• সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
BK

ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির সব পরীক্ষা প্রশ্নব্যাংক থেকে

* সফল হলে সব বোর্ডে চালু হবে এ পদ্ধতি
ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির সব পরীক্ষা প্রশ্নব্যাংক থেকে
সংগৃহীত ছবি

পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস, গাইড বই ব্যবসা বন্ধ ও শিক্ষার্থীদের কোচিংনির্ভরতা কমাতে যশোর শিক্ষা বোর্ডে তৈরি হয়েছে প্রশ্নব্যাংক। বোর্ড আওতাধীন সব স্কুলের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সব পরীক্ষা হবে এ প্রশ্নব্যাংকের প্রশ্ন দিয়েই। আর বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকদের পাশাপাশি এ প্রশ্ন তৈরি করবেন শিক্ষার্থীরাও। বোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছেন, এ পদক্ষেপ সফল হলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেশের সব বোর্ডে চালু করবে এ প্রশ্নব্যাংক পদ্ধতি।

দেশের মাধ্যমিক শিক্ষা ব্যবস্থায় পাঠ্যক্রম ভিত্তিতে নির্দিষ্ট সময়ব্যাপী শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শেষে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান ও মেধা মূল্যায়নের জন্য পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়ে থাকে। আর এ পরীক্ষার সফলতার ভিত্তিতেই শিক্ষার্থীরা পরবর্তী শ্রেণিতে উন্নীত হওয়ার সনদ লাভ করে। একইভাবে শিক্ষক বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সফলতা বিচারের মাপকাঠিও এই পরীক্ষার ফলাফল। তবে পরীক্ষার সফলতা বা ব্যর্থতা নির্ভর করে সঠিক প্রশ্নপত্রের ওপর। আর এই প্রশ্নপত্র নিয়ে একটি অসাধু চক্র শিক্ষার্থীদের ক্ষতি করে তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ হাছিল করে যাচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে। এবার পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস, প্রশ্ন-গাইড বই ব্যবসা বন্ধ, শিক্ষার্থীদের কোচিংনির্ভরতা কমাতে ও সর্বোপরি শিক্ষার্থীদের পাঠ্যবইমুখী করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে তিন বছরের প্রচেষ্টায় যশোর বোর্ডে তৈরি হয়েছে প্রশ্নব্যাংক। 

বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানান, প্রত্যেক বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক বাধ্যতামূলকভাবে এ প্রশ্নব্যাংকের প্রশ্ন করবেন। বোর্ড কর্তৃক মনোনীত একটি মডারেটর টিম এই প্রশ্ন চূড়ান্ত করার পরই তা দিয়েই নেওয়া হবে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির সকল পরীক্ষা। নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে এ বছর থেকেই মাধ্যমিকের সব পরীক্ষা কেন্দ্রীয়ভাবে গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ২ হাজার ৯১৩টি স্কুলে ৬ষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সব ক্লাসে বোর্ড নির্ধারিত সূচিতে ও প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা গৃহীত হবে। আগামী ১ জুলাই অর্ধবার্ষিকী ও প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষার মাধ্যমে এ কার্যক্রম চালু হবে। ইতোমধ্যে প্রশ্নপত্র নামানো ও সরবরাহের মহড়া সম্পন্ন হয়েছে। এবারই প্রথম যশোর শিক্ষা বোর্ডের অনলাইন প্রশ্নব্যাংকের মাধ্যমে ৬ষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণিতে অর্ধবার্ষিকী পরীক্ষা ও দশম শ্রেণিতে প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

প্রশ্নব্যাংকের অন্যতম উদ্যোক্তা যশোরে শিক্ষা বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী কামাল হোসেন জানান, ‘সমিতির প্রশ্ন বাণিজ্য, নোট, গাইড বইয়ের প্রতি শিক্ষার্থীদের প্রবণতা কমাতে ২০১৬ সাল থেকে অনলাইন প্রশ্নব্যাংকের কার্যক্রম শুরু করে যশোর শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ। সে সময় পরীক্ষামূলকভাবে ৬৫০ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় অষ্টম ও নবম শ্রেণির অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা। ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত হয় অষ্টম, নবম শ্রেণির অর্ধবার্ষিক ও দশম শ্রেণির প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা। সেই সফলতায় ৬ষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত অর্ধবার্ষিক ও দশম শ্রেণির প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ইতোমধ্যে পরীক্ষার সময়সূচি দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন সকাল ৭টা হতে ৯টা ও বেলা ১১টা থেকে দেড়টার মধ্যে অনলাইনে প্রশ্ন সরবরাহ করা হবে। স্কুল কর্তৃপক্ষ প্রশ্নপত্র ডাউনলোড করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সরবরাহ করবে। তবে কেন্দ্রীয়ভাবে পরীক্ষা গৃহীত হলেও খাতা মূল্যায়ন ও ফলাফল তৈরির বিষয়টি পূর্বের মতো স্কুল কর্তৃপক্ষ নিয়ন্ত্রণ করবে।’

শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল আলীম জানান, পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে গ্রহণের লক্ষ্যে প্রশ্নব্যাংকের সফটওয়্যারের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিষ্ঠান প্রধানদের মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রশ্ন ডাউন বিষয়ে কোনো সমস্যা হলে দ্রুত সমাধান করা হবে। যাতে করে পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রশ্ন নিয়ে গড়ে ওঠা ব্যবসায়ী চক্রের তৎপরতা কমার পাশাপাশি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা সমানভাবে লাভবান হবেন।