• বুধবার, ৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬
ads
আমতলী থানা হাজতে একজনের মৃত্যু

সংগৃহীত ছবি

অপরাধ

আমতলী থানা হাজতে একজনের মৃত্যু

পরিদর্শক ও সহকারী উপপরিদর্শক বরখাস্ত

  • আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২৬ মার্চ ২০২০

বরগুনার আমতলী থানা-হাজতে আটক একজন মারা গেছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ছয়টার দিকে থানা থেকে মৃতব্যক্তিটির লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত ব্যক্তির পরিবারের দাবি, পুলিশের নির্যাতনে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে পুলিশ বলছে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

, মারা যাওয়া ব্যক্তির নাম সানু হাওলাদার (৫০)। এ ঘটনায় আমতলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও কর্তব্যরত কর্মকর্তা সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আরিফ হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে জেলা পুলিশ।

একই সঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে প্রধান করে গঠন করা হয়েছে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি।

মৃত সানুর পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের পশ্চিম কলাগাছিয়া গ্রামে গত বছরের ৩ নভেম্বর ইব্রাহিম হোসেন নামে একজন কৃষককে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

ওই হত্যা মামলায় সানু হাওলাদারের সৎ ভাই মিজানুর রহমান হাওলাদার এজাহারভুক্ত আসামি। ওই মামলায় সানু হাওলাদারকে গত সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে আটক করে আমতলী থানা-পুলিশ।

তবে পুলিশের দাবি, ‘সানুও ওই হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত আসামি। একই সঙ্গে ২০০৩ সালের অপর একটি হত্যা মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত আসামি সানু।’

মৃত সানুর পরিবারের অভিযোগ, সোমবার গভীর রাতে সানু হাওলাদারকে আটক করার পর তাঁকে আমতলী থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নামে ব্যাপক নির্যাতন করা হয়েছে।

একপর্যায়ে আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার ও পরিদর্শক (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি তাঁদের কাছে তিন লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন।

ওই টাকা দিতে অপারগতা জানালে সানু হাওলাদারকে থানা-হাজতে রেখে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের নামে নির্যাতন চালায়।

এ বিষয়ে সানু হাওলাদারের ছেলে সাকিব হোসেন বলেন, বুধবার পরিবারের লোকজন থানায় এসে তাঁর বাবার সঙ্গে দেখা করতে চাইলে পুলিশ দেখা করতে দেয়নি। এরপর বৃহস্পতিবার সকালে বাবার মৃত্যুর খবর পান।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads