• মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জৈষ্ঠ ১৪২৮

দুর্ঘটনা

মাদারীপুরে পাগলা কুকুরের কামড়ে শিশু-বৃদ্ধসহ ৬০ জন আহত

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

মাদারীপুর সদর উপজেলার হোগলপাতিয়া ও কালকিনির আলীনগর ইউনিয়ের কয়েকটি গ্রামে পাগলা কুকুরের কামড়ে আহত হয়েছেন শিশু বৃদ্ধাসহ ৬০ জন। এরমধ্যে শিশু শিক্ষার্থীর সংখ্যাই বেশি। আহতদের উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রবিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত চলে কুকুরের কামড়ানোর ঘটনা। পরে সদর ও কালকিনি থানা পুলিশ কুকুরটি ধরতে চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, মাদারীপুর সদর উপজেলার হোগলপাতিয়া গ্রামের রাস্তা দিয়ে মারিয়া নামে একটি শিশু সকাল ৮টার দিকে বিদ্যালয়ে যাচ্ছিলো। এসময় একটি পাগলা কুকুর মারিয়াকে কামড়িয়ে গুরুতর জখম করে। এসময় স্থানীয়রা তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে কুকুরটি ক্ষিপ্ত হয়ে আরো বেশ কয়েকজনকে কামড়ায়।

এরপর পার্শ্ববর্তী আলীনগর ইউনিয়নের কালীগঞ্জ, ফাঁসিয়াতলা গ্রামের অর্ধ শতাধিক মানুষকে কামড়িয়ে গুরুতর জখম করে। কুকুরের কামড়ে গুরুতর জখম ৪৩ জনকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকিদের কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে কয়েকজনের পায়ে বেশ ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে।

হোগলপাতিয়া গ্রামের শামীম নামে এক কুকুরে কামড়ানো আহত রোগী বলেন, ‘কিছু বুঝে ওঠার আগেই একটি পাগলা কুকুর আমাকেসহ আশেপাশের আরো ১০ থেকে ১৫ জনকে কামড়ায়। যাকে সামনে পেয়েছে তাকেই কামড়িয়েছে। কামড় দিয়ে পায়ের মাংস ছিড়ে নিয়ে গেছে।’

হাবিব নামে আরেক রোগী জানান, পাগলা কুকুর সামনে যাকে পেয়েছে তাকেই কামড়েছে । কোনো ভাবেই তাকে ঠেকানো যায়নি।

হোগলপাতিয়া ছাড়াও ফাসিয়াতলা, কালীগঞ্জ এলাকার প্রায় অর্ধশত মানুষকে কামড়েছে। একটি কুকুরের কাছে আমরা অসহায় ছিলাম। তারপরে আর কুকুরটি পাওয়া যায়নি। কুকুরে কামড়ানো রোগিতে হাসপাতাল ভরে গেছে ।’

মাদারীপুর সদর হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার রিয়াজ মাহমুদ জানান, ‘কুকুরে কামড়ানো আহত অর্ধশত ব্যক্তি এখানে চিকিৎসা নিয়েছেন। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ৪৩ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। কুকুরে কামড়ানোর ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে সবাইকে। হাসপাতালে পর্যাপ্ত ভ্যাকসিনও আছে। রোগীদের মধ্যে কয়েকটি শিশুর অবস্থা খুবই খারাপ। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার্ড করা লাগতে পারে। এছাড়া এলাকার লোকজনদের সর্তক থাকার পরামর্শ।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘খোজ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশকে পাঠানো হয়েছে। তবে সেই পাগলাটে কুকুরটিকে পাওয়া যায়নি। তারপরেও কুকুরটি ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে ।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads