• বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৫
ads
খাঁটি স্বর্ণ চেনার ঘরোয়া উপায়

খাঁটি স্বর্ণ চেনার ঘরোয়া উপায়

প্রতীকী ছবি

জীবন ধারা

খাঁটি স্বর্ণ চেনার ঘরোয়া উপায়

  • আবু রোকাইয়া
  • প্রকাশিত ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

সাজের আদলই বদলে যায় একটু স্বর্ণের ছোঁয়ায়। কিন্তু সবাই যে খুব ব্র্যান্ডেড দোকান থেকে স্বর্ণ কিনতে পারেন এমন নয়। আবার নামি প্রতিষ্ঠান থেকে স্বর্ণ কিনলেও যে নকল স্বর্ণ হাতে আসবে না-এমনটাও জোর দিয়ে বলা যায় না। তাই স্বর্ণ কিনতে হলে সচেতন হোন। এমনিতেও এই মূল্যবান ধাতুর প্রতি কম-বেশি অনেকেরই আকর্ষণ রয়েছে। কেবল বিয়েই নয়, বিভিন্ন উপলক্ষে মানুষ কিনে থাকে। তাই এই দ্রব্যটি কেনার আগে আপনাকে সচেতন হতে হবে। স্বর্ণ যাচাইয়ের অনেক রকম নিয়ম আছে। কিন্তু তার মধ্যেও সবচেয়ে সহজ কিছু ঘরোয়া উপায় জানা থাকলে কেউ আপনাকে ঠকাতে পারবে না। এ নিয়ে লিখেছেন আবু রোকাইয়া

 

খাঁটি স্বর্ণ চেনা আসলে একটি কঠিন ব্যাপার। কারণ আমাদের শপিংয়ের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা থাকলেও সচরাচর স্বর্ণ কিনতে গেলে একটু হিসাব কষতে হয়। কারণ স্বর্ণের দাম অনেকের সাধ্যের বাইরে। যা কিছুই হোক না কেন, খাঁটি স্বর্ণ চেনা দরকার। বিয়ে, জন্মদিন ও প্রিয়জনের জন্য স্বর্ণের যে কোনো উপহার হতে পারে অবাক করার বিষয়। অনেকে খরচ বাঁচাতে গিয়ে স্বর্ণকারদের ফাঁদে পড়ে নকল স্বর্ণ কিনে ফেলেন। আসুন, জেনে নিই খাঁটি স্বর্ণ চেনার কিছু সহজ উপায়-

 

২৪ ক্যারেট

আসল স্বর্ণ ২৪ ক্যারেটের। তবে ২৪ ক্যারেটের স্বর্ণ দিয়ে গহনা তৈরি হয় না। কারণ এটা এত নরম হয় যে, গহনা তৈরি করা সম্ভব হয় না। গহনা তৈরির জন্য মূলত ২২ ক্যারেটের স্বর্ণ ব্যবহার করা হয়, যার মধ্যে ৯১.৬৬ শতাংশ স্বর্ণ থাকে।

 

স্বর্ণে লোহা মেশানো

স্বর্ণে যদি লোহা মেশানো থাকে, তাহলে চুম্বক ধরলেই সেটা টেনে নেবে। লোহা মেশানো আছে কি-না, তা চুম্বক ব্যবহার করে অবশ্যই পরখ করে নিন।

 

রাসায়নিক ও অ্যাসিড

বাজারে কিছু রাসায়নিক এবং অ্যাসিড আছে, যেগুলো ব্যবহার করে স্বর্ণের গুণগত মান যাচাই করা সম্ভব। ওই রাসায়নিক বা অ্যাসিড খাঁটি সোনার সংস্পর্শে এলে কোনো রকম বিক্রিয়া হয় না।

 

সাদা চিনামাটির প্লেট

সাদা চিনামাটির একটি প্লেটের সাহায্যে আপনি স্বর্ণ যাচাই করে নিতে পারেন। স্বর্ণের গহনা চিনামাটির প্লেটে ঘষে দেখুন। যদি প্লেটে কালো দাগ পড়ে তা হলে বুঝতে হবে স্বর্ণ নকল। আর যদি হালকা সোনালি রঙ পড়ে তা হলে বুঝতে হবে সেটা আসল।

 

দুই গ্লাস পানি

একটি গভীর পাত্রে দুই গ্লাস পানি নিন। তাতে কিনে আনা স্বর্ণের গহনা ফেলে দেখুন সেটা ভাসছে কি-না। যদি ভাসে তা হলে বুঝতে হবে সেটা নকল।

 

কামড়

হালকা কামড় দিয়ে ধরে রাখুন। যদি আসল হয় তা হলে স্বর্ণের ওপর কামড়ের হালকা দাগ পড়বে।

 

ঘাম

ঘামের সংস্পর্শে এলেও আসল স্বর্ণে কখনো ঘামের গন্ধ ধরে না। যদি ঘামের গন্ধ ধরে তা হলে বুঝতে হবে এটি খাঁটি স্বর্ণ নয়।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads