• রবিবার, ২৭ মে ২০১৮, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
আরো ৩০ লাখ ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁসের আশঙ্কা

ধারণা করা হচ্ছে প্রায় ৩০ লাখ ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস হয়েছে

ইন্টারনেট

সোশ্যাল মিডিয়া

আরো ৩০ লাখ ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁসের আশঙ্কা

২০০ অ্যাপ বন্ধ করল ফেসবুক

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ১৬ মে ২০১৮

নতুন করে আরো ২০০ অ্যাপ বন্ধ করেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক। থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন ব্যক্তিগত তথ্য বেহাত করছে কি না সে তদন্তের অংশ হিসেবেই এ অ্যাপগুলো বন্ধ করা হয়েছে। তবে কোন অ্যাপগুলো বন্ধ করা হয়েছে এবং কেন করা হয়েছে, সে বিষয়ে ফেসবুকের পক্ষ থেকে এখনো কিছু জানানো হয়নি।

এদিকে ব্রিটিশ ম্যাগাজিন নিউ সায়েন্টিস্ট এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বন্ধ হয়ে যাওয়া অ্যাপগুলোর মধ্যে একটি হলো ‘মাই পারসোনালিটি’। ধারণা করা হচ্ছে অ্যাপটির মাধ্যমে প্রায় ৩০ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস হয়েছে। ২০০৭ সালে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ডেভিড স্টিলওয়েল অ্যাপটি তৈরি করেছিলেন এবং প্রায় পাঁচ বছর এটি চালু ছিল। এ সময়ের মধ্যে প্রায় ৬০ লাখ মানুষ এ পারসোনালিটি কুইজ অ্যাপটি ব্যবহার করেছেন।

এর মধ্যে প্রায় অর্ধেক ব্যবহারকারীই অ্যাপটিতে তাদের বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করার অনুমতি দিয়েছেন। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ সাল পর্যন্ত অ্যাপটি চালু ছিল এবং এর মাধ্যমে সংগৃহীত তথ্য নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে বড় ধরনের একটি তথ্যভান্ডার। এ তথ্যভান্ডারে প্রবেশাধিকার রয়েছে অন্তত ২৮০ জনের।

নিউ সায়েন্টিস্ট ম্যাগাজিনের এ প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, এ তথ্যভান্ডারে প্রবেশ করার ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড গত চার বছর ধরে গিটহাবে উন্মুক্ত অবস্থায় রয়েছে যা শেয়ার করেছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক।

গত ৭ এপ্রিল মাই পারসোনালিটি অ্যাপটি বন্ধ করেছে ফেসবুক। অ্যাপটির বিষয়ে ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইমি আর্কিবংয়ের একটি বিবৃতি পাওয়া গেছে। এতে তিনি জানিয়েছেন, মাই পারসোনালিটি অ্যাপ নিয়ে ফেসবুক তদন্ত করছে। অ্যাপ নির্মাতারা যদি এতে সহযোগিতা না করেন কিংবা তাদের কোনো ব্যর্থতা খুঁজে পাওয়া যায়, তাহলে অ্যাপটি বন্ধ করে দেওয়া হবে।

প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট ভেঞ্চারবিটকে দেওয়া এক বিবৃতিতে অ্যাপটির নির্মাতা স্টিলওয়েল বলেন, ‘ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড অনলাইনে প্রকাশ করার মাধ্যমে এই শিক্ষক স্পষ্টতই নীতিমালা লঙ্ঘন করেছেন। বিষয়টি আমাদের নজরে আসার পর পরই অ্যাকাউন্টটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।’

অপর এক বিবৃতিতে তিনি জানান, অ্যাপটির বিষয়ে ফেসবুক প্রথম থেকেই অবগত ছিল। এ প্রকল্পের বিষয়ে আয়োজিত বৈঠকে ফেসবুকও অংশ নিয়েছিল। এখন ফেসবুক না জানার ভান করছে বলেও অভিযোগ করেন স্টিলওয়েল।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads