• বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

ফিচার

আরামে ঘুমাও মা..

  • প্রকাশিত ২৭ মে ২০১৮

গর্ভাবস্থায় গর্ভবতীর জন্য জরুরি বিষয়গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো ঘুম। যেটুকু সময়ই ঘুমানোর জন্য পাওয়া যায় সে ঘুমটি যেন আরামদায়ক হয় তা খেয়াল রাখতে হবে। এ সময় গর্ভবতী তার ঘুমের অবস্থান কেমন হবে তা নিয়ে বেশ চিন্তিত হয়ে পড়েন। কোন অবস্থানে ঘুমালে শিশুর কোনো ক্ষতি হবে না- এ চিন্তাই মায়ের ঘুম না হওয়ার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ঘুমানোর ক্ষেত্রে মায়ের আরামকেই সবচেয়ে গুরুত্ব দিতে হবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, গর্ভাবস্থার ১২ সপ্তাহ পর্যন্ত গর্ভবতী তার ইচ্ছানুযায়ী শুতে পারেন। এতে গর্ভস্থ শিশুর তেমন কোনো সমস্যা হয় না। কিন্তু ১৫ থেকে ২০ সপ্তাহের মধ্যে মায়ের জরায়ু অনেক বড় হয়ে যায়, ফলে শোয়ার ক্ষেত্রে একটু সমস্যা হয়। মায়ের ঘুমকে আরামদায়ক করতে এ সময় বেশি বালিশ ব্যবহার করা উচিত। শোয়ার সময় বালিশের অবস্থান এমনভাবে রাখতে হবে যেন মাথা, পেট ও পা-কে সমানভাবে আরাম দিতে পারে। পায়ের নিচে, পিঠে পর্যাপ্ত বালিশের সাপোর্ট গর্ভকালীন পায়ে পানি আসা ও পিঠে ব্যথা থেকে কিছুটা স্বস্তি দিতে পারে। শোয়ার সময় দুই হাঁটুর মাঝখানে নরম বালিশ রেখে ঘুমালে হিপ ও পেলভিসের পেশির ওপর চাপ কম পড়ে। এ ছাড়া পেটের নিচে লম্বা বালিশ দিয়ে নিলে পিঠের দিকে টান অনেকটা কমিয়ে দেয়, যা ঘুমকে করে আরামদায়ক। অনেক গর্ভবতীই ঘুমের সময় শ্বাসকষ্টের কথা বলেন। এর থেকে রেহাই পেতে বুকের কাছেও একটি বালিশ রাখতে পারেন। গর্ভবতী যেখানে আরাম বোধ করেন সেখানেই শোবেন। বিছানা ছাড়াও সে জায়গাটি হতে পারে শোফা বা মেট্রেস বিছানো মেঝেও।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads