• সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪, ১৩ মহররম ১৪৪০
BK

এক রাতে সালাহর তিন পুরস্কার

ছবি: ইন্টারনেট

মৌসুমটা স্বপ্নের মতো কেটেছে। লিভারপুলের জার্সিতে ৫০ ম্যাচে ৪৩ গোল। অসাধারণ পারফরম্যান্সে লিভারপুলকে লিগ শিরোপা জেতাতে না পারলেও দলকে নিয়ে গেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে। ভাগ্য সুপ্রসন্ন হলে রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়ে মাততে পারেন শিরোপা উৎসবেও। মৌসুম শেষে পুরস্কারে ভাসবেন মোহাম্মদ সালাহ এটা ছিল অনুমিত। চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল ২৬ মে। তবে তার আগেই এক রাতে মিশরীয় এই স্ট্রাইকারের হাতে উঠেছে তিনটি পুরস্কার।

ক’দিন আগেই প্রফেশনাল ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (পিএফএ) সেরা ফুটবলারের পুরস্কার ঘরে তুলেছিলেন সালাহ। বৃহস্পতিবার রাতটাও ছিল তার জন্য বিশেষ। লিভারপুলের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি, খেলোয়াড়দের ভোটে প্লেয়ার্স প্লেয়ার অব দ্য সিজনের পুরস্কার পান সালাহ। সঙ্গে আরো একটা পুরস্কার পেয়েছেন মিশরকে রাশিয়ার বিশ্বকাপে তোলা সালাহ। 

লিভারপুলের অনুষ্ঠান শেষে প্রাইভেট জেটে করে লন্ডনে উড়াল দেন তিনি। লন্ডনে তাকে পুরস্কৃত করে ফুটবল রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশন। রেকর্ড ভোট পেয়ে ফুটবল রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশনের বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন মিশরীয় এই তারকা। এ পুরস্কার পেতে ম্যানচেস্টার সিটির কেভিন ডি ব্রুইন এবং টটেনহ্যাম হটস্পারের হ্যারি কেনকে পেছনে ফেলেন সালাহ। এর আগে এপ্রিলে পেশাদার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (পিএফএ) বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও জিতেছিলেন তিনি। 

শেষের পথে চলতি মৌসুম। এরই মধ্যে গুঞ্জন উঠেছে ক্লাব ছাড়ার। তবে সেটা নিয়ে আপাতত চিন্তা নেই সালাহর, ‘এখানে আমার দারুণ সময় কাটছে। আমি খুশি আছি এবং সবকিছু ভালো যাচ্ছে। লিভারপুলের হয়ে আমাদের স্বপ্ন অনেক বড়। আপনারাই দেখছেন আমরা কতটা ভালো খেলেছি। এটা তো মাত্র শুরু। মাত্রই আমার প্রথম বছর এবং আমাদের বেশ কয়েকজনের জন্য প্রথম। শেষ বছর কী হয়েছিল তা বলতে পারছি না, তবে এ বছরটি আমরা দারুণ কাটিয়েছি।’

প্রসঙ্গত, চলমান মৌসুমের শুরুতেই রোমা থেকে ৩৬.৯৬ মিলিয়ন ইউরোতে লিভারপুলে যোগ দেন মোহাম্মদ সালাহ। প্রথম মৌসুমে লিভারপুলকে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন। এবার অপেক্ষা শিরোপা উৎসবে মাতার। এ ছাড়া প্রায় দু’দশক পর নিজ দেশ মিশরকে নিয়ে গেছেন বিশ্বকাপের মঞ্চে। সুতরাং এ বছর জুনে শুরু হতে যাওয়া রাশিয়া বিশ্বকাপেও রঙ ছড়াবেন মোহাম্মদ সালাহ। তা সহজেই অনুমেয়।