• বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪, ৯ মহররম ১৪৪০
BK

হতাশ করলেন অ্যাথলেটরা

হতাশ করলেন অ্যাথলেটরা
ছবি : ইন্টারনেট

এশিয়ান গেমসে ঈদুল আজহার কোনো ছুটি ছিল না। ঈদের দিনও বিভিন্ন ইভেন্টে লড়াই করতে হয়েছে অ্যাথলেটদের। বাংলাদেশের ক্রীড়াবিদরাও বেশ কয়েকটি ইভেন্টে লড়াই করেছিলেন ঈদের ছুটিতে। কিন্তু ঈদের আনন্দের মতো মাঠে পারফরম্যান্স রাঙাতে পারেননি জিমি-শিরিন-রোমান সানা-খাদিজা-সাগররা। হতাশ করেছেন সবাই। কেউ পুলে, কেউ টার্ফে- সব ইভেন্টেই ছিল ব্যর্থতার গল্প। তবে ব্যতিক্রম ছিল আরচ্যারি ইভেন্ট। হাসি-কান্নার মিশ্রণ ছিল এ ইভেন্টে। ঈদের ছুটিতে এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশের অ্যাথলেটদের বিভিন্ন ইভেন্টের ব্যর্থতা-সাফল্যের খবরগুলো সংক্ষেপে তুলে ধরা হলো :

হকি : ওমানের বিরুদ্ধে জয় তুলে নিয়ে আসর শুরু করা বাংলাদেশ হকি দল নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে কাজাখস্তানের মুখোমুখি হয়েছিল ঈদের দিন সকাল ১০টায়। জিবিকে হকি গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত ওই ম্যাচে লাল-সবুজরা ৬-১ গোলে জয় তুলে নিয়ে ঈদের দিনটাকে রাঙিয়ে তুলেছিল। উল্লাসে মেতেছিল পুরো দল। তবে শিষ্যদের জয়ের পরও পারফরম্যান্স নিয়ে হতাশা ছিল কোচ গোপীনাথন কৃষ্ণমূর্তির কণ্ঠে, ‘জয় পাওয়ায় খুশি। কিন্তু ওদের পারফরম্যান্সে আমি মোটেও খুশি নই। আরো বেটার খেলার যোগ্যতা আছে আমার দলে।’

সাঁতার : মাহফিজুর রহমান সাগরের প্রিয় ইভেন্ট ১০০ মিটার ফ্রি স্টাইল। অনুশীলনের ঘাটতির অজুহাত তুলে ২০০ মিটারে পুলে না নামা এ সাঁতারু নিজের প্রিয় ইভেন্টেও ছিলেন ব্যর্থ। হিটে ৪৭ জনের মধ্যে ৩৫তম হন পাবনার এ সাঁতারু। ৫০ মিটার ফ্রি স্টাইলেও ছিল হতাশা। ৫১ জনের মধ্যে হয়েছে ৩৬তম। হতাশ করেছেন আরেক সাঁতারু খাদিজা আক্তার বৃষ্টিও। তিনিও নিজের প্রিয় ইভেন্টে (৫০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোক) হিটে ৩০ জনের মধ্যে ২৭তম হন খাদিজা আক্তার। ৫০ মিটার ফ্রি স্টাইলের হিট থেকেও বিদায় নিতে হয়েছে তাকে। ৩১ জনের মধ্যে ২৮তম স্থান নিয়েই ফিরে আসতে হয়। 

আরচ্যারি : মঙ্গলবার দিনটি ছিল বাংলাদেশের জন্য আরচ্যারিতে ছিল মিশ্র অনুভূতির। ছেলেদের রিকার্ভ রাউন্ডে তৃতীয় স্থানে থেকে পরের রাউন্ডে ওঠেন রোমান সানা। ৭৯ জনের মধ্যে হন তৃতীয়, যা দেশের জন্য বেশ গর্বের ছিল। প্রত্যাশা ছিল আরো বড়। কিন্তু পারেননি রোমান সানা। বিদায় নিতে হয়েছে বাছাইপর্বের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই। তবু তার এ কৃতিত্বকে বড় করেই দেখছেন আরচ্যারি ফেডারেশনের কর্মকর্তারা।

শুটিং : শুটিংয়ে নারীদের ৫০ মিটার রাইফেল থ্রি পজিশন ইভেন্টে বাংলাদেশের কেউই পরের রাউন্ডে উত্তীর্ণ হতে পারেননি। সুরাইয়া আক্তার ও শারমিন শিল্পা দুজনই এ ইভেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছেন। সুরাইয়া মোট ১১৩০ স্কোর নিয়ে ৩৩ জনের মধ্যে ২৫তম ও শিল্পা ১০৯৭ স্কোর নিয়ে ৩৩ জনের মধ্যে ৩৩তম হয়েছেন। এদিকে আরেক তারকা শুটার শাকিল আহমেদও বিদায় নিয়েছে নীরবে। কমওয়েলথ গেমসে রৌপ্যজয়ী এ শুটার ১০ মিটার এয়ার পিস্তলে ৪০ জনের মধ্যে হন ২২তম। ৩৭তম হয়েছেন বাংলাদেশের পিয়াস হোসেন। ৫০ মিটার এয়ার রাইফেল থ্রি পজিশনে ব্যর্থ হন বাংলাদেশের শোভন আর রবিউল।

কাবাডি : পুরুষ কাবাডিতে ভারতের কাছে হার দিয়ে শুরু করা বাংলাদেশ ঈদের ছুটিতে জয় পায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। জয়ের ব্যবধান ২৯-২৫ পয়েন্ট। পুরুষরা জিতলেও টানা তৃতীয় হারের স্বাদ পায় বাংলাদেশ নারী কাবাডি দল। আগেই দুই হারে বিদায় নিশ্চিত করা নারীরা ব্যর্থতার ষোলোকলা পূর্ণ করে।

এ ছাড়া, ব্রিজে বাংলাদেশ জয় পায় সৌদি আরবের বিরুদ্ধে। আরব দেশটিকে হারিয়ে জায়গা করে নিয়েছে পরের রাউন্ডে। পুরুষ বিচ ভলিবলের প্রিলিমিনারি রাউন্ডে বাংলাদেশ হেরে গেছে ইন্দোনেশিয়ার কাছে। কুস্তিতে শিরিন সুলতানাও লজ্জা উপহার দেন।