• বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫
ads

ডা. এইচ বি এম ইকবাল

রাজনীতি

ডিএনসিসি উপনির্বাচন

ত্যাগী রাজনীতিক প্রার্থী চান আ.লীগ নেতাকর্মীরা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৫ জানুয়ারি ২০১৮

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) উপনির্বাচনে মেয়র পদে মঙ্গলবার ১৪ দলের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে।  মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে দলের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠকে।  জানা গেছে, রাজনৈতিক বিবেচনায় প্রার্থী ঘোষণার পক্ষে আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী।
দলের নেতাকর্মীদের দাবি, সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এবার দলীয় প্রতীকে ভোট হচ্ছে।  তাই নৌকার হয়ে যিনি আন্দোলন-সংগ্রাম করেছেন, দলের প্রতি যার ত্যাগ রয়েছে; তার হাতেই নেত্রী বঙ্গবন্ধুর নৌকা তুলে দেবেন।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় দেড় ডজন প্রার্থীর মধ্যে বেশি আলোচনায় রয়েছেন দুজন।  একজন মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা সাবেক সংসদ সদস্য ডা. এইচবিএম ইকবাল; অন্যজন ব্যবসায়ী, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম।  ডা. ইকবালের সঙ্গে শেখ পরিবারের সখ্য বেশি।  আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাই রাজপথের সহকর্মী ডা. ইকবালের পক্ষে।
মনোনয়নপত্র সংগ্রহকারীদের মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে। সাক্ষাৎকার শেষে দলের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।  দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
২৬ ফেব্রুয়ারি ডিএনসিসির ভোটকে সামনে রেখে গত শনি, রবি ও সোমবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা হয়। তিন দিনে ১৬ জন মনোনয়নপ্রত্যাশী ফরম সংগ্রহ করেছেন।
এ পর্যন্ত মনোনয়ন ফরম কিনেছেন সাবেক সংসদ সদস্য এইচবিএম ইকবাল, ব্যবসায়ী আতিকুল ইসলাম, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র ওসমান গণি, কবি রাসেল আশিকী, ব্যবসায়ী আদম তমিজি হক, অধ্যক্ষ ফরহাদ হোসেন, শাহ আলম, ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জোবায়ের আলম, আওয়ামী লীগ নেতা মমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী, সাবেক কাউন্সিলর শামীম হাসান, ব্যবসায়ী আবেদ মনসুর, সাবেক সেনা কর্মকর্তা ইয়াদ আলী ফকির, যুবলীগ নেতা আবুল বাশার, জামান ভূঞা ও আসমা জেরিন ঝুমু।
এদিকে আতিকুল ইসলাম বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই নির্বাচনী প্রচার চালিয়ে আসছেন। তিনি দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাকে গ্রিন সিগন্যাল দিয়েছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের গণমাধ্যমে জানান, আওয়ামী লীগের নেত্রী (শেখ হাসিনা) আতিকুল ইসলামকে প্রার্থী করার কোনো গ্রিন সিগন্যাল দেননি। তবে নেত্রী আতিকুলকে বলেছেন, ‘তুমি নির্বাচন করতে চাইলে জনগণের কাছে যাও। মনোনয়ন দেবে দলের মনোনয়ন বোর্ড। এ প্রসঙ্গে আতিকুল ইসলাম বাংলাদেশের খবরকে বলেন, নেত্রীর কাছে মনোনয়ন চাইব, তিনি যাকে দেবেন আমি তার হয়েই কাজ করব।’
ডা. এইচবিএম ইকবাল প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান। আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি। তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান। বহুমাত্রিক করপোরেট ব্যাংকিং, বীমা, লিজিং, ম্যানুফ্যাকচারিং, সিমেন্ট, প্রশিক্ষণ, বিতরণ হাউস, পর্যটন ও ভ্রমণ, বিমান পরিবহন, মেডিকেল সেন্টার, ইস্পাত ও সুপার মার্কেট, এইচআরডি, সার্ভিস সেক্টর, হোটেল ও রেস্তোরাঁর গ্রুপ চেয়ারম্যান।
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত ব্যবসা এবং বাণিজ্য ক্ষেত্রে সফলতার পাশাপাশি তিনি শিক্ষা ক্ষেত্রেও তার সফলতার পরিচয় দিয়েছেন। তিনি ভিকারুননিসা মহিলা বিশ্ববিদ্যালয়, তেজগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ইস্পাহানি স্কুল ও কলেজ, উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, তেজগাঁও মহিলা কলেজ, হাবিবুল্লাহ বাহার বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, আলহাজ জিল্লুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় এবং কিশোরগঞ্জের ফাউন্ডার চেয়ারম্যান। সামাজিকভাবেও তার সম্পৃক্তরা রয়েছে অনেক সেবামূলক সংগঠনে। এ ছাড়া তিনি গুলশান ক্লাব লিমিটেডের আজীবন সদস্য। বাংলাদেশ মালয়েশিয়া ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটির প্রেসিডেন্ট। রাজনৈতিক পরিচয়ের পাশাপাশি সামাজিকভাবে দক্ষ সংগঠক হিসেবেও তিনি বহুল পরিচিত।
মনোনয়নপ্রত্যাশী সাবেক এমপি ডা. এইচবিএম ইকবাল বাংলাদেশের খবরকে বলেন, ‘আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছি। তেজগাঁও আসন থেকে আওয়ামী লীগের নৌকা নিয়েই এমপি হয়েছিলাম। নেত্রী আমাকে মনোনয়ন দিয়েছিলেন, নেত্রীর প্রতি অগাদ আস্থা আছে। সিটি নির্বাচনেও মনোনয়ন আশা করছি। তিনি মনোনয়ন দিলে প্রার্থী হব, না দিলে তার দেওয়া প্রার্থীর হয়ে কাজ করব।’

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads