• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
নগর পরিচালনায় এগিয়ে আসছেন নারীরা

বাংলাদেশের রাজনীতিতে নারীর আগ্রহ এবং অংশগ্রহণ বাড়ছে দিন দিন

সংরক্ষিত ছবি

ফিচার

নগর পরিচালনায় এগিয়ে আসছেন নারীরা

  • প্রকাশিত ২২ জুলাই ২০১৮

নারীরা এগিয়ে যাচ্ছেন, পুরুষের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করছেন মর্যাদাপূর্ণ অবস্থানে। বাংলাদেশের রাজনীতিতে নারীর আগ্রহ এবং অংশগ্রহণ বাড়ছে দিন দিন। সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে স্থানীয় প্রতিনিধিসহ যেকোনো নির্বাচনেই নারীরা অংশগ্রহণ করছেন স্বতঃস্ফূর্তভাবে। এরই ধারাবাহিকতায় নগর পরিচালনার গুরুদায়িত্বে নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণের জন্য সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র এবং কাউন্সিলর পদে এবার নারী প্রার্থীদের অংশগ্রহণ চোখে পড়ার মতো। আসন্ন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নারী প্রার্থীদের পদচারণায় মুখর নির্বাচনী এলাকাগুলো। রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি নির্বাচনে যেসব নারী প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, তাদের নিয়ে আজকের আয়োজন -

 

রাসিক নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ৫৩ নারীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা

বিজয় ঘোষ, রাজশাহী

রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ নতুন কিছু নয়। জাতীয় সংসদ নির্বাচনসহ বিভিন্ন নির্বাচনে নারীর অংশগ্রহণ চোখে পড়ার মতো। এর ধারাবাহিকতায় রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৫৩ জন নারী কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সিটি করপোরেশন নির্বাচন সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৩০টি ওয়ার্ডে ১০টি সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৫২ জন নারী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। শুধু সংরক্ষিত আসনেই নয়, নগরীর ২৫ নং ওয়ার্ডে ২ জন পুরুষ প্রার্থীর সঙ্গে মোসা. নূরুন্নাহার বেগম সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। রাজশাহী জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার ও সিটি নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার আতিয়ার রহমান জানান, আগামী ৩০ জুলাই সুন্দর, সুষ্ঠু সিটি নির্বাচন গ্রহণের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

 

প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন যারা : নগরীর ১ নং আসনের ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ড থেকে মোসা. মাহফুজা আক্তার, মোসা. সেলিনা কুদ্দুস, মোসা. রওশন আরা, জেবুননেসা এবং মোসা. তাহেরা খাতুন।

২ নং আসনের ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডে মোসা. ফারজানা হক, মোসা. আয়েশা খাতুন, আসমা-উল-হুসনা, মোসা. রাজিয়া বেগম, মোসা. রোজিনা আক্তার, মোসা. অজিফা ইয়াসমিন, মোসা. রজিনা পারভিন এবং মোসা. নাসিরা খানম এই ৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

৩ নং আসনের ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোসা. মুসলিমা বেগম বেলি, খালেদা খাতুন এবং নাফহাতুল জান্নাত ।

৪ নং আসনের ১০, ১১ ও ১২ নং ওয়ার্ড থেকে আলফাতুন নেছা, বিলকিস বানু, মোসা. নিগার সুলতানা এবং শিরিন আরা খাতুন।

৫ নং আসনের ১৩, ১৪ ও ১৫ নং ওয়ার্ডে লড়ছেন মোসা. সামসুন নাহার, মোসা. জরিনা খাতুন, মোসা. সাইদা পারভিন, গুলশান আরা (মমতা), মোসা. ফিরোজা খাতুন এবং মোসা. শিখা খাতুন।

৬ নং আসনের অধীনে ১৬, ১৭ ও ১৮ নং ওয়ার্ড থেকে সুফিয়া ইসলাম, মমতাজ মহল, মোসা. মাজেদা বেগম, মুহসিনা বিল্লাহ, মোসা. নাজরিন আক্তার এবং মোসা. পারভিন বেগম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

৭ নং আসনের ১৯, ২০ ও ২১ নং ওয়ার্ডে মোসা. নাজমা খাতুন, মোসা. উম্মে সালমা, মোসা. সুমি, মোসা. নূরজাহান পারভিন এবং নূরজাহান বেগম এই পাঁচজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নগরীর ৮ নং আসনের ২২, ২৩ ও ২৪ নং ওয়ার্ডে শাহ্নাজ বেগম (শিখা), মোসা. সাহেরা বেগম, শাহানাজ বেগম, মোসা. পারভিন বেগম, মোসা. নাদিরা বেগম, নাজিরা বেগম এবং কানিজ সানজিদা সালাম।

৯ নং আসনের ২৫, ২৬ ও ২৭ নং ওয়ার্ডে মোসা. লাইলী বেগম, মোসা. আয়েশা খাতুন এবং মোসা. ফেরদৌসী এই ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নগরীর ১০ নং আসনের ২৮, ২৯ ও ৩০ নং ওয়ার্ডে সুলতানা রাজিয়া, মোসা. আরিফা খাতুন, মোসা. মাসুদা মল্লিক এবং মোসা. নিলুফা ইয়াসমিন এই চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

dr. monisha

বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়রপ্রার্থী  ডা. মণীষা চক্রবর্তী

কামাল মাছুদুর রহমান, বরিশাল

আগামী ৩০ জুলাইয়ের বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে অংশ নেওয়া ৭ জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে একজন নারী প্রার্থী রয়েছেন। এবারই প্রথম দলীয়ভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ থেকে মই প্রতীক নিয়ে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ডা. মণীষা চক্রবর্তী। নগরীর ৩০টি সাধারণ ওয়ার্ডের মধ্যে যে ২৭টিতে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, তার মধ্যে মাত্র একজন মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। নগরীর পুরানপাড়া এলাকার বাসিন্দা ৩ নং ওয়ার্ড থেকে সাধারণ কাউন্সিলর হিসেবে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক নিয়ে হালিমা বেগম লড়ছেন অপর পাঁচজন পুরুষ প্রার্থীর সঙ্গে। এদিকে সংরক্ষিত ১০টি আসনের জন্য ১০টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৯টিতে নির্বাচন হওয়ায় সেখানে ৩৪ জন নারীপ্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থেকে প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

নারী মেয়র প্রার্থী মণীষা চক্রবর্তী জানান, মাটির ব্যাংকে সঞ্চয় করা মাত্র এক লাখ টাকা নিয়ে তিনি নির্বাচনে নেমেছেন। নগরবাসী তাকে ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করলে নারী ও শিশুবান্ধব বরিশাল নগরী গড়ে তুলবেন। বিশেষ করে গত ১৫ বছরে যারা মেয়র নির্বাচিত ছিলেন, তারা কখনোই নারীদের জন্য আলাদা কিছু করতে পারেননি। ৩৪তম বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারে সরকারি চাকরি পেয়েও তিনি যাননি। সমাজের প্রতি কিছু দায়বদ্ধতা আছে বিধায় তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। নির্বাচিত হলে নারীদের জন্য আলাদা পাবলিক টয়লেট, নারী হোস্টেল, ডে-কেয়ার সেন্টার, শিশু পার্ক নির্মাণ করবেন। এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপন করে তার মাধ্যমে গরিব দুঃখী অসহায় নারী-পুরুষদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান ও পাড়ায় পাড়ায় পাঠাগার স্থাপন করবেন। নগরীর উন্নয়নের জন্য মাস্টারপ্ল্যান করে নগরবাসীকে সঙ্গে নিয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ, বাস্তবায়ন ও উন্নয়ন করতে চান। এছাড়া নগরীর খাল খনন করে জলাবদ্ধতা দূর, আধুনিক বর্জ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে পরিবেশ দূষণমুক্ত রাখা এবং বেকারত্ব দূর করার জন্য মনীষা চক্রবর্তী বরিশালে শিল্পাঞ্চল গড়ে তুলবেন। ফুড প্রসেসিং ও অ্যাগ্রোবেজড ইন্ডাস্ট্রি করে বেকার সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসবেন। সর্বোপরি তিনি একটি আধুনিক পরিচ্ছন্ন, সুন্দর এবং মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত নারীবান্ধব নগর উপহার দিতে চান নগরবাসীকে। সেই সঙ্গে দুর্নীতিমুক্ত সিটি করপোরেশন গড়ে তোলার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। সমাজের সুবিধাবঞ্চিত খেটে খাওয়া মানুষের পাশে তিনি দাঁড়াতে চান।

বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড থেকে যে ৩৪ জন নারীপ্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তারা হলেন, ১ নং ওয়ার্ড থেকে আঞ্জুমান আরা সাথী (মোবাইল ফোন প্রতীক), নূরজাহান বেগম পুষ্প (হেলিকপ্টার), মিনু রহমান (বই), শরীফ তাছলিমা কালাম পলি (আনারস), ২ নং ওয়ার্ড থেকে আলমতাজ বেগম (বই), কানন বেগম (হেলিকপ্টার), জাহানারা বেগম (গ্লাস), জোছনা বেগম (মোবাইল ফোন), জ্যোৎস্না রানী বণিক সুমা (ডলফিন), ফাতেমা বেগম (আনারস), ৩ নং ওয়ার্ড থেকে কোহিনূর বেগম (মই), জোহরা (আনারস), ৫ নং ওয়ার্ডে ইসরাত জাহান (মোবাইল ফোন), মোসা. কামরুন্নাহার রোজী (বই), সাহিনা পারভীন (চশমা), হোসনে আরা বেগম (আনারস), ৬ নং ওয়ার্ড থেকে গায়েশ্রী সরকার (বই), বেবী জেসমিন (মোবাইল ফোন), বেলী রানী সাহা (হেলিকপ্টার), মজিদা বোরহান (জিপ গাড়ি), মারিয়া ইসলাম মুন্নি (আনারস), মোরশেদা বেগম কাজল (গ্লাস), সালমা আক্তার (চশমা), হোসনে আরা বেগম (বেহালা), ৭ নং ওয়ার্ডে রোকসানা বেগম (আনারস), সালমা আক্তার শিলা (বই), ৮ নং ওয়ার্ডে পারুল আক্তার (আনারস), রেশমী বেগম (চশমা), সাবিনা ইয়াসমিন (বই), ৯ নং ওয়ার্ডে ডালিম বেগম (বই), মোসা. আয়েশা বেগম (আনারস), সেলিনা বেগম (চশমা) এবং ১০ নং ওয়ার্ড থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোসা. রেশমী বেগম (বই) এবং রাশিদা পারভীন (আনারস)।

উল্লেখ করা যেতে পারে, সংরক্ষিত মহিলা ৪ নং ওয়ার্ডে একক প্রার্থী থাকায় আগেই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন আয়শা তৌহিদা লুনা। তিনি বর্তমানেও নির্বাচিত কাউন্সিলর।

regular_3060_news_1532194058

সিলেটে নির্বাচনী মাঠে প্রচারণায় নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরা

আবু তাহের চৌধুরী, সিলেট

আগামী ৩০ জুলাই সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংরক্ষিত আসনগুলোতে চলছে প্রচার-প্রচারণা। এর মধ্যে সংরক্ষিত আসন থেকে যে কয়েক নারী কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন তারা হলেন ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসন-১-এর নারী কাউন্সিলর প্রার্থী কোহিনূর ইয়াসমিন ঝর্ণা। ২৫, ২৬ ও ২৭নং ওয়ার্ডে নারী কাউন্সিলর প্রার্থী লিজা তালুকদার ও আসমা বেগম; ১৯, ২০ ও ২১নং ওয়ার্ডে শামীমা স্বাধীন, ১৩, ১৪ ও ১৫নং ওয়ার্ডে খোরশেদা আক্তার বিউটি, শাহানা বেগম শানু ও দিবা রানী দে বাবলি; ১৯, ২০ ও ২১নং ওয়ার্ডে স্বপ্না বেগম; ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডে রুনা বেগম; ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডে আছিয়া বেগম।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads