্য ২ হাজার ৮৮৭৭ কিলোমিটার। এর মধ্যে ব্রডগেজ ৬৫৯ কিলোমিটার। মিটারগেজ রেলপথের দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৮০৮ কিলোমিটার। ২০০৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৪১০ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেলপথ নির্মাণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে অনুমোদন দেওয়া একটি প্রকল্পের আওতায় দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর এবং রংপুর জেলা সদর, বদরগঞ্জ ও কাউনিয়া উপজেলায় মিলিয়ে মোট ৬৬ দশমিক ৮৯ কিলোমিটার মিটারগেজ রেলপথকে ডুয়েল গেজে উন্নীত করা হচ্ছে।

 

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads