• বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ২ বৈশাখ ১৪২৭
সিলেটে পাঁচ ঘণ্টা চলার পর বন্ধ বাস

সংগৃহীত ছবি

মহানগর

সিলেটে পাঁচ ঘণ্টা চলার পর বন্ধ বাস

  • ইমরান আহমদ, সিলেট
  • প্রকাশিত ০৮ এপ্রিল ২০২১

সিলেটে লকডাউনে দুদিন বন্ধ থাকার পর শুরুর পাঁচ ঘণ্টা পরই ফের বন্ধ হয়ে গেল বাস চলাচল। গতকাল বুধবার সকাল ৬টা থেকে সিলেটের আঞ্চলিক সড়কে বাস চলাচল শুরু হয়। তবে বেলা ১১টার দিকে প্রশাসন অনুরোধ করলে বাসগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মুহিত জানান, জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সকাল থেকে বাস চলাচল শুরু হয়।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, বাস চলাচল বন্ধ রাখা হলেও অন্য পরিবহনগুলো চালানো হচ্ছে। এ কারণে আমরা বাস চালানোর সিদ্ধান্ত নিই। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সিলেট জেলায় আমরা পাঁচ ঘণ্টা বাস চালিয়েছি। কিন্তু প্রশাসনের অনুরোধে আপাতত বাস বন্ধ রেখেছি।

পরিবহন শ্রমিক নেতারা বলছেন, ‘প্রথমে প্রশাসন বাধা না দেয়ায় মালিক-চালকরা নিজেদের দায়িত্বে জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার সড়কে স্বল্পসংখ্যক বাস নামিয়েছিলেন।’ এর আগে, মঙ্গলবার বিকেলে সিলেটের আঞ্চলিক সড়কে বাস চলাচলের ঘোষণা দেন পরিবহন শ্রমিকরা। ঘোষণা অনুযায়ী গতকাল সকাল থেকে সিলেট-জকিগঞ্জ ও সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কে বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে আসনের অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করেছে বাসগুলো। আদায় করেছে অতিরিক্ত ভাড়া। সিটি করপোরেশন এলাকায় গণপরিবহন চলাচলের অনুমতিকে পুঁজি করে সিলেট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে গতকাল সকালে জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজারের উদ্দেশে বাস চলাচল শুরু হয়। লকডাউনের আগে করোনা পরিস্থিতিতে দুই আসনে একজন যাত্রী পরিবহনের নির্দেশনা দেওয়া হলেও বাসগুলোকে আসনের চেয়ে বেশি যাত্রী পরিবহন করতে দেখা গেছে। কোনো কোনো বাসে দাঁড়িয়ে ঠাসাঠাসি করেও যাত্রী পরিবহন করতে দেখা গেছে। এদিকে যাত্রীরা অভিযোগ করে বলেছেন, অতিরিক্ত যাত্রী নিয়েও নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে ৬০ ভাগ বেশি আদায় করেছেন পরিবহন শ্রমিকরা। লকডাউনের শুরুতে সারা দেশে সবধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়। তবে মঙ্গলবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বুধবার থেকে সিটি করপোরেশন এলাকায় গণপরিবহন চলাচলের নির্দেশনা দেন। এই নির্দেশনাকে পুঁজি করে সিলেট-জকিগঞ্জ ও সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়কের বাস মালিকরা তাদের বাস রাস্তায় নামান। তবে পরিবহন শ্রমিক নেতারা বলেছেন, রাস্তায় বাস চলাচল করলেও প্রশাসন তাদের বাধা দিচ্ছে না। তাই স্বল্পসংখ্যক বাস জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার সড়কে চলাচল করছে।

ঘোষণা অনুযায়ী গতকাল সকাল ৬টা থেকে জেলায় বাস চলাচল শুরু করেন তারা। এতে অফিসগামী মানুষের ভোগান্তি কমলেও অবশেষে তা বন্ধ করা হয়। তবে দূরপাল্লার গণপরিবহন চলাচল যথারীতি বন্ধ আছে। সিলেট জেলা বাস, মিনিবাস, কোচ, মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকায় গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেওয়ায় স্বল্পসংখ্যক মালিক-চালক তাদের বাস জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার সড়কে নামিয়ে দিয়েছেন।

রাস্তায় বাস চলাচলে প্রশাসন প্রথমে বাধা দেয়নি। বেলা ১১টার দিকে প্রশাসন অনুরোধ করলে বাস চলাচল আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এদিকে লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না নগরবাসী। প্রায় ৫০ ভাগ মানুষই মাস্ক ছাড়া বাইরে ঘোরাফেরা করছেন।

এছাড়া সিলেট নগরের রাস্তাঘাটে মানুষের উপস্থিতিও গত দুদিনের তুলনায় গতকাল অনেকটা বেড়েছে। নগরের অনেক পয়েন্টে যানজটও দেখা গেছে। পাশাপাশি ফুটপাতে মানুষের ভিড় লক্ষ করা গেছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads