• বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
আলামত মিলেছে, আশ্রয়কেন্দ্রে ঠাঁই হচ্ছে ভুক্তভোগীর

প্রতীকী ছবি

অপরাধ

টাঙ্গাইলে চলন্ত বাসে ধর্ষণ

আলামত মিলেছে, আশ্রয়কেন্দ্রে ঠাঁই হচ্ছে ভুক্তভোগীর

  • টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

জেলার ভূঞাপুরে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড় বাসস্ট্যান্ড এলাকায় চলন্ত বাসে প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের প্রাথমিক আলামত মিলেছে। গতকাল শনিবার ভুক্তভোগীর ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে এ কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। একই দিন ওই নারীকে সরকারি আশ্রয়কেন্দ্রে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন টাঙ্গাইল বিচারিক হাকিম আদালত।

গত বৃহস্পতিবার রাতে টাঙ্গাইল থেকে ছাড়া বাসটিতে চলন্ত অবস্থায় তরুণী যাত্রীকে ধর্ষণ করে চালক ও তার সহকারী। এ ঘটনারপরপরই বাসটি জব্দ ও সহকারীকে আটক করে পুলিশ। পরে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির পর সহকারী নাজমুলকে (২৫) জেলহাজতে পাঠানো হয়। নির্যাতিতার ডাক্তারি পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রাথমিক আলামত পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। শনিবার দুপুরে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করেন ডা. রেহেনা পারভীন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার এসআই কবিরুল হক জানান, ওই নারী মানসিক প্রতিবন্ধী। তিনি শুধু নিজের নাম ও জেলার নাম বলতে পারেন। শনিবার তাকে টাঙ্গাইল বিচারিক হাকিম আদালতে হাজির করে সরকারি আশ্রয়কেন্দ্রে পাঠানোর আবেদন করা হয়। আদালত তাকে গাজীপুরের পুবাইলে সরকারি আশ্রয়কেন্দ্রে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

আদালত ও পুলিশ জানায়, জবানবন্দিতে নাজমুল বলে, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর ওই নারী টাঙ্গাইল নতুন বাস টার্মিনাল থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব প্রান্তগামী বাসটিতে (যশোর-ব-৪৪২) ওঠেন। বিভিন্ন স্থানে অন্য সব যাত্রীরা নেমে যায়। সেতুর পূর্ব প্রান্তের বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছার পর ওই নারীকে একা পেয়ে চালক আলম খন্দকার (৪৫) ধর্ষণ করে। এ সময় নাজমুল বাসের দরজায় দাঁড়িয়ে থেকে পাহারা দেয়। গত শুক্রবার বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার নুরে আলম বাদী হয়ে বাসের চালক আলম খন্দকার ও চালকের সহকারী নাজমুলকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads