• মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮
হোম টেক্সটাইল রপ্তানিতে বিপ্লব

সংগৃহীত ছবি

আমদানি-রফতানি

হোম টেক্সটাইল রপ্তানিতে বিপ্লব

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৪ জুলাই ২০২১

বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্য বলতেই সবার আগে চলে আসে তৈরি পোশাক শিল্প। কখনো কখনো পাট, হিমায়িত চিংড়ি, চামড়া রপ্তানি নিয়েও আলোচনা হয়। সরকারের কাছ থেকে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেতে দেন-দরবারও করেন এসব খাতের উদ্যোক্তারা।

কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারির মহাসংকটের সময় ১০ হাজার কোটি টাকার বিদেশি

মুদ্রা এনেছে যে খাত, সেটি থেকে গেছে অগোচরে। সেই খাতটি হচ্ছে হোম টেক্সটাইল। বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির তালিকায় তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে খাতটি।

করোনাকালে চীন ও ভারতের বাজার বাংলাদেশে চলে আসায় এই ‘নীরব বিপ্লব’ হয়েছে বলে জানিয়েছেন এ খাতের উদ্যোক্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ হোম টেক্সটাইল ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন-অর-রশিদ।

পোশাক খাতের মতো সরকারের সুনজর পেলে এই খাত থেকে বছরে ৫০ হাজার কোটি টাকা আয় করা সম্ভব বলে আশার কথা শুনিয়েছেন তিনি।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) ৩০ জুন শেষ হওয়া ২০২০-২১ অর্থবছরের রপ্তানি আয়ের যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তা ঘেঁটে দেখা যায়, হোম টেক্সটাইল রপ্তানি করে এই অর্থবছরে ১১৩ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার (১.১৩ বিলিয়ন) ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ, যা আগের বছরের চেয়ে ৪৯ দশমিক ১৭ শতাংশ বেশি। এর আগে কখনোই এ খাতের রপ্তানিতে এত বেশি প্রবৃদ্ধি হয়নি। বর্তমান বাজারদরে টাকার অঙ্কে (প্রতি ডলার ৮৪ টাকা ৮০ পয়সা) এই অর্থের পরিমাণ ৯ হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

ইপিবির তথ্যে দেখা যায়, বিদায়ি অর্থবছরে ১১৬ কোটি ১৫ লাখ ডলার রপ্তানি আয় করে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে পাট ও পাটজাত পণ্য। বরাবরের মতোই ৩১ দশমিক ৪৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি করে প্রথম স্থানে রয়েছে তৈরি পোশাক খাত।

এতদিন পাট, চামড়া ও হিমায়িত মাছ রপ্তানি দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে থাকত। এবার হোম টেক্সটাইল পাট খাতের প্রায় সমান ডলার দেশে এনে তৃতীয় স্থান দখল করেছে। করোনায় কম-বেশি প্রায় সব খাতের অবস্থা নাজুক। রপ্তানি ছাড়াও স্থানীয় বাজারে চাহিদা কমেছে। এর মধ্যে ব্যতিক্রম হোম টেক্সটাইল। অনেকটা অগোচরে থেকে দেখাচ্ছে আশার আলো। বাংলাদেশের রপ্তানি বাণিজ্যে বছরে ১ বিলিয়ন (১০০ কোটি) ডলারের বেশি আয়ের আরেকটি খাত যোগ হলো। দীর্ঘদিন শীর্ষ ১০ রপ্তানি খাতের তালিকায় আছে এ খাত। বিশ্বজুড়ে করোনার কারণে বাণিজ্য প্রায় নাস্তানাবুদ। এমন পরিস্থিতিতেও হোম টেক্সটাইলের রপ্তানি বেড়েছে রেকর্ড পরিমাণ। রপ্তানি তালিকার সব পণ্যের মধ্যে এ হার সবচেয়ে বেশি। পাশাপাশি দেশের চাহিদার প্রায় পুরোটা জোগান দিচ্ছে এ খাত। উদ্যোক্তারা বলছেন, অভ্যন্তরীণ চাহিদার শতভাগ স্থানীয়ভাবে জোগান দেওয়া সম্ভব। তারা সরকারের নীতি-সমর্থনের অভাব এবং আন্তর্জাতিক বাজারে ট্রেন্ড বা ফ্যাশনপ্রবাহ না বোঝা কিংবা কম বোঝাকে দায়ী করছেন। এসব সমস্যার সমাধানে সরকারের পাশাপাশি উদ্যোক্তাদের আরো সময়োপযোগী পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। বাজার গবেষণা বাড়ানোর কথাও বলেছেন তারা। দেশে হোম টেক্সটাইল উৎপাদন করে এ রকম উল্লেখযোগ্য বড় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে অ্যাপেক্স উইভিং অ্যান্ড ফিনিশিং মিলস, নোমান গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান জাবের অ্যান্ড জোবায়ের ফ্যাব্রিকস, সাদ গ্রুপ, অলটেক্স, এসিএস টেক্সটাইল, জে কে গ্রুপ, ক্লাসিক্যাল হোম, ইউনিলাইন ইত্যাদি।

হোম টেক্সটাইল বলতে বোঝায় ঘরের অন্দরের শোভাবর্ধক হিসেবে ব্যবহার করা বস্ত্রপণ্য। এ কারণে এ ধরনের পণ্যকে হোমটেক্স বা ঘরোয়া টেক্সটাইলও বলা হয়ে থাকে। বিছানার চাদর, বালিশ, বালিশের কাভার, টেবিল ক্লথ, পর্দা, ফ্লোর ম্যাট, কার্পেট, জিকজাক গালিচা, ফার্নিচারে ব্যবহার করা ফ্যাব্রিকস, তোশক, পাপোশ, খাবার টেবিলের রানার, কৃত্রিম ফুল, নকশিকাঁথা, খেলনা, কম্বলের বিকল্প কমফোর্টার, বাথরুম টাওয়েল, রান্নাঘর ও গৃহসজ্জায় ব্যবহার হয় এমন সব ধরনের পণ্য এ খাতের আওতাভুক্ত।

এ শিল্পের প্রধান কাঁচামাল তুলা, পাট, শন, রেশম, ভেড়া-ছাগলের পশম, অন্যান্য পশম। এ ছাড়া সমপ্রতি কৃত্রিম তন্তুর ব্যবহারেরও হোম টেক্সটাইল উৎপাদন হচ্ছে দেশে। তৈরি পোশাকের মতো হোম টেক্সটাইলেরও প্রধান গন্তব্য ইউরোপ-আমেরিকা। রপ্তানিকারকরা বলছেন, এই দুই বাজারে এতদিন একচেটিয়া ব্যবসা করত ইসরায়েল, চীন ও ভারত। ইসরায়েল মূলত খুব দামি পণ্য রপ্তানি করে। চীন ও ভারত দামি-মাঝারি দুই ধরনের পণ্যই রপ্তানি করে। আর বাংলাদেশ করে মাঝারি ও কম দামি পণ্য রপ্তানি।

অ্যাপেক্স উইভিং অ্যান্ড ফিনিশিং মিলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোম টেক্সটাইল ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন-অর-রশিদ বলেন, চীন ও ভারতের কম ও মাঝারি দামি পণ্যের বাজারের কিছু অংশই আসলে আমাদের এখানে এসেছে। সে কারণে হঠাৎ করে রপ্তানিতে ভালো প্রবৃদ্ধি হয়েছে। ইউরোপ-আমেরিকায় করোনা পরিস্থিতি মোটামুটি স্বাভাবিক হতে শুরু করায় ওই সব দেশে বিছানার চাদর, বালিশ, বালিশের কাভার, টেবিল ক্লথ, পর্দাসহ অন্যান্য পণ্যের চাহিদা বেড়ে গেছে। তারা তো এসব পণ্য একবারের বেশি ব্যবহার করে না। সে কারণেই একটু ভালো হয়েছে আমাদের জন্য। করোনার পর চীন আর এখন মাঝারি দামের পণ্য তৈরি করছে না। দীর্ঘদিন লকডাউনের কারণে ভারতেও উৎপাদন বন্ধ ছিল। সেই বাজারটাই আমরা এখন পাচ্ছি।

বাংলাদেশের পণ্য ও অন্য দেশের পণ্যের

দামের পার্থক্য কেমন জানতে চাইলে হারুন-অর-রশিদ বলেন, ধরেন, ইসরাইল একটি ৪০০ ডলারের বিছানার চাদর রপ্তানি করে; চীন-ভারত করে ১০০-১২৫ ডলারের। আর আমরা করি ২৫-৩০ ডলারের।

তিনি বলেন, হোম টেক্সটাইল রপ্তানি হয় বছরজুড়ে। এ ছাড়া করোনাকালে গৃহবন্দি মানুষ হোম টেক্সটাইলের পণ্য তুলনামূলক বেশি ব্যবহার করেছেন। এতে চাহিদা বেড়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads