• শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads
‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সংগৃহীত ছবি

সরকার

‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হওয়া চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ফিতা কাটার পর উড়োজাহাজ ঘরে দেখেন তিনি।

এ সময় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী মাহবুব আলী, বিমানের পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান ইনামুল বারি, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মফিদুর রহমান, বিমান সচিব মহিবুল হক, বিমানের এমডি মোকাব্বের হোসেন ও বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার  উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে বোয়িংয়ের সঙ্গে ২১০ কোটি মার্কিন ডলারে তিনটি মডেলের ১০টি নতুন উড়োজাহাজ কেনার চুক্তি করে বিমান সংস্থা। এর মধ্যে চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআর, দুটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ও চারটি বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ রয়েছে। ক্রয় আদেশ দেওয়ার পর একে একে এগুলো পেতে প্রায় ১১ বছর লেগেছে। সর্বশেষ গত শনিবার বিমানে যুক্ত হয়েছে ‘রাজহংস’।

উড়োজাহাজগুলোর অবশ্য আলাদা নামকরণও হয়েছে। উড়োজাহাজের নামকরণের ক্ষেত্রে প্রথমে বিমানের কর্মীদের কাছ থেকে নাম চাওয়া হয়। সেগুলোর প্রাথমিক তালিকা তৈরির পর চূড়ান্ত করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর পছন্দে নাম রাখা হয়। এগুলো হলো পালকি, অরুণ আলো, আকাশ প্রদীপ, রাঙা প্রভাত, মেঘদূত, ময়ূরপঙ্খি, আকাশবীণা, হংসবলাকা, গাঙচিল ও রাজহংস।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, তিনটি মডেলের মধ্যে প্রথমেই ৭৭৭-৩০০ ইআর উড়োজাহাজগুলো সরবরাহ শুরু করে বোয়িং। ২০০৮ সালে ক্রয় আদেশ দেওয়ার পর ২০১১ সালের ২১ অক্টোবর একটি ৭৭৭-৩০০ ইআর উড়োজাহাজ প্রথম বিমানবহরে যুক্ত হয়। এর নাম রাখা হয় ‘পালকি’। একই বছর ২৩ নভেম্বর বিমানকে আরেকটি ৭৭৭-৩০০ ইআর উড়োজাহাজ সরবরাহ করে বোয়িং। এর নাম রাখা হয় ‘অরুণ আলো’। এরপর ২০১৪ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি আরেকটি ৭৭৭-৩০০ ইআর উড়োজাহাজ সরবরাহ করে বোয়িং। এর নাম রাখা হয় ‘আকাশ প্রদীপ’। এই সিরিজের সবশেষ উড়োজাহাজ বহরে যুক্ত হয় ২০১৮ সালের ২১ মার্চ। এর নাম রাখা হয় ‘রাঙা প্রভাত’।

এ ছাড়া চারটি ৭৭৭-৩০০ ইআর আকাশযান পাঠানো শেষে বিমানকে ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ সরবরাহ শুরু করে বোয়িং। ক্রয় আদেশ দেওয়া দুটি ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজের প্রথমটি বিমানবহরে আসে ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর। এর নাম রাখা হয় ‘মেঘদূত’।

দ্বিতীয় বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ বিমানবহরে যুক্ত হয় একই বছরের ২২ ডিসেম্বর। এর নাম রাখা হয় ‘ময়ূরপঙ্খি’। ২০১৮ সালে ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার সরবরাহ শুরু করে বোয়িং। ওই বছরের ১৯ আগস্ট দেশে আসে প্রথম ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার। এর নাম রাখা হয় ‘আকাশবীণা’।

একই বছরের ১ ডিসেম্বর ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ যুক্ত হয়েছে। এর নাম রাখা হয় ‘হংসবলাকা’। তৃতীয় ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার যুক্ত হয়েছে গত ২৫ জুলাই। এর নাম রাখা হয় ‘গাঙচিল’।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads