• বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮
সাড়ে তিন কোটি টাকার কাঁঠাল উৎপাদন

ছবি: বাংলাদেশের খবর

কৃষি অর্থনীতি

সাড়ে তিন কোটি টাকার কাঁঠাল উৎপাদন

  • বিজয়নগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৪ জুন ২০২১

জাতীয় ফল কাঁঠাল। ফলের রাজা বলে সবার কাছে সমাদৃত। কাঁঠাল শুধু একটি মৌসুমি ফলই নয়- সহায়ক খাদ্য ও অর্থকরী ফসল। উপজেলার সর্বত্র এখন কাঁঠাল গাছগুলোতে ঝুলন্ত কাঁঠাল, যা সবার নজর কাড়ছে। কোনো কোনো বাগানের আগাম জাতের কাঁঠালগুলো পাকতে শুরু করেছে। পাকা কাঁঠালের মিষ্টি গন্ধে কীটপতঙ্গরা ভিড় করছে গাছে গাছে। আর সেই আনন্দে বাগান মালিকরা গাছ পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে। উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে পাকা কাঁঠাল উঠতে শুরু করেছে।

জানা গেছে, উপজেলায় ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে কালাছড়া, বিষ্ণুপুর, কাঞ্চনপুর, খাটিঙ্গা, কাশিমপুর, সিঙ্গারবিল, চম্পকনগর, মেরাশানী, কামালমুড়া, নুরপুর, কাশিমপুর, হরষপুর, ধোরানাল, মুকুন্দপুর, সেজামুড়া, নোয়াগাঁ ও পত্তন এলাকায় রয়েছে প্রায় চার শতাধিক কাঁঠাল বাগান। চলতি বছর এই উপজেলায় ১২০ হেক্টর জমিতে জমিতে কাঁঠাল চাষ করা হয়েছে। এছাড়াও উপজেলার প্রায় প্রত্যেক বাড়িতে রয়েছে ৫/৬টি করে কাঁঠাল গাছ, যা প্রত্যেক পরিবারের চাহিদা মেটাতে সক্ষম হয়।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হাদিউল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, কাঁঠাল এবং অন্যান্য ফসল ও ফল উৎপাদনের জন্য সর্বদায় কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি, যাতে করে কৃষকরা ভালো ফল উৎপাদন করতে পারেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা খিজির হোসেন প্রামাণিক বলেন, উপজেলার দিন দিন কৃষিবান্ধব উপজেলা হিসেবে পরিচিতি লাভ করছে। এখানে সব ধরনের ফলই চাষ হচ্ছে। সারাদেশে লিচুর জন্য বিখ্যাত বিজয়নগর। আর কাঁঠালের জন্যও প্রসিদ্ধ এ অঞ্চল। এ বছর কাঁঠালেও বাম্পার ফলন হয়েছে। এই অঞ্চলে নরম চাউলা ও রসালো এই তিন ধরনের কাঁঠাল চাষ হয়। ফসল ও ফল বাগানের মালিকদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে কৃষি বিভাগ। তবে এই বছর কাঁঠাল বিক্রিয় প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ছাড়িয়ে বলে ধারণা করছি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads