• বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫
ads
ঐতিহ্যবাহী উৎসব-মেলা

নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা

সংগৃহীত ছবি

ফিচার

ঐতিহ্যবাহী উৎসব-মেলা

  • মাগুরা প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২৮ আগস্ট ২০১৮

ঘোড়দৌড় : প্রবীণদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে জানা যায়, ১৮৯৮ সালে মাগুরা সদরসহ জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা শুরু হয়। ঘোড়দৌড়কে কেন্দ্র করে এলাকার জনগণ মেলার আয়োজন করেন। বিশেষ করে শীত মৌসুমে এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

কাত্যায়নী উৎসব : মাগুরা সদর উপজেলার পারনান্দুয়ালী গ্রামের রূপচান সরকারের পুত্র কালীপদ সরকার ১৯৩৯ সালে নিজের বাড়ির আঙ্গিনায় সর্বপ্রথম জাঁকজমকভাবে কাত্যায়নী উৎসবের আয়োজন করেন।

বৈশাখী উৎসব : জমিদারি আমল থেকেই মাগুরায় বৈশাখী উৎসবের আয়োজন চলে আসছে। এ উৎসব পালনে যাত্রা, নাটক, কীর্তন, কবিগান, বিচারগান, গাজীর গান প্রভৃতি উপভোগ করেন এলাকাবাসী।

চণ্ডীদাস রজকিনীর মেলা : মাগুরা জেলার কিংবদন্তির চণ্ডীদাস ও রজকিনীর কাহিনী অতি প্রাচীনকাল থেকেই মানুষের মুখে মুখে আলোচিত হয়ে আসছে। শালিখা উপজেলার শতখালী ইউনিয়নের গড়পাড়ায় চণ্ডীদাস রজকিনীর জন্মভূমি।

নৌকাবাইচ : নবগঙ্গা নদীর পাড়ে মাগুরা সদর, ফটকি নদীর পাড়ে শালিখা, মধুমতির পাড়ে মহম্মদপুর ও কুমার নদের পাড়ে শ্রীপুর উপজেলা অবস্থিত। নদ-নদীকে কেন্দ্র করেই মাগুরার উপজেলাগুলোতে চলে নৌকাবাইচ মেলা। প্রাচীনকাল থেকেই জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের নদীগুলোতে নৌকাবাইচের সূচনা হয়েছে।

লাঠিখেলা : জমিদারি আমল থেকে তৎকালীন জমিদাররা লাঠিখেলা প্রতিযোগিতার আয়োজন করতেন। মাগুরা জেলার লাঠিয়ালরা এ খেলায় অংশ নিতেন। এভাবে লাঠিখেলা জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads