• মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
BK

ডিভোর্স কার্যকর

কার্যকর হয়ে গেল শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের ডিভোর্স। গতকাল ১২ মার্চ বর্ধিত ১৮ দিন শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত শাকিব-অপু কোনো সমঝোতায় যেতে পারেননি। সে কারণে গতকাল আইন অনুযায়ী ডিভোর্স কার্যকর হয়ে যায়।

শাকিব খানের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শেখ সিরাজুল ইসলাম গতকাল এ প্রসঙ্গে বলেন, ডিভোর্স পুরোপুরি কার্যকর হয়ে গেছে। এ দম্পতি এখন আর স্বামী-স্ত্রী নন।

কথা বলার জন্য শাকিব খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। ফোন বন্ধ ছিল এ সুপারস্টারের। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শাকিব খান কলকাতার পরিচালক জয়দেব মুখার্জির ‘ভাইজান এলো রে’ ছবির শুটিংয়ে কলকাতায় অবস্থান করছেন। এ ছবির সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শাকিব খানকে এ বিষয়ে মোটেই উদ্বিগ্ন মনে হয়নি। তিনি তার স্বাভাবিক কাজকর্ম করেছেন।

ডিভোর্স নিয়ে কোনো কথা হয়েছে কি না- জানতে চাইলে সূত্রটি জানায়, শাকিব খানের সঙ্গে অপু বিশ্বাসের ডিভোর্সের খবর আমরা আগেই জানতাম। এটা নিয়ে তার সঙ্গে টুকটাক কথা হয়েছে। যেহেতু ব্যাপারটা তার ব্যক্তিগত, খুব বেশি কথা বলার সুযোগও নেই। তবে তাকে দেখে মনে হয়েছে সিদ্ধান্তটি নিয়ে তিনি কোনো অপরাধবোধে ভোগেন না। পরিষ্কার চিন্তা থেকেই ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এদিকে বছরব্যাপী মুখে খই ফোটালেও গত কিছুদিন ধরে মুখে কুলুপ এঁটেছেন অপু বিশ্বাস। হুট করে যেন বোবা হয়ে গেছেন। ডিভোর্স নিয়ে কোনো কথা বলছেন না। ডিভোর্স কার্যকর হয়ে যাওয়া নিয়ে কোনো অনুভূতিও জানাতে চাচ্ছেন না। গতকাল ফোন করলে অপু বিশ্বাসের ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়। অপুর কাছের এক সূত্রে জানা যায়, তার খুবই মন খারাপ। ব্যাপারটা শেষ পর্যন্ত এভাবে শেষ হবে তা তিনি আশা করেননি। তবে শেষের দিকে ডিভোর্সের ব্যাপারটা মেনেই নিয়েছেন তিনি।

শাকিব-অপুর ডিভোর্সে ভুক্তভোগী দুজনের সন্তান আব্রাম খান জয়কে নিয়ে আগে একাধিকবার কথা বলেছেন দুজনেই। শাকিবের মতে, তার ছেলের জন্য সব ধরনের দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। অন্যদিকে অপুও বলেছেন, তার ছেলেকে মানুষ করার জন্য তিনি একাই যথেষ্ট।

তবে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, ছেলের জন্য লাখ টাকা মাসোহারার প্রত্যাশা থেকে অপু সরে আসেননি। মুখে না বললেও তিনি চান শাকিব যেন আগের মতো ছেলের জন্য প্রতিমাসে নির্ধারিত টাকাটা পাঠান।

২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল গোপনে বিয়ে করেন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। বিয়ের আগে ধর্মান্তরিত হন অপু। তারপর টানা ৮ বছর গোপন রাখেন সে বিয়ের খবর। এমনকি সন্তান জন্ম দেওয়ার খবরও গোপন রাখেন তারা। অবশেষে গত বছর হঠাৎই এক টেলিভিশন লাইভে এসে বিয়ে-সন্তানের খবর ফাঁস করেন অপু বিশ্বাস।

এরপর থেকেই দুজনের সম্পর্কের টানাপড়েন চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে। গত বছর ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসকে ডিভোর্সের নোটিশ পাঠান শাকিব খান। হিসাব মতে, গত ২২ ফেব্রুয়ারি ডিভোর্স কার্যকর হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সিটি করপোরেশন থেকে ‘আরো ১৮ দিন সময় থাকছে’ মর্মে জানানো হলে গতকাল ১২ মার্চের জন্য সবাই অপেক্ষা করেন। কিন্তু বর্ধিত সময়ে ডিভোর্স স্থগিতের কোনো সম্ভাবনাই দেখা যায়নি।