• শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads

ছবি : সংগৃহীত

ফিচার

আইনস্টাইনের সঙ্গে যেভাবে জড়ালো বাঙালি বিজ্ঞানীর নাম

  • প্রকাশিত ১৮ এপ্রিল ২০১৮

বাংলার বিজ্ঞান ইতিহাসে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র সত্যেন বসু। যিনি বোস-আইনস্টাইন পরিসংখ্যান আবিষ্কারের জন্য বিশ্বজুড়ে খ্যাতি লাভ করেন। ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রিডার হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন সত্যেন বসু। এই সময় তিনি বিজ্ঞানী ম্যাক্স প্ল্যাঙ্কের বিকিরণ তত্ত্ব (Plank's Radiation Formula) নিয়ে গবেষণা শুরু করেন। পরে তিনি এ সম্পর্কিত চার পৃষ্ঠার একটি গবেষণা প্রবন্ধ পাঠিয়েছিলেন ইংল্যান্ড থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন জার্নালে। কিন্তু কেউ ছাপেনি তার লেখাটি। দমে গেলেন না সত্যেন বসু। তিনি চিঠি লিখলেন, পৃথিবী খ্যাত বিজ্ঞানী আইনস্টাইনকে। সঙ্গে পাঠালেন তার গবেষণা কর্ম। আইনস্টাইনকে অনুরোধ করলেন, তার কাজ যদি প্রকাশযোগ্য হয়, তাহলে যেন জার্মান ভাষায় অনুবাদ করে প্রকাশ করা হয় তা।

খাঁটি জহুরির মতো রত্ন চিনতে ভুল করেননি আইনস্টাইন। তিনি অত্যন্ত গুরুত্বেও সঙ্গে জার্মান ভাষায় অনুবাদ করে প্রকাশের ব্যবস্থা করেন। সত্যেন বসুর প্রবন্ধটি আইনস্টাইনের মন্তব্যসহ প্রকাশিত হয় Zeitschrift fn…r Physik নামক বিখ্যাত একটি জার্মান জার্নালে। নিজ হাতে চিঠি লিখে জবাব দেন আইনস্টাইন।

তখন বোসের বয়স তখন মাত্র ত্রিশ। আইনস্টাইনের জন্যই তাকে চিনতে শুরু করেছিল ইউরোপের বিজ্ঞানীরা। তার আবিষ্কার বিশ্ব দরবারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচিতি লাভ করে। তার আবিষ্কার বিংশ শতাব্দীর অন্যতম আবিষ্কার বললে ভুল হবে না। বসুর এই আবিষ্কারের পথ ধরেই বসু-আইনস্টাইন ঘনীভবনের ধারণা পাওয়া যায়। ১৯২৫ সালে ইউরোপ ভ্রমণের সুযোগ পান বসু। তিনি সে সময় আলবার্ট আইনস্টাইন, লুই ডি ব্রগলি, মারি কুরি, ফ্রিৎজ হাবার, অটো হান, লিসা মাইটনার-এর মতো বিখ্যাত বিজ্ঞানীদের সঙ্গে গবেষণার কাজ করেন।

দুই বছর গবেষণা শেষে ১৯২৬ সালে বোস ফিরে এলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ঢাকায় ফিরে আবেদন করলেন অধ্যাপক পদের জন্য। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি তখন স্যার ফিলিপ জোসেফ হার্টগ। পিএইচডি ডিগ্রি ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তখন অধ্যাপক হওয়া যেত না। সত্যেন বোসের মতো মেধাবীর প্রফেসরশিপ অনিশ্চিত হয়ে যায়। উপায়ান্তর না দেখে আইনস্টাইনের স্মরণাপন্ন হন বসু। তার পক্ষ হয়ে হার্টগের কাছে রিকোমেন্ডেশন লেটার পাঠালেন বিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানী আইনস্টাইন। আর এভাবেই পিএইচডি ডিগ্রি ছাড়াই সত্যেন বোস অধ্যাপক হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads