• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
নবাবগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ১

ছবি: বাংলাদেশের খবর

অপরাধ

নবাবগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ১

  • দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০৯ জুন ২০১৯

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। পুলিশের নিহত ব্যক্তি সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সদস্য ছিলেন। গতকাল শনিবার রাতে উপজেলার বান্দুরা-মহব্বতপুর চক এলাকায় ঢাকা-বান্দুরা আঞ্চলিক মহাসড়কে কথিত এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনায় পুলিশের সাত সদস্য আহত হয়েছেন। 

নিহত ব্যক্তির নাম রিপন মোল্লা (৩১)।  নিহত রিপন মোল্লা মাদারিপুর জেলার রাজৈর উপজেলার পূর্ব স্বরমঙ্গল গ্রামের (হৃদয় মঙ্গল গুচ্ছ গ্রাম) এলেন মোল্লার ছেলে।  সে নবাবগঞ্জের সাম্প্রতিক জোড়া খুনের মামলার আসামি। তার বিরুদ্ধে কেরাণীগঞ্জ, নবাবগঞ্জ ও রাজৈরসহ বিভিন্ন থানায় দুইটি হত্যা, ৫টি ডাকাতি, ১টি অস্ত্র মামলাসহ ১৩টি মামলা রয়েছে। 

আজ রোববার বেলা ১২টার দিকে নবাবগঞ্জ থানার ওসি মোস্তফা কামাল সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানান।

এতে জানানো হয়, শনিবার ঢাকার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জের শুভাঢ্যা চিতাখোলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে রিপন মোল্লাকে গ্রেপ্তার করা হয়।  শনিবার রাত দেড়টার দিকে রিপন মোল্লাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে বের হয় পুলিশ। পথে মাঝিরকান্দা-মহব্বতপুর সড়কের ডাঙ্গারচক এলাকায় ওঁত পেতে থাকা রিপন মোল্লার ৭/৮জন সহযোগী তাকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়ে। এসময় রিপন মোল্লা সহযোগীদের গুলিতে আহত হয়ে রাস্তায় পড়ে থাকে। পুলিশ ভোরের দিকে রিপন মোল্লাকে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক আবুল হোসেন, কাজী নাসের, এএসআই মিজানুর রহমান প্রধান, কনস্টেবল সেলিম রেজা, আ. রহমান, ড্রাইভার নোমান আহত হয়।  আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি রিভালবার, ৩ রাউন্ড গুলিসহ ধালালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সাইফুল ইসলাম সংবাদকর্মীদের জানান, রিপন মোল্লা গত ২৩ মে’র জোড়া খুনের মামলার অন্যতম আসামি ছিল। ঐ মামলার ১২জন আসামির ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদের ৩জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads