• মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ২০১৮, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৫
ads

ঘরের খাবারে আয়ু বাড়ে

সংগৃহীত ছবি

খাদ্য

ঘরের খাবারে আয়ু বাড়ে

  • ফয়জুন্নেসা মণি
  • প্রকাশিত ১১ মে ২০১৮

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কভিত্তিক বিংহ্যামটন ইউনিভার্সিটির বিশেষজ্ঞদের পরিচালিত এক যৌথ গবেষণায় দেখা গেছে, মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বিভিন্ন খাদ্য ও খাদ্যতালিকার প্রভাবও হয় বিভিন্ন ধরনের। এমনকি প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে বয়সের ভিত্তিতেও বিভিন্ন খাদ্য ও খাদ্যতালিকার প্রভাবে ভিন্নতা দেখা যায়। বাসায় রান্না করা খাবার খেলে মানুষ দীর্ঘজীবী হয়।

অস্ট্রেলিয়ার মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যাশনাল ডিফেন্স মেডিকেল সেন্টার ও তাইওয়ানের ন্যাশনাল হেলথ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষকদের জরিপ অনুযায়ী বলা হয়েছে, বাসায় রান্না করা খাবারে পুষ্টিমান বজায় থাকে অধিক পরিমাণে। তাইওয়ানের ৬৫ বছর বা ততোধিক বয়স্ক লোকদের রান্না ও খাবারের অভ্যাস নিয়ে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। ১০ বছর পর তাদের স্বাস্থ্যের অবস্থা পরীক্ষা করেন গবেষকরা। এতে দেখা যায়, যেসব লোক বাসায় রান্না করা খাবার খেয়েছেন তারা সুস্বাস্থ্যের অধিকারী। পাশাপাশি তাদের বেঁচে থাকার সংখ্যাটাও বেশি।

জরিপে অংশ নেওয়াদের ৪৭ শতাংশ ঘরে রান্না করা খাবার গ্রহণে অভ্যস্ত বলে উল্লেখ করা হয়। আর বাকি ৪৩ শতাংশ বাইরের খাবার খেয়ে থাকেন। গবেষণার ১০ বছর পর দেখা যায়, যারা বাইরের খাবার খেতে অভ্যস্ত নন, তাদের বেশিরভাগই তুলনামূলক সুস্বাস্থ্যের অধিকারী। অন্যরা অনেকেই বেঁচে নেই। গবেষকদের নেতৃত্ব দেওয়া মোনাস বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মার্ক ওয়াল্কভিস্ট বলেন, রান্না এক ধরনের শিল্প। যারা নিজে রান্না করে খান তাদের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জ্ঞান থাকে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads