• মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

অর্থনীতি

লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

  • প্রকাশিত ২৭ মার্চ ২০১৮

জেলায় চলতি মৌসুমে লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। এই মৌসুমে গাছের এত মুকুল দেখে বাগান মালিকরা বেশ খুশি। তারা আশা করছে লাভবান হওয়ার। এখন পর্যন্ত প্রাকৃতিক কোন ধরনের সমস্যা মুকুলের ক্ষতিকর প্রভাব ফেলেনি। সামনের দিনগুলোতে যতি প্রকৃতি সহায় থাকে তাহলে লিচুর বাম্পার ফলনের পাশাপশি ভালো মুনাফা করতে পারবে এর সাথে সংশ্লিষ্ঠরা।

লিচু রসালো ফল। সব বয়সের মানুষের কাছে লিচু প্রিয়। লিচু বাগান মালিক আক্তার মাস্টার জানান, তার ৬ বিঘা জমিতে লিচু বাগান রয়েছে । গাছ রয়েছে ২০০টি। গতবছর সব গাছে লিচু ধরেনি, তাতেও দেড় লাখ টাকার লিচু বিক্রি করেছেন। এবার তার সব গাছে ধরেছে মুকুল। লিচু বিক্রি করা পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার ৩ থেকে ৪ লাখ টাকার লিচু বিক্রি করতে পারবেন। একই ধরনের প্রত্যাশার কথা শোনা গেল অপর লিচু বাগান মালিক আব্দুল মালেকের মুখে। তারও রয়েছে ১২ বিঘা জমিতে লিচু ও আম বাগান।

জেলা কৃষি বিভাগের জরিপসূত্রে জানা যায়, পঞ্চগড়ে দুই হাজার হেক্টর জমিতে লিচুর বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ হচ্ছে। লিচু গাছের সংখ্যা দুই লাখ। এর মধ্যে দেড় লাখ লিচু গাছের বয়স ১৫ বছরের বেশি। এ ছাড়াও জেলার ৪৩টি ইউনিয়নের গ্রামাঞ্চলের বসতবাড়ি এবং আশপাশে রয়েছে বিপুলসংখ্যক লিচু গাছ। লিচু চাষ লাভজনক হওয়ায় প্রতিবছরই পঞ্চগড়ে বাগানের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

হেক্টর প্রতি লিচুর ফলন ৫২৫ টন ধরা হয়েছে। জেলায় ৫ জাতের লিচু চাষ হচ্ছে। এর মধ্যে দেশী জাত, চায়না ২, ৩, ৪ এবং বোম্বে। চায়না ২, ৩, ৪ বাজারে চাহিদা ভালো থাকে। গত বছর চায়না ৩ জাতের লিচুর শ’ ছিল ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক সামছুল হক জানান, এ মুহূর্তে কৃষকদের লিচু বাগানে সুষম সার প্রয়োগের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে, পাশাপশি কৃষি বিভাগ প্রযুক্তিগত সহযোগিতাও দিচ্ছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads