• মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬
ads
বহিষ্কারের শঙ্কায় সিলেট আ.লীগের ৩৪ নেতা

ছবি : সংগৃহীত

রাজনীতি

বহিষ্কারের শঙ্কায় সিলেট আ.লীগের ৩৪ নেতা

  • সিলেট ব্যুরো
  • প্রকাশিত ২১ জুলাই ২০১৯

দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিগত উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বহিষ্কার হতে পারেন সিলেট বিভাগের চার জেলার আওয়ামী লীগের ৩৪ জন নেতা। জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে তাদের শোকজ নোটিশ এবং পরবর্তী সময়ে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। শুধু বিদ্রোহী প্রার্থীরাই নন, শাস্তির আওতায় আসবেন উপজেলা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরোধিতা করা মন্ত্রী-এমপিরাও। এ তালিকায়ও রয়েছেন সিলেটের কয়েকজন।

আজ শনিবার আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর যৌথসভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ। সিলেট বিভাগের শাস্তির শঙ্কায় আছেন সিলেটের ১৫ জন, হবিগঞ্জ জেলার ৯ জন, সুনামগঞ্জ জেলার ৭ জন ও মৌলভীবাজার জেলার ৩ জন। এই তালিকায় আছেন উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হওয়া ৯ জন।

সিলেট জেলায় বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে শঙ্কায় থাকা নেতারা হচ্ছেন সিলেট সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট নূরে আলম সিরাজী, কানাইঘাটে চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক মোস্তাক আহমদ পলাশ, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আবদুল বাছির, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফতাব আলী কালা মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াকুব আলী, পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান শামীম আহমদ, আওয়ামী লীগ নেতা শামসুল হক, আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজ মাসুম, বিয়ানীবাজারে নির্বাচিত উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবুল কাশেম পল্লব, গোয়াইনঘাটে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা গোলাপ মিয়া, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ, জৈন্তাপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, বিয়ানীবাজারে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জাকির হোসেন, দক্ষিণ সুরমায় জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ময়নুল ইসলাম ও ফেঞ্চুগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতা উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম।

সুনামগঞ্জ জেলায় ছাতক উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতা অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল, দিরাই উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মঞ্জুর আলম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলতাব উদ্দিন, শাল্লা উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট অবনী মোহন দাস, ধর্মপাশা উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ফখরুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস ও জামালগঞ্জে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম।

মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোয়েব আহমদ, জুড়ীতে হল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এম এ মোঈদ ফারুক, কুলাউড়া উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ এ কে এম সফি আহমদ সলমান।

হবিগঞ্জে সদরে পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, লাখাই উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহফুজুল আলম মাহফুজ, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য রফিক আহমেদ, চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের, বাহুবলে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি আবদুল কাদির চৌধুরী, আজমিরীগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতা মো. আলাউদ্দিন, বানিয়াচং উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন খান, মাধবপুরে প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা এহতেশামুল বার চৌধুরী লিপু, শায়েস্তাগঞ্জে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আলী আহমদ খান।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads