• বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
ব্যবসায় পরিবেশ সূচকে বড় উলম্ফন : সালমান এফ রহমান

ছবি : সংগৃহীত

অর্থ ও বাণিজ্য

ব্যবসায় পরিবেশ সূচকে বড় উলম্ফন : সালমান এফ রহমান

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১১ মে ২০১৯

ইজ ডুয়িং বিজনেস সূচকে (ব্যবসার পরিবেশ সূচক) চলতি বছরই বড় উলম্ফন হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। তিনি জানিয়েছে, এরই মধ্যে বিশ্বব্যাংক তাদের পর্যালোচনা করেছে। গত এপ্রিলে পর্যালোচনা শেষ করেছে সংস্থাটি। আমরা আশা করছি, নভেম্বর মাসে যে প্রতিবেদন হালনাগাদ করা হবে, সেখানে বাংলাদেশর অবস্থান ১২৫ তম এর কাছাকাছি নেমে আসবে।

আজ শনিবার ঢাকার হোটেল লা মেরিডিয়ানে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। গাজীপুরের শ্রীপুরে ইয়ামাহা মোটর সাইকেলের কারখানা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সালমান এফ রহমান।

জানা গেছে, বিশ্বব্যাংক একটি দেশের ব্যবসার পরিবেশ কেমন তার তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরে প্রতিবছর ইজ অব ডুয়িং বিজনেস প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সর্বশেষ প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ১৮৯টি দেশের মধ্যে ১৭৬তম অবস্থান পেয়েছে। আগের বছরের চেয়ে উন্নতি হয়েছে মাত্র এক ধাপ। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ আফগানিস্তান বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে ১৬৭তম অবস্থানে চলে গেছে। এ সূচকে ২০০৮ সালেও ১১৫তম অবস্থানে ছিল বাংলাদেশ। এরপর শুধু পিছিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের পর্যালোচনায় প্রাথমিক ভাবে আমাদের অগ্রগতি ভালো। আশা করি চলতি বছর সূচকে আমরা ১২৫ এর কাছাকাছি নেমে আসব। তবে এতে আমরা সন্তুষ্ট থাকব না। আগামী বছর এপ্রিলে আবার পর্যালোচনা করবে বিশ্ব ব্যাংক। সেখানে আমরা ডুয়িং বিজনেস সূচকে দুই অঙ্কে নেমে আসব।

সালমান এফ রহমান বলেন, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বিডা, বাংলদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ-বেজা, বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বেপজাসহ সরকারের সব সংস্থা কাজ করছে। বিনিয়োগকারীদের খুব সহজে সেবা দেওয়ার কাজ চলছে। উদ্যোক্তারা আমাদের কাছে আগে। এজন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস খুব শিগগিরই কার্যকর হবে। অনলাইনে কোম্পানীর নিবন্ধন দেওয়া হবে দুই ঘণ্টার মধ্যে। পৃথিবীর যেকোন প্রান্ত থেকে কোম্পানীর নিবন্ধন নেওয়া যাবে।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে বেসরকারি খাতের ব্যক্তিদের দায়িত্ব দিয়েছেন। এর মাধ্যমে তিনি একটি বার্ত দিতে চেয়েছেন। আমরা বেসরকারি খাতকে আরো প্রসার করতে চাই। সরকারের আগামী দিনের লক্ষ্য অর্জনে বেসরকারি খাত সামনে রাখতে হবে।

এসময় অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান জানান, আমরা একটি পর্যায়ে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড নিয়ে অগ্রগতি করেছি। তবে এখন আমাদের পরবর্তী ধাপে যেতে হবে। প্রযুক্তি ও কর্মসংস্থান বান্ধব উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। তৈরি পোশাক খাতের সঙ্গে বিকল্প ভাবতে হবে।। বাংলাদেশ এখন বিশ্ব উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ গন্তব্য। আমরা বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সহায়তা দিতে প্রস্তুত।

জানা গেছে, দেশে ব্যবসার পরিবেশের উন্নয়নের দায়িত্ব পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। প্রধানমন্ত্রী তাকে এ দায়িত্ব দিয়েছেন। বাংলাদেশ সব ক্ষেত্রে এগিয়ে গেলে ইজ অব ডুয়িং বিজনেসে পিছিয়ে থাকবে। এ ক্ষেত্রে কবে, কতটা এগিয়ে যাওয়া যায়, তা সরকারের আকুতি।

২০১৬ সালে সরকার সহজে ব্যবসা সূচকে উন্নতির জন্য বিশেষ উদ্যোগ নেয়। ওই বছর ১৯ নভেম্বর সোনারগাঁও হোটেলে সচিবদের নিয়ে এক সভায় বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম এ সূচকে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে দুই অঙ্ক, অর্থাৎ কমপক্ষে ৯৯তম অবস্থানে নিয়ে আসার লক্ষ্যের কথা জানান।

এরপর ডুয়িং বিজনেসের ১০টি বিষয়ে কী কী সংস্কার করতে হবে, তা বিস্তারিত কর্মপরিকল্পনাসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগে পাঠানো হয়। কিন্তু অভিযোগ আছে, ক্ষমতা ছাড়তে না চাওয়ার মানসিকতা সংস্কারকে আটকে রেখেছে। এখন নতুন করে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সালমান এফ রহমানকে। যিনি ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সাবেক সভাপতি। পাশাপাশি সংস্কারের বিষয়ে তিনি নিজেই বিভিন্ন সময় বলেছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads