• শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
নেইমার এখন যুক্তরাষ্ট্রে

সংগৃহীত ছবি

ফুটবল

নেইমার এখন যুক্তরাষ্ট্রে

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

শেষ মুহূর্তে অপ্রত্যাশিত কিছু না ঘটায় নেইমার তার বর্তমান ক্লাব পিএসজিতেই থেকে যাচ্ছেন। বার্সেলোনায় ফিরে যাবার দুর্নিবার ইচ্ছে সত্ত্বেও ফ্রান্স ও স্পেনের ক্লাব দুটির মধ্যে ব্রাজিল তারকাকে বেচা-কেনার ব্যাপারে বনিবনা হয়নি। এ অবস্থা চলাকালে নেইমার ব্রাজিল দলের হয়ে খেলতে যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে পৌঁছেছেন বলে জানা গেছে। আগামী শুক্রবার ব্রাজিল ও কলম্বিয়া এখানেই প্রীতি ম্যাচে অংশ নেবে।

বাংলাদেশ সময় গত সোমবার রাতে স্পানিশ ফুটবলের জন্য খেলোয়াড় কেনা-বেচার সময়সীমা শেষ হয়ে যায়। এখন নেইমারের প্যারিসের ক্লাবটিতে খেলা ছাড়া কোনো গত্যন্তর নেই। বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলারটিও দৃশ্যত ভবিতব্য মেনে নিয়েছেন। আপাতত তার লক্ষ্য ব্রাজিলের হয়ে প্রীতি ম্যাচ দুটি খেলা।

ফরোয়ার্ডটি ইতোমধ্যে নিজের সামাজিক যোগাযোগ সাইটে মিয়ামির এক রেস্তোরাঁয় উপস্থিতির ছবি দিয়েছেন। এরই মধ্যে তার ইউরোপীয় লিগগুলোর সতীর্থরাও আসতে শুরু করেছেন যুক্তরাষ্ট্রে। তার পিএসজি দলসঙ্গী থিয়াগো সিলভাও এসে পৌঁছেছেন। স্পেনের স্পোর্ট পত্রিকা এসব তথ্য জানায়। ব্রাজিল এ সপ্তাহে কলম্বিয়া ছাড়াও পেরুর বিরুদ্ধে আরেকটি প্রীতি ম্যাচ খেলবে।

এদিকে প্যারিসে পিএসজি সমর্থকদের মধ্যে নেইমারের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারের এক প্রচারণা শুরু হয়েছে। সমর্থকরা তার চলে যেতে চাওয়ার বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি। এ কারণে তারা নেইমারের বিরুদ্ধে। কিন্তু ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা আশা করছে চলতি মাসের শেষদিকে নেইমার যখন এসে পৌঁছাবেন, সেসময় পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে বলে আশা করছে ক্লাবটি।

জানা গেছে, বার্সেলোনাও আগামীবার তাকে সই করানোর জন্য কাজ শুরু করেছে। যদিও তারা এইবারই খেলোয়াড়টিকে ফেরাতে বিপুল আর্থিক প্রয়াস চালিয়েছিল। নেইমারের জন্য ১৫০ মিলিয়ন ইউরো দিতে চেয়েছিল স্পানিশ চ্যাম্পিয়নরা। এর মধ্যে ২০ মিলিয়ন তিনি নিজের পকেট থেকে দিতে চেয়েছিলেন। এর সঙ্গে ছিল ইভান রাকিটিচ ও জ ক্লেয়ার টোডিবোকে স্থায়ীভাবে এবং ওসমান দেম্বেলেকে ধারে পিএসজিতে পাঠানোর প্রস্তাবটিও। পিএসজি এতেও রাজি হয়নি এবং বার্সেলোনারও এর চাইতে বেশি কিছু করার ছিল না। এখনকার মতো চুক্তি যেহেতু হলো না, খবর মিলছে বার্সেলোনা আগামীবারের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু সেটা আগামী জানুয়ারির ব্যাপার। কারণ স্পেনের কাতালান প্রদেশটির রাজধানীতেই যে নেইমার যেতে চান।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে তারকা ফুটবলারটির সঙ্গে সম্পর্কে উন্নতি ঘটছিল বার্সেলোনার। ২০১৭ সালে হঠাৎ করে তার চলে যাওয়ার মধ্য দিয়ে যার অবনতি হয়েছিল। আরো কিছু কারণে বার্সেলোনা তাকে আগামীবার আনার চেষ্টা চালাবে। সেটা হলো খেলোয়াড়টি রিয়াল মাদ্রিদের প্রস্তাবে না বলে দিয়েছিলেন, পিএসজিকে একরকম বাধ্য করেছিলেন বার্সেলোনার সঙ্গে কথা বলতে। সর্বোপরি তার ক্যাম্প ন্যুতে ফিরতে চাওয়া মিলিয়ে স্পানিশ চ্যাম্পিয়নদের নীতিনির্ধারকরা ব্রাজিল তারকার প্রতি সুপ্রসন্ন হয়ে উঠেছেন।

কাতালান ক্লাবটি অনেক সময়েই তাদের পছন্দের তারকাকে পাওয়ার জন্য অপেক্ষায় থাকে। সাম্প্রতিক উদাহরণ আন্তনিও গ্রিজমান ও ফিলিপ কোটিনহো। উভয়কেই আনতে চেয়েও প্রথম মৌসুমে ব্যর্থ হয়েছিল বার্সেলোনা। তারও আগে সেসক ফেব্রেগাসকে ২০০৮ সালে লক্ষ্য হিসেবে স্থির করে তাকে ক্যাম্প ন্যুতে ২০১১ সালের আগে আনা যায়নি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads