• শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
BK
দেশে স্যামসাংয়ের হ্যান্ডসেট সংযোজন কারখানা

জুনের আগেই বাজারে আসছে দেশে সংযোজিত স্মার্টফোন

বাংলাদেশের খবর

দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক ইলেকট্রনিকস ও প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং এবার বাংলাদেশে মোবাইল হ্যান্ডসেট সংযোজন করবে। এ লক্ষ্যে নরসিংদীতে একটি কারখানা স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির স্থানীয় অংশীদার ফেয়ার ইলেকট্রনিকস। গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন দুই প্রতিষ্ঠানের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ফেয়ার ইলেকট্রনিকসের চেয়ারম্যান রুহুল আলম আল মাহবুব জানান, এ কারখানায় বিশ্বমানের প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি করা স্মার্টফোন যেন গ্রাহকদের কাছে সাশ্রয়ী মূল্যে পৌঁছে দেওয়া যায় সে বিষয়ে বিশেষ নজর দেওয়া হবে।

ফেয়ার ইলেকট্রনিকসের চিফ মার্কেটিং অফিসার মেজবাহ উদ্দিন জানান, এ কারখানার আয়তন হবে ৫৮ হাজার বর্গফুট। স্যামসাংয়ের এ স্মার্টফোন সংযোজন কারখানায় ৫শ’র বেশি মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে।

তিনি আরো জানান, শুরুতেই তিনটি প্রোডাকশন লাইনে স্মার্টফোন সংযোজনের কাজ শুরু হবে। কারখানায় প্রাথমিকভাবে সাশ্রয়ী মূল্যের ফোরজি স্মার্টফোন সংযোজন করা হবে।

তবে কী পরিমাণ হ্যান্ডসেট এ কারখানায় সংযোজন করা হবে, সে বিষয়ে এখনই নিশ্চিত করে বলতে পারেননি প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।

আগামী ঈদুল ফিতরের আগেই অর্থাৎ চলতি বছরের জুনের মধ্যেই দেশে সংযোজিত স্যামসাং ফোরজি স্মার্টফোন বাজারে আসবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

দেশে সংযোজন করার ফলে স্মার্টফোনের দাম কতটা কমে আসবে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে রুহুল আলম আল মাহবুব জানান, মূল্য নির্ধারণে তারা কাজ করছেন।

বর্তমানে খুচরা যন্ত্রাংশ আমদানিতে ১ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত কর রয়েছে। এর ফলে কোন ডিভাইস কত শতাংশ কম মূল্যে গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দেওয়া যাবে, সে বিষয়ে এখনই কিছু বলা সম্ভব নয় বলে জানান তিনি।

প্রাথমিকভাবে শুধু হ্যান্ডসেট সংযোজন করা হলেও ভবিষ্যতে সম্পূর্ণ হ্যান্ডসেট এখানেই তৈরি করার পরিকল্পনা আছে বলেও জানানো হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে।

এছাড়া এখন শুধু দেশের বাজারের জন্যই এ কারখানায় স্মার্টফোন সংযোজন করা হবে। ভবিষ্যতে দেশের চাহিদা মিটিয়ে অন্যান্য দেশেও এ হ্যান্ডসেট রফতানি করার চেষ্টা থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ফেয়ার ইলেকট্রনিকসের কর্মকর্তারা।