• মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪, ১৪ মহররম ১৪৪০
BK
সমাবেশে সিএমপি কমিশনার

মাদক দমনে প্রাণহানি অপ্রত্যাশিত নয়

মাদক দমনে প্রাণহানি অপ্রত্যাশিত নয়
সংরক্ষিত ছবি

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনার (সিএমপি) মাহবুবর রহমান বলেছেন, মাদক ব্যবসায়ীদের দমনে কঠোর অবস্থানে পুলিশ। এতে কোনো ব্যক্তির প্রাণহানি অপ্রত্যাশিত নয়।

গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মুসলিম ইনস্টিটিউট হলে কোতোয়ালি থানা কমিউনিটি পুলিশ আয়োজিত মাদকবিরোধী সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি।

পুলিশ কমিশনার বলেন, মাদক ঠেকাতে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি এবং কোস্টগার্ডকে আরো বেশি ভূমিকা রাখতে হবে। মিয়ানমার থেকে ইয়াবার প্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তরক্ষী বাহিনী ব্যর্থ। ১২০ কিলোমিটার সীমান্ত যদি আমরা রক্ষা করতে পারতাম তাহলে ইয়াবা সারা দেশে ছড়াত না।

মাহবুবর রহমান আরো বলেন, ইয়াবার মাধ্যমে দেশকে ধ্বংস করার চেষ্টা হচ্ছে। মাদক ব্যবসায়ীদের ধর্মীয় উপদেশ দিয়ে কোনো লাভ নেই। তাদের দমন করতে হবে কঠোর হাতে। তারা ৫০ টাকায় ইয়াবা কিনে বিক্রি করে ৫০০ টাকায়। এত টাকার লোভ তারা সামলাতে পারছে না। একমাত্র প্রাণহানির ভয়ই ইয়াবা ব্যবসা থেকে তাদের বিরত রাখতে পারে।

তিনি আরো বলেন, যারাই মাদক ব্যবসা করে তাদের হাতে অস্ত্র থাকে। পুলিশ মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করতে গেলেই সেই অস্ত্র পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে হতাহতের ঘটনা ঘটছে। মাদক দমনে এই হতাহত হওয়ার পরিস্থিতি আমাদের মেনে নিতেই হবে। শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রাণহানি হলে দোষের কিছু নেই। মাদক ব্যবসায়ীরা যদি অবৈধ অস্ত্র হাতে পুলিশকে মোকাবেলা করতে চায় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে বৈধ অস্ত্রের ব্যবহার করবে।

তিনি বলেন, ইয়াবার জন্য অনেকে পুলিশকে দায়ী করেন। অথচ সীমান্ত রক্ষা যাদের দায়িত্ব তাদের ব্যর্থতার কথা কেউ বলেন না। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনজন এসআইকে হাতকড়া পরিয়ে জেলে পাঠিয়েছি। আমি বলে দিয়েছি ইয়াবার সঙ্গে জড়িত থাকলে পুলিশের চাকরি ছেড়ে দিতে হবে।

কোতোয়ালি থানা কমিউনিটি পুলিশিংয়ের আহ্বায়ক এএসএম সাহাবুদ্দিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এম এ মালেক, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার আমেনা বেগম, উপকমিশনার এস এম মোস্তাইন হোসেন, চট্টগ্রাম মহানগর কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সদস্য সচিব অহিদ সিরাজ স্বপন, কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন প্রমুখ।