• শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪, ১১ মহররম ১৪৪০
BK

চেক রিপাবলিকের সঙ্গে দ্বৈত কর পরিহার চুক্তি করবে বাংলাদেশ

চেক রিপাবলিকের সঙ্গে দ্বৈত কর পরিহার চুক্তি করবে বাংলাদেশ
সংরক্ষিত ছবি

দ্বিপক্ষীয় ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ সম্প্রসারণে অধিকতর অনুকূল পরিবেশ তৈরির জন্য বাংলাদেশ ও চেক রিপাবলিক দ্বৈত কর পরিহার চুক্তি স্বাক্ষর করবে। এ লক্ষ্যে উভয় দেশের রাজস্ব প্রশাসনের কর্মকর্তারা আলোচনা শুরু করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় একটি হোটেলে চার দিনব্যাপী এই আলোচনা শুরু হয়।

সভায় বাংলাদেশের পক্ষে আলোচনায় নেতৃত্ব দেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কালিপদ হালদার। চেক রিপাবলিকের পক্ষে সেদেশের রাজস্ব প্রশাসনের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ভেকলাভ জিকা নেতৃত্ব দেন।

কালিপদ হালদার বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ওপর যেন দ্বৈত কর আরোপিত না হয়। এজন্য দ্বৈত কর পরিহার চুক্তি করা জরুরি। এই চুক্তি হলে চেক ব্যবসায়ীদের কাছে বাংলাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ অনুকূল পরিবেশ আরো উন্নত হবে। একইভাবে বাংলাদেশের বিনিয়োগকারীরাও চেক রিপাবলিকে বিনিয়োগ করতে উৎসাহী হবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

কালিপদ হালদার বলেন, একই ব্যক্তি বা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের আয়ের ওপর যাতে দুই দফা কর দিতে না হয়- এজন্য আলোচনার মাধ্যমে কোথাও ত্রুটি আছে কি না তা খুঁজে বের করতে হবে। আশা করি আলোচনার ভিত্তিতে চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য করণীয় ঠিক করা সম্ভব হবে।

চেক রাজস্ব কর্মকর্তা ভেকলাভ জিকা বলেন, দ্বিপক্ষীয় বিনিয়োগ প্রবাহ সম্প্রসারণে দ্বৈত কর পরিহারের লক্ষ্যে আমরা ইতিবাচকভাবে কাজ শুরু করেছি। উভয় দেশকে এ বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে হবে। চুক্তি স্বাক্ষরের পর দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগে গতিবেগ সঞ্চারিত হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

একই ব্যক্তি বা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের আয়ের ওপর যাতে দুই দফা কর দিতে না হয়, সে লক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী দ্বিপক্ষীয় ভিত্তিতে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে দ্বৈত কর পরিহার চুক্তি হয়ে থাকে। বর্তমানে ৩৩টি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের এ ধরনের চুক্তি রয়েছে।

বিদেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে দ্বৈত কর পরিহারের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। বর্তমানে অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ বা আয়ের ওপর কোনো ধরনের দ্বৈত কর নেই।