• রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
BK

নিয়মিত খান পেস্তা বাদাম

ছবি : ইন্টারনেট

পেস্তা বাদাম ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সক্রিয়। এই বাদামের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গ্লাইকেশন প্রক্রিয়া নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ডায়াবেটিস বাড়তে দেয় না। স্পেনের রোভিরা আই ভার্জিলি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মনিকা বুলোর বিবৃতি অনুযায়ী, বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিকর খাবার একত্রে সুগার নিয়ন্ত্রণে যে কাজ করে পেস্তা বাদামে থাকা উপাদান একাই সুগার নিয়ন্ত্রণে ততটা কার্যকর। পেস্তা বাদামে আছে ফসফরাস, পটাসিয়াম, সোডিয়াম, কপার, ম্যাগনেসিয়াম ও ভিটামিন। এই বাদাম রক্ত শুদ্ধ করে এবং লিভার ও কিডনি ভালো রাখে। আবার কাজু বাদামে আছে আয়রন, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও ভিটামিন-এ। কাজু বাদাম রক্তশূন্যতা কমায়, ত্বক উজ্জ্বল করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

বিশ্বব্যাপী ডায়াবেটিস এখন ঘাতক ব্যাধি। যাদের ডায়াবেটিস টাইপ-২ (ইনসুলিনের ওপর নির্ভরশীল নয়), পেস্তা বাদামে থাকা স্বাস্থ্যকর তেল তাদের জন্য বেশ উপকারী। যুক্তরাজ্যের চিকিৎসক ডা. রিচার্ড ইলিয়ট বলেন, ডায়াবেটিস টাইপ-২-এ যারা রয়েছেন, ঝুঁকি এড়াতে তাদের ওজন নিয়ন্ত্রণ করা উচিত পরিমিত স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ এবং পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে। ডায়াবেটিসের কোনো পূর্বলক্ষণ না থাকায় যতক্ষণ না রোগটি জটিল আকার ধারণ করছে, ততক্ষণ উপলব্ধি করার সুযোগ থাকে না। তাই প্রত্যেকেরই এ বিষয়ে সচেতন হওয়া উচিত। গবেষকদের মতে, ডায়াবেটিস প্রতিরোধে পেস্তা বাদাম উপকারী। বলা হয়েছে, নিয়মিত ও পরিমিত হারে বাদাম খাওয়া স্বাস্থ্যকর অভ্যাস।

স্প্যানিশ এক গবেষণায় দেখা গেছে, ৫৪ ব্যক্তির মধ্যে যারা ডায়াবেটিস সীমানায় রয়েছেন, আট মাস তাদের পরিমিত আকারে একই খাবার দেওয়া হয়। তাদের মধ্যে অর্ধেক ব্যক্তির একই পরিমাণ ক্যালরি গ্রহণের পাশাপাশি প্রতিদিন ৫৭ গ্রাম পেস্তা বাদাম দেওয়া হয়। আট মাস পর তাদের ওজন না কমলেও রক্ত পরীক্ষা করে পার্থক্য পাওয়া গেছে। এ পরীক্ষার পর রক্তে সুগারের পরিমাণ কমানোর এটাই সহজ উপায় বলে ধারণা করা হচ্ছে।

-ফয়জুন্নেসা মণি