• বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪, ৯ মহররম ১৪৪০
BK

বিমসটেক সম্মেলন শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

বিমসটেক সম্মেলন শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
ছবি : সংগৃহীত

বিমসটেক চতুর্থ শীর্ষ সম্মেলন উপলক্ষে দু’দিনের সরকারি সফরে শেষে নেপাল থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার দুপুর ২টা ৪৬ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে বহনকারী বিমান এসে পৌঁছায়। এর আগে দুপুর ১টায় ফ্লাইট বিজি১৮৭৪-তে ঢাকার উদ্দেশ্যে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ত্যাগ করেন তিনি।

তাকে বিদায় জানান দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী ঈশ্বর পোখারেল ও নেপালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাশরাফি বিনতে শামস।

বিমসটেকভুক্ত অন্যান্য দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সঙ্গে সম্মেলনে যোগ দেন শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার বিকেলে চতুর্থ বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টিসেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশনের (বিমসটেক) শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধনী সেশন এবং শুক্রবার সকালে সমাপনী অধিবেশনসহ সম্মেলনের বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী।

কাঠমান্ডুর হোটেল সোয়ালটি ক্রাউনি প্লাজায় চতুর্থ বিমসটেক সম্মেলন উদ্বোধনী সেশনের আয়োজন করা হয়। নেপালের জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য শুরু হয় সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, ভুটানের অন্তর্বতী সরকারের প্রধান উপদেষ্টা দাসো শেরিং ওয়াংচুক, শ্রীলঙ্কান প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা, থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রিয়ুথ চ্যান-ও-চার, মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট বিমসটেক সম্মেলনে যোগ দেন।

সম্মেলন ভেন্যুতে পৌঁছালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ অন্যান্য রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের স্বাগত জানান নেপালের প্রধানমন্ত্রী ও চতুর্থ বিমসটেক সম্মেলনের চেয়ারপারসন কেপি শর্মা অলি। তার আগে এক বৈঠকে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি, বিশেষ করে বিদ্যুৎ সেক্টরে সহযোগিতা বাড়াতে একমত হয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা অলি।

পাশাপাশি আঞ্চলিক উন্নয়ন জোরদার করতে তারা অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন। এরপর নেপাল সফররত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা অলির বৈঠক হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরকালীন আবাসস্থল হোটেল সোয়ালটি ক্রাউনি প্লাজায় এ বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন।

বিমসটেক সম্মেলনের ফাঁকে প্রধানমন্ত্রী ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করেন।

শুক্রবার সকালে বিমসটেকের সমাপনী অনুষ্ঠানসহ রিট্রিট সেশনে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী। একটি যৌথ ঘোষণার মধ্য দিয়ে এবারের শীর্ষ সম্মেলন শেষ হয়।

এই উপ-আঞ্চলিক সংস্থাটি ১৯৯৭ সালের ৬ জুন ব্যাংকক ঘোষণার মধ্য দিয়ে গঠিত হয়। এর সদস্য দেশগুলোর মধ্যে ৫টি দক্ষিণ এশিয়ার। এগুলো হচ্ছে- বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা। অন্য দু’টি দেশ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মিয়ানমার ও থাইল্যান্ড।

প্রাথমিকভাবে ৪টি সদস্য রাষ্ট্র নিয়ে একটি অর্থনৈতিক জোট গঠিত হয়েছিল। যার সংক্ষিপ্ত নাম ছিল ‘বিআইএসটি-ইসি’ (বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা এবং থাইল্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন)।

ব্যাংককে ১৯৯৭ সালের ২২ ডিসেম্বর একটি বিশেষ মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে এই জোটে মিয়ানমারের অর্ন্তভুক্তির মাধ্যমে এর নতুন নামকরণ হয় ‘বিআইএমএসটি-ইসি’ (বাংলাদেশ, ভারত, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা অ্যান্ড থাইল্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন)।
ষষ্ঠ মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে (ফেব্রুয়ারি ২০০৪, থাইল্যান্ড) নেপাল এবং ভুটান অন্তর্ভুক্ত হলে জোটের নতুন নামকরণ হয় ‘বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টিসেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন (বিমসটেক)।’

বিশ্বায়নের আগ্রাসন মোকাবেলা করে আঞ্চলিক সম্পদ এবং ভৌগোলিক সুবিধাদি কাজে লাগিয়ে সবার স্বার্থে পারস্পারিক সহযোগিতার মাধ্যমে উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করা হচ্ছে এই জোট গঠনের উদ্দেশ্য।