• বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮

পুলিশ আ.লীগকে জেতানোর পরিকল্পনা করছে

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

সংরক্ষিত ছবি

রাজনীতি

ফখরুলের অভিযোগ

পুলিশ আ.লীগকে জেতানোর পরিকল্পনা করছে

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২১ নভেম্বর ২০১৮

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করে বলেছেন, পুলিশ হেডকোয়ার্টারে বসে আওয়ামী লীগকে জেতানোর জন্য নীলনকশা করছে পুলিশ। যার নেতৃত্বে এই নীলনকশা তৈরি হয়েছে, তাকে পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে ক্লোজড অথবা বদলির জন্য নির্বাচন কমিশনের (ইসি) প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। গতকাল বিকালে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এই অনুরোধ জানান।

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তারা বিশ্বস্ত সূত্রে খবর পেয়েছেন পুলিশকে দিয়ে নির্বাচনে কারচুপি করার জন্য নীলনকশা তৈরি করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, যে পুলিশ কর্মকর্তা ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের কারচুপির পরিকল্পনা করেছিলেন, এবারো তিনি পুলিশ সদর দফতরে বসে আওয়ামী লীগকে জেতানোর জন্য নীলনকশা করছেন। তাকে সেখান থেকে ক্লোজড অথবা বদলি করে দেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি। একই সঙ্গে বিএনপির পক্ষ থেকে প্রত্যেক জেলা থেকে যে পুলিশ কর্মকর্তার পরিবর্তন দাবি করা হয়েছিল তা বাস্তবায়নের জন্য ইসিকে অনুরোধ করছি। সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলোতে পুলিশ যে ভূমিকা পালন করেছে, তা ভীষণভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে।

ইসির উদ্দেশ্যে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিএনপি স্পষ্টভাবে বলতে চায়- নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার জন্য নির্বাচনের আগে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করার জন্য যাদের ওপর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তারা এখন পর্যন্ত কোনোটাই করছেন না। তিনি বলেন, ইসি যদি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি না করে, পুলিশের এই গ্রেফতার অভিযান বন্ধ না করে, তাহলে নির্বাচন কখনোই জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। বিএনপি আশা করে, ইসির যে সাংবিধানিক দায়িত্ব রয়েছে, তা তারা পালন করবে।

‘বিএনপি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে’- এমনটা জানিয়ে দলটির মহাসচিব বলেন, নির্বাচনকে এখনই প্রশ্নবিদ্ধ করে ফেলা হয়েছে। ইসি এখন পর্যন্ত তার কোনো দায়িত্ব পালন করছে না। পুলিশ একইভাবে তফসিল ঘোষণার পরও বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও হয়রানি করছে। যারা জামিন পেয়েছেন, তাদের বের করা হচ্ছে না। তাদের জামিনকে বিলম্বিত করা হচ্ছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, নির্বাচনের আগে যে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়, তা এবার হচ্ছে না। তবে অস্ত্র উদ্ধারের নামে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। সার্বিক পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে ইসি নিজেই একটা অবস্থান নিয়ে নিয়েছে যে, তারা নির্বাচন সুষ্ঠু করবে না।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads