• বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭
হৃদিতা'র চিত্রনাট্য নিয়ে জটিলতা!

সংগৃহীত ছবি

আনন্দ বিনোদন

হৃদিতা'র চিত্রনাট্য নিয়ে জটিলতা!

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১৪ আগস্ট ২০২০

আনিসুল হকের উপন্যাস 'হৃদিতা'।  উপন্যাসটি নিয়ে সিনেমা বানানোর পরিকল্পনা করেন ইস্পাহানি আরিফ জাহান। পরিচালক অপূর্ব রায় এর অনুরোধে হৃদিতা উপন্যাসের চলচ্চিত্ররুপ দানে সম্মত হন বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী এ এইচ এম এনামুল হক।      

মাসাধিক কাল যত্ন সহকারে কাজ করে চলচ্চিত্রের খসরা পান্ডুলিপির কাজ শেষ করলেন এনামুল হক। “রাফ স্ক্রীপ্ট অব হৃদিতা” শিরোনামে তিনি পরিচালকের ই মেইল এড্রেসে সেটি পাঠান যাতে দৃশ্য সংখ্যা ছিল ১১৫টি। স্ক্রীপ্ট পাঠ শেষে পরিচালক দৃশ্য কমানোর জন্য পরিচালক উনাকে বেশি কিছু লিখিত সংশোধনী দিলেন। গত বছর রোজার সময় টানা আট দিন সিস মিডিয়ার অফিসে বসে পরিচালক ইস্পাহানীর সামনে চূড়ান্ত পান্ডুলিপি শেষ করলেন লেখক। সেটিতে দৃশ্য সংখ্যা ছিল ৭৯ । মাস খানেক পর লেখক এনামুল হক পরিচালকের মাধ্যমে জানতে পারলেন প্রযোজক হৃদিতা নির্মাণের পরিকল্পনা থেকে সরে গেছেন। চলচ্চিত্র পরিচালক  ইস্পাহানিকে পান্ডুলিপিটি সরকারি অনুদানের জন্য জমা দেওয়ার অনুরোধ করেন লেখক এনামুল হক। পরিচালক পান্ডুলিপি জমা দেন অনুদানের জন্য। ২০১৯-২০ অর্থবছরে অনুদান পেয়েও যায় হৃদিতা।  

নিজের লেখা চিত্রনাট্যে প্রথম সিনেমা হচ্ছে ছবি হচ্ছে মর্মে যখন নিজের ফেসবুক ওয়ালে স্ট্যাটাস আপলোড করলেন লেখক এনামুল হক, তখনই শুরু হয়ে গেল দ্বন্ধ। পরিচালক এম এন ইস্পাহানী লেখকের স্ট্যাটাসে কমেন্টস করেন, 'এই গল্পের চিত্রনাট্য তো আপনার লেখা না। তাহলে কেন আপনার নামটি ব্যবহার করেছেন?? পোস্টটি দয়া করে মুছে ফেলুন।' জবাবে এনামুল হক বলেন, আমি হৃদিতার স্ক্রিপ্ট করেছি, চিত্রনাট্য কে করেছে?

পাল্টা জবাবে চলচ্চিত্র পরিচালক ইস্পাহানী বলেন, আপনি হৃদিতার স্ক্রীপ্ট করেছেন সেটি সত্যি। তবে সেটা  ১২০ দৃশ্যের স্ক্রিপ্ট যাতে উপন্যাসের বাইরেও কিছু ছিল। আমি মাত্র ৬০টা দৃশ্য দিয়ে নতুনভাবে লিখেছি। আপনি আমার অফিসে এসে দেখে যেতে পারেন।'

এ বিষয়ে ফোনে কথা হয় পরিচালক ইস্পাহানির সঙ্গে। তিনি প্রথমে আমাকে ছয় নয় বুঝাতে চাইলেও পরে বলেন, ' বিষয়টা আমরা নিজেদের মধ্যে মিমাংসা করার চেষ্টা করছি।'

এ বিষয়ে এনামুল হক বলেন, ' আমি দুই বার হৃদিতার স্ক্রিপ্ট করেছি।তিনি আমাকে ডাকলে তৃতীয় বারও আমি উনার সাথে কারেকশনে বসতাম। আমার অবর্তমানে তিনি স্ক্রীপ্ট থেকে উনিশটি দৃশ্য বাদ দিয়ে আমাকে কৃতিত্ব বঞ্চিত করেছেন যা আমার পেশাগত জীবনের জন্য খুবই লজ্জার বিষয় । হৃদিতার   চিত্রনাট্য কে করেছে তার সত্যতা যাচাই করা হউক।আমার কাছে সকল প্রকার তথ্য প্রমাণ ও সাক্ষী আছে।  চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট কয়েকজন মত দিয়েছেন, বিতর্কিত এই বিষয়টি বি এফ ডি সি কতৃপক্ষের মধ্যেস্থতায় আলোচনা সাপেক্ষে সুরাহা করা প্রয়োজন।   

বর্তমানে এনামুল হক নির্মাতা সাইমন তারিক ও আবু মুসা দেবুর সঙ্গে দুটি সিনেমার কাহিনী সংলাপ ও চিত্রনাট্য লেখার কাজে ব্যস্ত। তার রচিত আলোচিত একক নাটক, টেলিফিল্ম ও ধারবাহিক নাটকগুলো যথাক্রমে জুনিয়র আর্টিষ্ট, তৃতীয় স্ত্রীর ভাগ্য লেখা, একজন আগন্তুক, নদী ও নার্গিস,       ব্ল্যাক সোল, প্রেমের পান্ডুলিপি, প্রোফেশন, রাফম্যান ইত্যাদি। তিনি  স্বর্গীয় সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের রহস্য উপন্যাস 'ঘাটবাবু'র নাট্যরুপ দিয়েছেন, যেটি পরিচালনা করেছেন মেধাবী বিজ্ঞাপন নির্মাতা মেহেদী হাসান সোমেন।লেখার পাশাপাশি অভিনয়েও এনামুল হকের সুখ্যাতি আছে। তিনি বেশ কিছু নাটক, সিনেমায় অভিনয় করছেন । স্বরচিত 'হাড্ডি মাংস' নামক শর্ট ফিল্মে তিনি চমৎকার অভিনয় করেছেন। বিজ্ঞাপন চিত্রে অভিনয় করেও প্রশংসিত হয়েছেন তিনি।জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কারপ্রাপ্ত পরিচালক সৈয়দ অহিদুজ্জামন ডায়মন্ডের রোহিঙ্গা সিনেমায় তিনি একটি বিশেষ চরিত্রে অসাধরণ অভিনয় করেছেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়। তার রচিত গানে কন্ঠ দিয়েছেন তপন চোধুরী ও স্বর্গীয় সুবীর নন্দীর মতো তারকা শিল্পীরাও।নতুন ধারার কবিতা রচনা করে তিনি বিস্মিত করেছেন পাঠকদেরকে।তার রচিত দ্বিবর্ণা কাব্য গ্রন্থটি বিমোহিত করবে আপনাকেও।

হৃদিতা ছবিতে হৃদিতা চরিত্রে পূজা এবং কবির চরিত্রে এ বি এম সুমন অভিনয় করবেন বলে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। অক্টোবর থেকে ছবিটির শুটিং শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে পরিচালকের। নব্বইয়ের দশকের প্রেম-বিরহ নিয়েই এই ছবির গল্প।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads