• সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

ছবি : ইন্টারনেট

সোশ্যাল মিডিয়া

ফেসিয়াল রিকগনিশন প্রযুক্তি নিয়ে মামলার মুখে ফেসবুক

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ১৮ এপ্রিল ২০১৮

ব্যবহারকারীর তথ্য চুরিকে কেন্দ্র করে সাম্প্রতিক চাপের সঙ্গে নতুন এক চাপ পড়েছে ফেসবুকের ঘাড়ে। এবার সামাজিক যোগাযোগের এই মাধ্যমটি ফেসিয়াল রিকগনিশন প্রযুক্তি নিয়ে মামলার মুখে পড়তে যাচ্ছে।

ফেসবুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে যে, গ্রাহকের স্পষ্ট সম্মতি ছাড়াই তাদের বায়োমেট্রিক তথ্য জোগাড় করা হয়েছে। আর এ কারণেই ফেসবুকের বিরুদ্ধে ক্লাস অ্যাকশন মামলা হবে বলে রুল জারি করেছেন ক্যালিফোর্নিয়ার এক বিচারক।

বিবিসির খবর অনুসারে অভিযোগের মধ্যে রয়েছে ফেসবুকের ‘ট্যাগ পরামর্শ প্রযুক্তি’। গ্রাহক যখন প্লাটফর্মটিতে কোনো ছবি আপলোড করেন তখন তার বন্ধুদের শনাক্ত করে এই প্রযুক্তি। অথচ এমনটি করা যুক্তরাষ্ট্রের আইনের পরিপন্থি।

মার্কিন জেলা বিচারক জেমস ডোনাটো ফেসবুকের বিরুদ্ধে এই রুল জারি করেন। এতে ফেসবুকের একশ্রেণির গ্রাহককে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যারা ক্লাস অ্যাকশন মামলার অংশ হবেন। (বাদীপক্ষ একজন হলেও তিনি একই ধরনের ঘটনার শিকার অনেকের প্রতিনিধিত্ব করেন ও মামলার রায় ভুক্তভোগী সবার জন্যই প্রযোজ্য হবে।)

বিচারক ডোনাটো বলেন, ফেসবুক সম্ভবত বিশ্বাস করে যে, এই ক্ষতির কারণে তাদেরকে শত কোটি মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ দিতে হতে পারে।

খবরে বলা হয়েছে, আদালতের নির্দেশ অনুসারে ২০১১ সালের ৭ জুনের পর যেসব গ্রাহকের তথ্য নিয়ে ফেসবুক ফেস টেমপ্লেট বানিয়েছে এবং মজুত করেছে তাদেরকে এই ক্লাস অ্যাকশন মামলায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের জুন মাসে আপলোড করা ছবিতে ‘ট্যাগ পরামর্শ’ চালু করে ফেসবুক। গ্রাহক কোনো ছবি আপলোড করলে ছবিতে কোন কোন ব্যক্তি উপস্থিত আছেন তা একটি ডেটাবেস থেকে খুঁজে বের করে প্লাটফর্মটি।

বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকের সহায়তা পেজে বলা হয়েছে, গ্রাহককে যেসব ছবিতে ট্যাগ করা হয়েছে তার প্রতিটি ছবির মিল থেকে ‘ফেস টেমপ্লেট’ তৈরি করা হয়। আপনাকে যদি কখনো কোনো ছবিতে ট্যাগ করা না হয় বা আপনি যদি ফেসবুকের সব ছবি থেকে নিজেকে আনট্যাগ করেন, তাহলে আমাদের কাছে আপনার এই সংক্ষিপ্ত তথ্য থাকবে না।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads