• সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
BK

বাংলাদেশের সমুদ্র বিজয়

ছবি : সংগৃহীত

মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে বঙ্গোপসাগরের বিরোধপূর্ণ সীমানার মীমাংসার পর বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা অনেক বেড়েছে। বর্তমানে এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটার টেরিটোরিয়াল সমুদ্র, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে অবস্থিত সব ধরনের প্রাণিজ, অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর বাংলাদেশের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ে ২০১২ সালে মিয়ানমার আর ২০১৪ সালে ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিস্পত্তি হওয়ায় মোট ১ লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারের বেশি টেরিটোরিয়াল সমুদ্র এলাকা এখন বাংলাদেশের। সঙ্গে আছে, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল ও চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে সব ধরনের প্রাণিজ-অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর সার্বভৌম অধিকার। মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রে বিরোধপূর্ণ ১৭টি ব্লকের ১২টি পেয়েছিল বাংলাদেশ। ভারতের দাবিকৃত ১০টি ব্লকের সবই পেল বাংলাদেশ। এ ছাড়া বিরোধপূর্ণ ২৫ হাজার বর্গকিলোমিটার অঞ্চলের ১৯ হাজার পেয়েছে বাংলাদেশ আর বাকি ৬ হাজার গেছে ভারতের অধিকারে। দুই বছরের ব্যবধানে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল প্রদত্ত এ রায় দুটোকে বাংলাদেশের ‘সমুদ্র বিজয়’ বলে অভিহিত করা হয়। হল্যান্ডের হ্যাগে এ রায়ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের এই প্রাপ্তি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে নবযুগের সূচনা করেছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।