• বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬
ads
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় যান পারাপার ব্যাহত

পর্যন্ত দৌলতদিয়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে বাংলাদেশ হ্যাচারী পর্যন্তÍ অন্তত ৩ কিলোমিটার জুড়ে যানবাহনের দীর্ঘ সারির

ছবি : বাংলাদেশের খবর

যোগাযোগ

ফেরি সংকট ও তীব্র স্রোত

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় যান পারাপার ব্যাহত

  • গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

গত কয়েকদিনে পদ্মা নদীতে আবারো অত্যাধিক পানি বেড়ে তীব্র স্রোতের সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে দেশের গুরুত্বপূর্ণ দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে চলাচলকারী ফেরিগুলো স্বাভাবিক গতিতে চলাচল করতে পারছে না। সেই সাথে সৃষ্টি ফেরি সংকট। ফলে এ রুটে যানবাহন পারাপার চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। উভয় ঘাটে নদী পারের অপেক্ষায় আটকে পড়ছে শতশত যানবাহন।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট অফিস ও অন্যান্য সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিনে আরেক দফা পানি বৃদ্ধি পেয়ে পদ্মা-যমুনা নদীতে তীব্র স্রোতের সৃষ্টি হয়েছে। প্রচণ্ড স্রোতের বিপরীতে রুটের ফেরিগুলো স্বাভাবিক ভাবে চলাচল করতে পারছে না। স্বাভাবিক সময়ে প্রতিটি ফেরির নদী পার হতে ২৫ থেকে ৩০ মিনিট সময় লাগত। কিন্তু বর্তমানে এক ঘন্টারও বেশী সময় লাগছে। পাশাপাশি সৃষ্টি হয়েছে ফেরি সংকটের। মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত রুটে ৮টি রোরো (বড়) ও ৬টি ছোট ফেরি মিলে মোট ১৪টি চলছে। এ রুটের সন্ধ্যামালতি ফেরিটি বিকল হয়ে স্থানীয় কারখানায় এবং আমানত শাহ নামের রোরো ফেরিটি বেশ কিছুদিন নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে মেরামতে আছে। শাপলা-শালুক নামের অপর একটি ফেরিকে জামালপুরের বাহাদুরাবাদ ঘাটে পরীক্ষামূলকভাবে চলার জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া পদ্মায় পানি বেড়ে দৌলতদিয়ার ৫নং ঘাটের পন্টুন নিমজ্জিত হয়ে যাওয়ায় সোমবার সারারাত বন্ধ থাকে। তবে মঙ্গলবার ঘাটটিকে উপরের স্তরে উঠানো রয়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, মঙ্গলবার বিকেলে সাড়ে ৪টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দৌলতদিয়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে বাংলাদেশ হ্যাচারী পর্যন্তÍ অন্তত ৩ কিলোমিটার জুড়ে যানবাহনের দীর্ঘ সারির সৃষ্টি হয়েছে। ঘাট এলাকার আড়াই কিলোমিটার ফোর লেন সড়কের বাম পাশে অন্তত ৩ শতাধিক বিভিন্ন যানবাহন আটকে থাকতে দেখা যায়। এসময় একাধিক বাস চালক অভিযোগ করেন, দীর্ঘ সময় সিরিয়ালে আটকা থেকে তারা অনেক ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। তবে এ অবস্থার মধ্যে ঘাট এলাকায় দালালদের তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া অফিসের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি জানান, রুটে ১৪টি ফেরি চলছে। ফেরিগুলোর ট্রিপে অতিরিক্ত সময় লাগায় ঘাট এলাকায় যানবাহনের সিরিয়ালের সৃষ্টি হয়েছে। তবে মানুষের দূর্ভোগ কমাতে যাত্রীবাহি যানবাহনগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে। অপচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানগুলোকে আমাদের অনুরোধে পুলিশ গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় সিরিয়ালে আটকে রাখছে। ফলে ঘাট এলাকায় অস্বাভাবিক যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে না। চাহিদা মতো আটকে থাকা যানবাহনগুলোকে পর্যায়ক্রমে ঘাটের উদ্দেশ্যে ছাড়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads