• শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
নারায়ণগঞ্জে পেশাদার ভাড়াটে খুনিরা হত্যা করে স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীরকে

স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষ

ছবি : বাংলাদেশের খবর

অপরাধ

নারায়ণগঞ্জে পেশাদার ভাড়াটে খুনিরা হত্যা করে স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীরকে

  • নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১২ জুলাই ২০১৮

নারায়ণগঞ্জ শহরের কালীরবাজার এলাকার স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। হত্যায় অংশ নেয় একদল ভাড়াটে খুনি। এরা সংখ্যায় ছিল চার থেকে পাঁচজন। প্রবীর ঘোষকে বাড়ি থেকে ফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করে তারই বন্ধু পিন্টু দেবনাথ তার ফ্ল্যাটের বাসায়। ভাড়াটে খুনিরা ছিল খুবই পেশাদার। অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে প্রবীরকে শ্বাসরোধে হত্যার পর ওই ভাড়াটে খুনিরা একে একে বিচ্ছিন্ন করে প্রবীরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গগুলো। আর সেগুলো পরে বাজারের ব্যাগে ভরে ফেলে দেওয়া হয় নিচে থাকা সেপটিক ট্যাঙ্কে। আলামত নষ্ট করতে কাপড় ও বালিশগুলো ফেলে দেওয়া হয় শীতলক্ষ্যা নদীতে। তবে ৬ টুকরা লাশের ৫ টুকরা তিনটি ব্যাগে ভরে সেপটিক ট্যাঙ্কে ফেলে দেওয়া হলেও পায়ের গোড়ালির অংশ ফেলা হয় পাশের একটি ড্রেনের ময়লার স্তূপে। গত সোমবার রাতে সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে তিন ব্যাগে থাকা ৫ টুকরা ও গত মঙ্গলবার বাকি টুকরা উদ্ধার করা হয়।

প্রবীর হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার তারই বন্ধু পিন্টু দেবনাথ ও পিন্টুর দোকানের কর্মচারী বাপেন ভৌমিক বাবুর প্রাথমিক তথ্য পেয়েই রীতিমতো চমকে উঠেছেন তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। গত মঙ্গলবার বিকালে এই দুজনকে ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। পরে আদালত ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বিকালের পর থেকেই শুরু হয় জিজ্ঞাসাবাদ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তদন্তসংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, গত সোমবার রাতে ৩টি ব্যাগে করে ৫ টুকরা লাশ উদ্ধারের পর প্রবীরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ব্যাপক জেরা ও জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করে পায়ের গোড়ালির অংশের কথা। তাকে নিয়েই আমলপাড়া এলাকাতে গিয়ে অভিযান চালিয়ে সেটা উদ্ধার করা হয়। ওই সময় সে স্বীকার করে চার থেকে পাঁচজন ছিল এই কিলিং মিশনে। তারা মূলত ভাড়াটে কিলার। তাদেরকে ভাড়া করা হয়। ১৮ জুন রাতে পিন্টুর ফ্ল্যাটেই ঘটানো হয় নৃশংস সেই হত্যাকাণ্ড।

নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার মঈনুল হক জানান, মূলত প্রযুক্তি ব্যবহার করেই বাপেন ও পিন্টুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কী কী কারণে প্রবীরকে হত্যা করা হয়েছে তার আরো আদ্যোপান্ত জানার চেষ্টা চলছে। এখনই বিস্তারিত সব বলা যাচ্ছে না।

কালীরবাজার স্বর্ণ শিল্প শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মুকুল মজুমদার বলেন, এক স্বর্ণ ব্যবসায়ী আরেক স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে এভাবে নির্মমভাবে হত্যা করতে পারে, বিশ্বাস করতে পারছি না।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads