• বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫
ads
মন চাইলেই সংবাদ সম্মেলন করতে পারবেন না রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী

সংরক্ষিত ছবি

রাজনীতি

হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত

মন চাইলেই সংবাদ সম্মেলন করতে পারবেন না রিজভী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১১ জুলাই ২০১৮

নিজ দলে চাপের মধ্যে পড়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। দলের জ্যেষ্ঠ নেতা থেকে শুরু করে অনেকেই ক্ষুব্ধ রিজভীর ওপর। এমনটাই জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক ভাইস চেয়ারম্যান। ওই নেতা বলেন, বিএনপির হাইকমান্ড রিজভীর ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে মন চাইলেই যেকোনো বিষয়ে যখন-তখন সংবাদ সম্মেলন করে বক্তব্য দিতে পারবেন না তিনি।

তিনি বলেন, তাদের ক্ষোভের কারণ, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কোনো কর্মসূচিতে গিয়ে বক্তব্য রাখলে তারও কিছু বলতে হবে। সংবাদ সম্মেলন করে তিনি থাকতে চান মিডিয়ায়। একদিন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া তার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে কর্মসূচি পালনকালে তিনিও পাল্টা একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন। সেখানে মিডিয়াকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। এ নিয়ে দলের মধ্যে তোলপাড় হয়।

তবে এ বিষয়ে রিজভী বাংলাদেশের খবরকে বলেন, কর্তার ইচ্ছায় কর্ম করেন তিনি। দলের হাইকমান্ডের নির্দেশে কথা বলেন তিনি। তার ইচ্ছায় তিনি মিডিয়ায় কথা বলেন না।

জানা গেছে, গত সোমবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার জামিন বাতিল ও তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিএনপি প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন করে। বিকাল ৪টায় কর্মসূচি শেষ হয়। কর্মসূচি শেষ হওয়ার আগে গণমাধ্যমকর্মীদের মোবাইলে ক্ষুদেবার্তা পাঠানো হয়। তাতে বলা হয়, নয়াপল্টনে বিকাল ৫টায় সংবাদ সম্মেলন করবেন রুহুল কবির রিজভী। দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা বিষয়টি ভালোভাবে নেননি। সবাই মিলে অভিযোগ করেন দলের মহাসচিবের কাছে। কেউ কেউ বিষয়টি লন্ডনে অবস্থানরত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে অভিযোগ করেন। এরপর বাধ্য হয়ে সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করেন রিজভী।   

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, বিএনপির হাইকমান্ড নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে রিজভীর ওপর। মন চাইলেই যেকোনো বিষয়ে যখন-তখন সংবাদ সম্মেলন করে বক্তব্য দিতে পারবেন না তিনি। এখন থেকে প্রয়োজনীয় ইস্যুতে বক্তব্য দেওয়ার আগে অনুমতি নিতে হবে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের। বিশেষ পরিস্থিতিতে এ সিদ্ধান্ত দিতে পারবেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির সদস্য। হাইকমান্ডের নির্দেশনা অনুযায়ীই নির্ধারণ হবে ইস্যু এবং বক্তব্যের ধরন। সোজা কথায় প্রতিটি প্রেস কনফারেন্সের আগে সবকিছু অবহিত করে হাইকমান্ডের অনুমতি নিতে হবে।

গত সোমবার বিকাল ৪টার দিকে দলের সহ-দফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ গণমাধ্যমকর্মীদের মোবাইল ফোনে ক্ষুদেবার্তা পাঠান। তাতে বলা হয়, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সংবাদ সম্মেলন করবেন। পরে ৪টা ৪০ মিনিটে দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষুদেবার্তা পাঠানো হয়। তাতে বলা হয়, সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন সহ-দফতর সম্পাদক বাংলাদেশের খবরকে বলেন, এমন কোনো নির্দেশনা দলের কোনো অবস্থান থেকে রিজভী ভাইকে জানানো হয়নি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads