• মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫, ২৩ সফর ১৪৩৯
BK

বন্ধ হচ্ছে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা

ছবি: ইন্টানেট

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি করে তা মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ব্যবহার করার অভিযোগে সমালোচনার মুখে থাকা রাজনৈতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার কার্যক্রম বন্ধ হচ্ছে। ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ হচ্ছে এর ব্রিটিশ অভিভাবক কোম্পানি এসসিএল ইলেকশনস লিমিটেডের কার্যক্রমও।

গত বুধবার প্রতিষ্ঠানটি এক বিবৃতিতে নিজেদেরকে দেউলিয়া ঘোষণার প্রক্রিয়া শুরুর কথা জানায়। বিবৃতিতে বলা হয়, ব্যবসায় বড় ধরনের ধসের কারণেই এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে তারা।

বিবৃতিতে কোম্পানিটি বলেছে, গত কয়েক মাসে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা অসংখ্য অজানা অভিযোগের বিষয়বস্তু ছিল। তথ্য-প্রমাণ ঠিক করতে কোম্পানির চেষ্টার পরও এমন কিছু কার্যক্রমের জন্য দোষী বানানোর চেষ্টা হয়েছে, যা বিশ্বজুড়ে রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িক অঙ্গনে আদর্শ হিসেবে গৃহীত এবং বৈধ।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, গণমাধ্যমে সম্প্রচারের ধরনে কোম্পানির সব গ্রাহক ও সরবরাহকারী কার্যত দূরে সরে যায়। ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে দৃশ্যত কার্যকর অবস্থা ও বিকল্প না থাকায় ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকাকে প্রশাসনের হাতে হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এদিকে বুধবার থেকেই কোম্পানিটি নিজেদের কার্যক্রম এবং কর্মীদের কম্পিউটার বন্ধ করার নির্দেশ দেয় বলে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। আর ঘোষণার পর পরই লন্ডনের অফিসের অভ্যর্থনা কক্ষ থেকে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার চিহ্ন সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

২০১৬ সালের যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে কাজ করে লন্ডনভিত্তিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা। এ জন্য তারা ২০১৪ সালের প্রথম থেকে কোটি কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। পরে একটি অ্যাপের মাধ্যমে ওই কয়েক কোটি ফেসবুক গ্রাহকের তথ্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের কৌশল নির্ধারণে কাজে লাগানো হয়।

এদিকে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা এবং এসসিএলের পরিচালক ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগের দেওয়ানি ও ফৌজদারি তদন্ত চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের তথ্য নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে লক্ষ করে ২০১৩ সালে যাত্রা শুরু করে যুক্তরাজ্যভিত্তিক এ রাজনৈতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান। কোটিপতি রিপাবলিকান দাতা রবার্ট মেরসের ও স্টিভ ব্যাননের দেড় কোটি ডলার পৃষ্ঠপোষকতায় তথ্য বিশ্লেষক এ প্রতিষ্ঠানটি কাজ শুরু করে। ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ব্যানন পরে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের উপদেষ্টা হন। এরপর থেকে রাজনৈতিক অঙ্গন ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতিষ্ঠানটির কদর বাড়তে থাকে।

তবে কোটি কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠার পর রাজনৈতিক এ পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটির ব্যবসায় ধস নামতে শুরু করে।