• সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫, ১১ সফর ১৪৪০
BK

চুল কেটে কুল রক্ষা!

চুল কেটে কুল রক্ষা!
আর্ট : বাংলাদেশের খবর

নীলফামারী সদর উপজেলায় জোরপূর্বক লক্ষ্মী রাণী রায় (১৭) নামে এক কিশোরীর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া হয়েছে। রামনগর ইউনিয়নের ওই কিশোরী বলছেন, ভিন্ন ধর্মের এক ছেলেকে বিয়ে করে বাড়ি ছাড়ায় ‘হিন্দু শাস্ত্রমতে’ সোমবার দিবাগত গভীররাতে তাকে এভাবে প্রায়শ্চিত্ত করানো হয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, পুরোহিত ও মানবাধিকার কর্মীরাও বলছেন, ধর্মের দোহাই দিয়ে কাজটি করা ঠিক হয়নি; জড়িতদের বিচার হওয়া উচিত। তবে মেয়েটির মা বলছেন, এ নিয়ে তাদের কোনো অভিযোগ নেই। পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তারা হলো- রামনগর ইউনিয়নের সদানন্দ রায় (৩০), দীনবন্ধু রায় (৩২) ও পুষ্প কুমার রায় (২৮)।

এলাকাবাসী জানায়, গ্রামের প্রয়াত ধীরেন্দ্র নাথ রায়ের মেয়ে লক্ষ্মী প্রেমের সম্পর্ক ধরে গত ২ জুলাই বাড়ি ছেড়ে পাশের কচুকাটা ইউনিয়নের দুহুলী গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে রবিউল ইসলামের বাড়ি গিয়ে ওঠেন। সেখানে অবস্থানকালে গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে ৯ জুলাই সোমবার রাতে তাকে বাড়িতে ফেরত নেওয়া হয়। তারপর ভোররাত ৪টার দিকে তার মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া হয়।

লক্ষ্মী রাণী জানান, ২০১৩ সাল থেকে জেলা শহরের পরচুলা তৈরির এক কারখানার শ্রমিক তিনি। কর্মস্থলে যাতায়াতের পথে অটোবাইক চালক রবিউলের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক হয় দেড় বছর আগে। গত ১ জুলাই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তিনি রবিউলকে বিয়ে করেন এবং ২ জুলাই রবিউলের বাড়ি ওঠেন। বিষয়টি দুই পরিবার মেনে না নেওয়ায় ৯ জুলাই রাতে রবিউলের বাড়িতে সালিশ হয়। সালিশের মাধ্যমে তাকে বাবার বাড়ি ফেরত আনা হয়।

লক্ষ্মী রাণী বলেন, ‘আমাকে আনার পর প্রতিবেশীরা প্রায়শ্চিত্ত করতে বলেন। এরপর আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তারা আমার মাথা ন্যাড়া করে দেয়। বাধা দেওয়ায় মারধরও করা হয়। অনেক লোকের সামনে প্রতিবেশী দিনবন্ধু রায় ও সদানন্দ রায় ব্লেড দিয়ে আমার মাথা ন্যাড়া করে দেয়।’ লক্ষ্মী রাণীর মা বুলোবালা (৪৫) বলেন, মেয়ে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে মুসলমান ধর্মে গিয়েছিল। তাকে প্রতিবেশীরা ফিরিয়ে এনেছে। মাথা ন্যাড়া করে প্রায়শ্চিত্য করিয়ে তাকে প্রতিবেশীরা গ্রহণ করে নিয়েছে সমাজে। এনিয়ে আমার কোনো অভিযোগ নেই। তবে কিশোরীর দিদিমা বিজো বালা রায় (৬৫) বলেন, ‘মেয়েটা তো নাবালক। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। নাড়িয়া না করেও ধর্মের প্রায়শ্চিত্ত করা যায়।’

সালিশে অংশ নেওয়া প্রতিবেশী বিবেকানন্দ রায়, কনক চন্দ্র রায়, সুধীর চন্দ্র রায়, সুরেশ চন্দ্র রায় বলেন, ওই কিশোরী হিন্দু ধর্ম ছেড়ে মুসলিম হয়েছিল। সেখান থেকে পুনরায় হিন্দু ধর্মে ফিরে আনার জন্য প্রায়শ্চিত্তের অংশ হিসেবে তার মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া হয়েছে। এখন অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতার প্রস্তুতি চলছে। এটা হিন্দু ধর্মের রীতি-নীতি। হিন্দু সমাজের লোকজন উপস্থিত থেকে ওই বিধান দিয়েছেন। জানতে চাইলে রামনগর ইউনিয়ন পরিষদের নয় নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য রুহুল আমিন বলেন, ‘রবিউলের বাড়ি থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করে পরিবারের জিম্মাই দেই। ধর্মের দোহায় দিয়ে তারা যে কাজ করেছে- তা ঠিক নয়। জনপ্রতিনিধি হিসেবে ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবি করেন তিনি। নীলফামারী কেন্দ্রীয় কালী মন্দিরের পুরোহিত অশোক কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, ‘সনাতন হিন্দু ধর্মে মাথা ন্যাড়া করে প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে- এমন নিয়ম নেই। বিধান মতে চুলের অগ্রভাগে এক থেকে দেড় ইঞ্চি কেটে ফেলে যে যার প্রায়শ্চিত্ত করবে।

মানবাধিকরা কমিশন নীলফামারী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান দুলাল বলেন, ‘ধর্মের দোহায় দিয়ে প্রায়শ্চিত্তের নামে মেয়েটির মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া চরম মানবাধিকার লংঘন। যারা এটা করেছে তাদের প্রত্যেরেক আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক বিচার করা উচিৎ।

নীলফামারী সদর থানার ওসি বাবুল আকতার বলেন, ওই কিশোরীর মাথা ন্যাড়া করার ঘটনায় মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টার দিকে তিনজনকে আটক করা হয়েছে।