• রবিবার, ৭ জুন ২০২০, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
ঢাকার দুই ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা বাসাবো ও মিরপুর

প্রতীকী ছবি

মহানগর

ঢাকার দুই ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা বাসাবো ও মিরপুর

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৬ এপ্রিল ২০২০

রাজধানীর বাসাবো ও মিরপুর এলাকায় এ পর্যন্ত ২২ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। এ দুটি এলাকাকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুরে নভেল করোনাভাইরাস বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানানো হয়। সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এ তথ্য জানান।

মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে ঢাকার বাসাবো ও মিরপুর বিশেষ করে মিরপুরের টোলারবাগকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এলাকা দুটিতে এ পর্যন্ত ২২ জনের শরীরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়েছে। এ দুটো এলাকায় কেবল রোগী নয়, রোগীর সংস্পর্শে যারা এসেছেন, তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। এলাকা দুটিতে যাদের মধ্যে মৃদু লক্ষণ দেখা যাচ্ছে তাদেরও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হচ্ছে। যাতে আক্রান্তদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস অন্যদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়তে না পারে। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জে ১১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

আইইডিসিআর পরিচালক বলেন, ‘আমাদের প্রথম থেকেই কৌশল ছিল রোগী শনাক্ত হওয়ার পর দ্রুত আক্রান্তকে আইসোলেশনে রাখা। আমরা সেই প্রস্তুতি অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছি। আমি সবার প্রতি অনুরোধ রাখব, করোনা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই, তবে সবাইকে যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। 

তিনি বলেন, ঢাকার বাসাবো এলাকাকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এলাকাটিতে এ পর্যন্ত ১২ জনের শরীরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়েছে। এই এলাকাটিতেও রোগীর সংস্পর্শে যারা এসেছেন, তাদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। এখানেও যাদের মধ্যে মৃদু লক্ষণ দেখা যাচ্ছে, তাদেরও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হচ্ছে। যাতে আক্রান্তদের থেকে করোনাভাইরাস অন্যদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়তে না পারে। নতুন আক্রান্ত পাওয়ায় রাজধানীর মিরপুর, বাসাবো ও নারায়ণগঞ্জে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads