• বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪, ৮ মহররম ১৪৪০
BK
সড়কে মৃত্যুর মিছিল থামছে না

মা-ছেলে-নাতিসহ ১০ জনের প্রাণহানি

মা-ছেলে-নাতিসহ ১০ জনের প্রাণহানি
প্রতীকী ছবি

কিছুতেই থামানো যাচ্ছে না সড়কে মৃত্যুর মিছিল। সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও প্রাণ হারাচ্ছেন মানুষ। অনেককে শারীরিক পঙ্গুত্ব বরণ করতে হচ্ছে। অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু হচ্ছে অনেক পরিবার। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে নানা উদ্যোগের পরও চালকদের দুর্ঘটনার পথ থেকে রোধ করা যাচ্ছে না। ফলে সড়কে মৃত্যুর তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে। গত রোববার রাত ও গতকাল সোমবার দেশের পাঁচ জেলায় সড়ক কেড়ে নিয়েছে মা, ছেলে, নাতিসহ কমপক্ষে ১০ জনের প্রাণ। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

সেনবাগ (নোয়াখালী) : ফেনী-নোয়াখালী মহাসড়কের সেনবাগ উপজেলার রাস্তার মাথা এলাকায় পিকআপ ভ্যান ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে মা-ছেলে-নাতিসহ চারজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো তিনজন। গতকাল সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ওই দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন সেনবাগ উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের উত্তর রাজারামপুর গ্রামের ঈমান আলী খান বাড়ির ফিরোজা বেগম (৫০), তার ছেলে কুয়েত প্রবাসী মোহন খান (৩৫), নাতি মিরন খান (৬) ও অটোরিকশাচালক আবু তাহের (২৫)। আহতরা হলেন শিমু (২৬), পিকআপের চালক ও এক আরোহী। নিহতদের মধ্যে মোহন ঘটনাস্থলে, ফিরোজা বেগম সেনবাগ হাসপাতালে, মিরন এবং সিএনজিচালক নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে মারা যান।

স্থানীয়রা জানায়, সকালে ফেনী থেকে ছেড়ে আসা আসবাবপত্র বহনকারী একটি পিকআপ ভ্যানের সঙ্গে সেনবাগের ছমির মুন্সিরহাট বাজার থেকে ছেড়ে আসা একটি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

সাভার : পিকআপ ভ্যান ও ট্রাকের সংঘর্ষে প্রকৌশলীসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো পাঁচজন। গতকাল সকালে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বলিয়ারপুর এলাকায় এসএন সিএনজি পাম্পের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মীর আকতার গ্রুপের ইঞ্জিনিয়ার মো. জহিরুল ইসলাম (৪০), ঢাকা ওয়াসার সার্ভেয়ার নুরন্নবী (৩৮) ও গাড়ির চালক খলিল (৩৫)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সিরাজগঞ্জ থেকে একটি পিকআপ ভ্যানে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন কয়েকজন। পরে সকালে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বলিয়ারপুর এলাকায় পৌঁছালে পিকআপ ভ্যানটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সামনে থাকা একটি ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে পিকআপ ভ্যানের সামনের অংশ দুুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে আটজন আহত হন। তাদেরকে দ্রুত সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতদের পরে ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

লালমনিরহাট : আদিতমারী উপজেলায় ট্রাকের ধাক্কায় অটোরিকশার যাত্রী আলমগীর হোসেন (১৮) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ছয় যাত্রী। গতকাল বেলা ১১টায় লালমনিরহাট-বুড়িমারী মহাসড়কের আদিতমারী সারপুকুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আলমগীর কালীগঞ্জ উপজেলার দুহুলী গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি ঢাকায় পোশাক কারখানায় কাজ করতেন।

আদিতমারী থানার ওসি মাসুদ রানা জানান, লালমনিরহাট থেকে ছেড়ে যাওয়া বুড়িমারীগামী একটি ট্রাক ওই এলাকায় যাত্রীবাহী একটি অটোরিকশাকে সামনে থেকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। ফলে চালকসহ সাতজন আহত হন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে নিলে আলমগীরকে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের মধ্যে তিনজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নড়াইল : ট্রাকের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী মাসুদ কাজী নামে এক নির্মাণ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। গতকাল বেলা ১১টার দিকে আউড়িয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি বাঁশগ্রাম ইউনিয়নের দারিয়াপুর গ্রামের মৃত আওয়াল কাজীর ছেলে। রাজমিস্ত্রি মাসুদ প্রতিদিনের মতো কাজের জন্য সাইকেলযোগে বাড়ি থেকে বের হয়ে আউড়িয়া এলাকায় পৌঁছলে বিপরীতমুখী একটি ট্রাক তাকে ধাক্কা দিয়ে রাস্তায় ফেলে চলে যায়। স্থানীয় এক নারী আহত অবস্থায় মাসুদকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

গাজীপুর : মহানগরীর জিরানী এলাকায় গত রোববার রাতে নবীনগর-চন্দ্রা সড়কে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় নিরঞ্জন সরকার (৩৫) নামে এক পথচারী নিহত হয়েছেন। তিনি বগুড়ার গাবতলী থানার হাতিবান্ধা এলাকার মলিন সরকারের ছেলে। সালনা হাইওয়ে থানার ওসি বাসুদেব সিনহা জানান, রাতে জিরানী এলাকায় রাস্তা পার হচ্ছিলেন নিরঞ্জন। এ সময় একটি বাস একটি প্রশিক্ষণ অ্যাম্বুলেন্সকে ধাক্কা দেয়। এতে অ্যাম্বুলেন্সটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পথচারী নিরঞ্জনকে ধাক্কা দেয় এবং ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে সোমবার পটুয়াখালী-কুয়াকাটা সড়কের কলাপাড়ায় বেপরোয়া গতিতে চলা একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুকুরে পড়ে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে।