• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৬ সফর ১৪৩৯
BK

হাজীগঞ্জে বিএনপির পকেট কমিটি প্রত্যাখান

হাজীগঞ্জে বিএনপির পকেট কমিটি প্রত্যাখান
ছবি : বাংলাদেশের খবর

সদ্য ঘোষিত হাজীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপিপর কমিটি প্রত্যাখান করেছে হাজীগঞ্জে বিএনপির নেতারা। রোববার বিকালে হাজীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপির যৌথ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয় তারা। বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ আব্দুল মান্নান খাঁন বাচ্চুর সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে সাংবাদিকদের দেওয়া এক বিবৃতিতে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোল্লা মোহাম্মদ হোসেন মাহমুদ বলেন, হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির দু’টি কমিটি রয়েছে। দলীয় স্বার্থে এক ও ঐক্যবদ্ধ হয়ে ওই দুই কমিটির সমন্বয়ে যৌথ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা বিএনপির আহবায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক কোনো কমিটি করতেও পারে না, ভাঙ্গতেও পারে না উল্লেখ করে মোল্লা মোহাম্মদ হোসেন মাহমুদ বলেন, ২০১৪ সালের ১২ ডিসেম্বর বিএনপির গঠনতন্ত্র সংবিধান অনুযায়ী জেলা বিএনপির ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠিত হয়েছে। যার মেয়াদ ৩ মাস থেকে সর্বোচ্চ ৬ মাস। এর মধ্যে ১ জন আহবায়ক, ১৪ জন যুগ্ম আহবায়ক ও ১৫ জন সদস্য রয়েছে। এই সদস্যদের মধ্যে ৫ জন মৃতবরণ করেছেন এবং ১৫ সদস্য শেখ ফরিদ আহমেদ মানিককে আহবায়ক হিসেবে মানেন না। 

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আহবায়ক কমিটির ৭১ জনের মধ্যে কমপক্ষে ৩৬ জন সদস্যের উপস্থিতি প্রয়োজন। এই সদস্যের উপস্থিতি না থাকার কারনে গত ৪ বছরে জেলা বিএনপির কোন সভা করতে পারেন নি শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক। যেহেতু জেলা বিএনপির আহবায়কের রেজুলেশন নেওয়ার সংখ্যাগরিষ্ট সদস্য নেই, সেহেতু তিনি কোন কমিটি করতেও পারেনা, ভাঙ্গতে পারেনা। অথচ তিনি অগঠনতান্ত্রিকভাবে কোন সম্মেলন ছাড়াই হাজীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটির পকেট কমিটি ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, আলহাজ¦ ইমাম হোসেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক, আবুল বাসার হাজীগঞ্জ পৌর বিএনপির আহবায়ক। হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তিতে বিএনপির কমিটি করতে হলে আলহাজ¦ ইমাম হোসেনের সুপারিশ প্রয়োজন। হাজীগঞ্জ পৌর বিএনপির কমিটি গঠনে আবুল বাসার এর স্বাক্ষর প্রয়োজন। সর্বপরি গঠনতন্ত্র মোতাবেক উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি গঠন করতে হলে ইউনিয়ন ও পৌর ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠন এবং সম্মেলনের তারিখ নির্ধারন করে নেতাকর্মী, সমর্থক, ভোটার, সাংবাদিকসহ গন্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে সমঝোতা ও ভোটাভোটির মাধ্যামে কমিটি ঘোষিত হয়। অথচ আমরা জানিনা ও শুনিনি হাজীগঞ্জে উপজেলা ও পৌর বিএনপির সম্মেলন হয়েছে কিনা ? তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্ন করে বলেন, আপনারা কি জানেন, হাজীগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপির সম্মেলন করেছেন বা হয়েছে কিনা ?

উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলমগীর কবির পাটওয়ারী ও পৌর বিএনপির সভাপতি সালাহ্ উদ্দিন ফারুক মামুন গংরা বিএনপির বিপক্ষে কাজ করেন বলে উল্লেখ করে মোল্লা মোহাম্মদ হোসেন মাহমুদ বলেন, উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচনসহ বিগত ১০ বছরের আন্দোলনর সংগ্রামে বিএনপির বিপক্ষে কাজ করেছেন তারা। আলমগীর কবির পাটওয়ারী জেলা আওয়ামী লীগ শিক্ষক সমিতির বর্তমান সভাপতি। বিগত উপজেলা নির্বাচনে তিনি বিএনপির প্রার্থীর বিরুদ্ধে নিজে প্রার্থী ছিলেন এবং জামানত হারিয়েছেন। ২০১৬ সালে পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। আলমগীর কবির পাটওয়ারী হাজীগঞ্জ মডেল কলেজ এবং সালাউদ্দিন ফারুক মামুন হাজীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে মেজর রফিকের পক্ষে প্রকাশ্যে কাজ করেন।

জেলা বিএনপির আহবায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক মেজর রফিকুল ইসলামের সাথে পরামর্শ করে (আলমগীর কবির পাটওয়ারী ও সালাউদ্দিন ফারুক মামুন) গংদের হাতে বিএনপির কমিটি তুলে দেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, এদের লক্ষ হচ্ছে আগামি দিনে সরকার বিরোধী আন্দোলন সংগ্রামে ও ১১ তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ও ইঞ্জি. মমিনুল হক সফল হতে না পারে।

জেলা বিএনপির আহবায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক কর্তৃক ঘোষিত এই পকেট কমিটিকে গত ১ সেপ্টেম্বর (শনিবার) বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে উপজেলা ও পৌর বিএনপির আয়োজিত অনুষ্ঠানে হাজার হাজার নেতা নেতা-কর্মীগন কন্ঠ ভোটে প্রত্যাক্ষান করে বলে মোল্লা মোহাম্মদ হোসেন মাহমুদ বলেন, জেলা বিএনপির অকার্যকর থাকায় আমরা কেন্দ্রের সাথে পরামর্শ করে সহসাই নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে সম্মেলনের মাধ্যমে উপজেলা ও পৌর বিএনপির পূণঃগঠন করবো।

তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, মানিক সাহেবের সাথে মতের কোন অমিল হলেই তিনি তাঁকে কমিটিতে রাখেন না। আমরা দলের স্বার্থে উপজেলা ও পৌর বিএনপির সকল নেতৃবৃন্দ এক ও ঐক্যবদ্ধ হয়েছি।

সভায় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ¦ ইমাম হোসেন, পৌর বিএনপির আহবায়ক আবুল বাসার ও আব্দুর রহমান মিয়াজী, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম.এ রহিম পাটওয়ারী, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান রানা, পৌর বিএনপির সদস্য সচিব নাদিম উল্যাহ্ নাদিম, সহ-সভাপতি আবুল খায়ের মজুমদার, উপজেলা যুবদলের আহবায়ক নাজমুল আলম চৌধুরী, উপজেলা যুবদলের সভাপতি আকতার হোসেন দুলাল, সাধারন সম্পাদক হুমায়ুন কবির সুমন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব বিল্লাল হোসেন বেলাল, পৌর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম ফকু, দপ্তর সম্পাদক রাশেদ আলম হীরা, উপজেলা মৎস্যজীবি দলের সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেন প্রমূখ।