• বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮
ব্যাংকঋণে ঝুঁকছে সরকার

প্রতীকী ছবি

ব্যাংক

ব্যাংকঋণে ঝুঁকছে সরকার

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৬ জুন ২০২১

অর্থবছরের শেষ সময়ে এসে অর্থসংকটে পড়ে ব্যাংকঋণের দিকে ঝুঁকছে সরকার। এতদিন টাকা সংস্থানের ক্ষেত্রে সঞ্চয়পত্রনির্ভরতা ছিল। তবে এখন বেড়েছে ব্যাংকনির্ভরতা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, অর্থবছরের শুরু ১ জুলাই থেকে ২০ মে পর্যন্ত ব্যাংকব্যবস্থা থেকে সরকারের নিট ঋণ ৪ হাজার ৬৩০ কোটি টাকা বেড়েছে। অথচ কিছুদিন আগেও সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ না নিয়ে উল্টো আগের নেওয়া ধার পরিশোধ করেছে।

ব্যাংক থেকে এ মুহূর্তে সরকারের ঋণ তেমন সমস্যা না বলে মন্তব্য করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম।

তিনি বলেন, অর্থবছরের শেষ দিকে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ব্যয় বেড়ে যায়। কারণ বরাদ্দকৃত অর্থ সব ব্যয় করতে হয়। সঞ্চয়পত্র থেকে লক্ষ্যমাত্রার বেশি ঋণ নেওয়া হয়ে গেছে। এ জন্য সরকার এবার ব্যাংকঋণে ঝুঁকেছে। অভ্যন্তরীণ ঋণের ক্ষেত্রে সরকারকে সঞ্চয়পত্রনির্ভরতা কমাতে হবে। না হলে সুদ ব্যয় বাড়বে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, এতদিন সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ঋণ বাড়ায় ব্যাংকঋণের তেমন দরকার পড়েনি। কিন্তু অর্থবছরের শেষ দিকে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে গতি বাড়ায় সরকারের ব্যাংকঋণ বাড়ছে।

বাজেট ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ নিয়ে থাকে সরকার। অভ্যন্তরীণ উৎসের মধ্যে ব্যাংকব্যবস্থা ও সঞ্চয়পত্র বিক্রির মাধ্যমেই সবচেয়ে বেশি ঋণ নেওয়া হয়।

আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেটে সামগ্রিক ঘাটতি থাকছে ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা, যা মোট জিডিপির ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

ঘাটতির এই পরিমাণ আগের যেকোনো বছরের তুলনায় বেশি। অভ্যন্তরীণ উৎস ও বৈদেশিক ঋণ নিয়ে অর্থমন্ত্রীকে এই ঘাটতি পূরণ করতে হবে।

এবার বিদেশ থেকে ৯৭ হাজার ৭৩৮ কোটি টাকা আর অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৫৩ কোটি টাকা ঋণ করার পরিকল্পনা করেছে সরকার।

অভ্যন্তরীণ খাতের মধ্যে ব্যাংকিং খাত থেকে ৭৬ হাজার ৪৫২ কোটি টাকা, সঞ্চয়পত্র থেকে ৩২ হাজার কোটি টাকা এবং অন্যান্য খাত থেকে আরো ৫ হাজার ১ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য ধরা হয়েছে বাজেটে।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে ব্যাংকঋণের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয় ৮৪ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা। কিন্তু অর্থবছরের শুরুতে ব্যয় ব্যবস্থাপনায় যখন হিমশিম অবস্থা, তখন ব্যাংকব্যবস্থা থেকে বড় অঙ্কের ঋণ নেয় সরকার। অর্থবছরের তিন মাসেই (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ঋণ দাঁড়ায় ৫৭ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে গত জুলাইয়ে ২৪ হাজার ৫০০ কোটি, আগস্টে ১৮ হাজার কোটি ও সেপ্টেম্বরে ১৫ হাজার ২০০ কোটি টাকা ব্যাংকঋণ নেয় সরকার।

এরপর ধীরে ধীরে ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ নেয়ার প্রবণতা কমতে থাকে।

অর্থবছরের ৬ মাস অর্থাৎ ডিসেম্বর শেষে বাণিজ্যিক ব্যাংকে নিট ব্যাংকঋণ দাঁড়ায় ৩৩ হাজার ৫৯৪ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। তবে এই সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে আগের নেওয়া ঋণের প্রায় ৩১ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা শোধ করে সরকার। ফলে অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) সরকারের নিট ব্যাংকঋণ ২ হাজার ২০৪ কোটি টাকায় নেমে আসে।

এরপর এপ্রিল পর্যন্ত সরকার যে পরিমাণ ঋণ নিয়েছিল, শোধ করেছিল তার থেকে বেশি। ফলে ব্যাংক থেকে সরকারের নিট ঋণ ঋণাত্মক ধারায় ছিল।

অর্থবছরের ২০ মে পর্যন্ত বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে নেওয়ার চেয়ে বেশি পরিশোধ করা হয়েছে ২৪ হাজার ৫৪৮ কোটি টাকা। আর বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো থেকে নেওয়া হয়েছে ২৯ হাজার ১৭৮ কোটি টাকা। ফলে সরকারের নিট ঋণ ৪ হাজার ৬৩০ কোটি টাকা বেড়েছে।

আর এ পর্যন্ত ব্যাংক খাতে সরকারের মোট ঋণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ৫৪৩ কোটি টাকা। মোট ঋণ স্থিতির মধ্যে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে রয়েছে ১ লাখ ৬২ হাজার ৬৪৭ কোটি টাকা। বাকি ১৯ হাজার ৮০৬ কোটি টাকা নেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে।

এর আগে ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে ব্যাংকব্যবস্থা থেকে সরকারের মোট ঋণের পরিমাণ ছিল ৭২ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা। মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম আরো বলেন, করোনা মহামারিতে বিনিয়োগ না থাকায় বেসরকারি খাতে ঋণের চাহিদা কম। ফলে ব্যাংকগুলোরও পর্যাপ্ত ঋণ বিতরণ করতে পারছে না। এ সময় সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ নিলে ব্যাংকগুলো অন্তত নিশ্চিত সুদ পাবে।

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা মহামারিতে মানুষের আয় কমে গেছে। তা ছাড়া মুনাফার ওপর করের হার বৃদ্ধি এবং নানা ধরনের কড়াকড়ি আরোপের পরও সঞ্চয়পত্র বিক্রি ঠেকাতে পারছে না সরকার। তবে নতুন অর্থবছরের বাজেটে সঞ্চয়পত্র কেনায় কিছু শিথিলতা আনা হয়েছে। আগে এক লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র কিনতে টিআইএন বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। সেটা এখন ২ লাখ টাকা পর্যন্ত করা হয়েছে।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে ৮৫ হাজার ৯৯০ কোটি ৬৫ লাখ টাকার। সুদ-আসল বাবদ গ্রাহকদের শোধ করা হয়েছে ৫২ হাজার ৯৭০ কোটি টাকা। এ হিসাবে এ খাতের নিট ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ৩৩ হাজার ২০ কোটি ৬৫ লাখ টাকা; যা এ খাতের ঋণের বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রার ৬৬ শতাংশ বেশি।

চলতি অর্থবছরের পুরো সময়ে সরকারের সঞ্চয়পত্র থেকে নিট ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২০ হাজার কোটি টাকা।

২০১৯-২০ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২৭ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু বছর শেষে এই খাত থেকে ঋণ নেওয়া হয় মাত্র ১১ হাজার ৯২৪ কোটি টাকা।

করোনার খরা কাটাতে পারছে না এনবিআর। ব্যবসা-বাণিজ্য সবকিছু খুলে দেয়া হলেও কাঙ্ক্ষিত রাজস্ব করা সম্ভব হচ্ছে না।

অর্থবছরের ১১ মাসে (জুলাই-মে) রাজস্ব আদায় হয়েছে প্রায় ২ লাখ ২২ হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ অর্থবছর শেষে রাজস্ব আদায়ে বড় অঙ্কের ঘাটতি থেকে যাবে।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে এনবিআরের আওতায় রাজস্ব সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) ২ লাখ ৯ হাজার ২৭২ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) মাত্র ৪২ শতাংশ বাস্তবায়ন হয়েছে, যা গত ৫ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

এর আগে গত অর্থবছরের (২০১৯-২০) জুলাই-মার্চ সময়ে বাস্তবায়নের হার ছিল ৪৫ দশমিক ০৮ শতাংশ, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৪৭ দশমিক ২২ শতাংশ, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৪৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ এবং ২০১৬-১৭ অর্থবছরে জুলাই-মার্চ সময়ে ৪৫ দশমিক ১৫ শতাংশ এডিপির অর্থ খরচ হয়েছিল।

ফলে এডিপি বাস্তবায়ন কাঙ্ক্ষিত হারে না হলেও ব্যাংকবহির্ভূত উৎস থেকে সরকারের ঋণ বাড়তির দিকে। কারণ ব্যাংকঋণ দিয়ে পুরোনো ঋণ পরিশোধ করার সুযোগ তৈরি হয়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads