• সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯
‘জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে আর নয়’

ফাইল ছবি

বলিউড

‘জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে আর নয়’

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১০ মে ২০২২

জনপ্রিয় সিনেমা ফ্র্যাঞ্চাইজি ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’। এই সিনেমায় ক্যাপটেন জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে অভিনয় করেছেন জনি ডেপ। তবে ভবিষ্যতে আর কখনোই তাকে এই চরিত্রে দেখা যাবে না। সাবেক স্ত্রী অ্যাম্বার হার্ডের সঙ্গে আইনি লড়াইয়ে নেমেছেন জনি ডেপ। বর্তমানে ভার্জিনিয়ার একটি আদালতে মামলাটির কার্যক্রম চলছে। সেখানেই সিনেমাটিতে আর অভিনয় না করার সিদ্ধান্তের কথা জানান জনি। ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’ ছাড়াও ডিজনির ‘অ্যালিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড’, ‘ইনটু দ্য উডস’ প্রভৃতি সিনেমায় অভিনয় করেছেন জনি ডেপ। শুনানি চলাকালীন অ্যাম্বার হার্ডের আইনজীবী এই অভিনেতার কাছে ২০১৮ সালে জ্যাক স্প্যারো চরিত্র থেকে বাদ পড়ার বিষয়ে জানতে চান। জনি ডেপ বলেন, ‘আমি বিষয়টি নিয়ে কিছুই জানতাম না, তবে এতে আশ্চর্য হইনি।’ পাশাপাশি জানান, ৩০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়া হলেও তিনি ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’ ফ্র্যাঞ্চাইজিতে আর কাজ করবেন না। ২০০৩ সালে ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান: দ্য কার্স অব ব্ল্যাক পার্ল’ সিনেমায় প্রথম জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে অভিনয় করেছেন জনি ডেপ। এরপর এই ফ্র্যাঞ্চাইজির ‘ডেড ম্যান চেস্ট’, ‘অ্যাট ওয়ার্ল্ডস অ্যান্ড’, ‘অন স্ট্র্যাঞ্জার টাইডস’ এবং ‘ডেড মেন টেল নো টেল’ সিনেমায় একই চরিত্রে তাকে দেখা গেছে।

জনি ডেপ ভক্তদের কাছে ‘ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো’ হিসেবেই বহুল পরিচিত। এছাড়াও তার আরো একটি নাম রয়েছে, সেটা হচ্ছে মি. স্টেঞ্চ। অবসরে ভ্রমণরত অবস্থায় জনপ্রিয় ব্যক্তিরা হোটেলে ওঠার সময় পাপারাজ্জি আর পাগল ভক্তদের এড়াতে বিশেষ ছদ্মনাম ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু জনি ডেপ বিশ্বাসযোগ্য কোনো ছদ্মনামের পরিবর্তে সবসময় ‘মি. স্টেঞ্চ’ নামটি ব্যবহার করেন।

জনি ডেপ নিঃসন্দেহে বর্তমান সময়ের বহুমুখী প্রতিভাধর অভিনেতাদের মধ্যে অন্যতম। উদ্ভট সব চরিত্রে অদ্ভুত সুন্দর অভিনয় করে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি দর্শকদের মনে। তার অফিশিয়াল সোশ্যাল পেজ না থাকা সত্ত্বেও ভক্তদের বানানো সোশ্যাল পেজগুলোতে ফলোয়ারদের সংখ্যা দেখলেই বোঝা যায়, তিনি কতটুকু জনপ্রিয়।

প্রায়ই তার চিত্রনাট্য বাছাই নিয়ে দর্শকদের কাছ থেকে অভিযোগ শোনা যায়। তবে চিত্রনাট্য যেমনই হোক না কেন, জনির অভিনয় প্রতিভা নিয়ে কারো কোনো সংশয় নেই। প্রত্যেকটি চলচ্চিত্রেই তার অভিনয় প্রশংসনীয়। তিনি ‘পাইরেটস অফ দ্য ক্যারিবিয়ানে’ ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো চরিত্রটি এত চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন যে, তার পরিবর্তে সেখানে কাউকে কল্পনা করাই অসম্ভব। এই চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমেই তার পরিচিতি আর ভক্তদের সংখ্যা কয়েক গুণ বেড়ে যায়। জনপ্রিয়তার তুলনায় তার পুরস্কারের ঝুলি খুব হালকাই বলা যায়। তার বেশ কিছু চরিত্র সমালোচকদের কাছে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হওয়ার পরেও তিনি কখনো অস্কার জিততে পারেননি। ‘সুয়েনি টড : দ্য ডিমন বার্বার অফ ফ্লিট স্ট্রিট’ সিনেমাতে মূল চরিত্রে অভিনয় করে তিনি জিতেছেন গোল্ডেন গ্লোবস। স্ক্রিন অ্যাক্টর্স গিল্ড পুরস্কার জিতেছেন ‘পাইরেটস অফ দ্য ক্যারিবিয়ান : দ্য কার্স অফ দ্য ব্ল্যাক পার্ল’ চলচ্চিত্রের ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো চরিত্রের জন্য। তার উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হলো- দ্য পাইরেটস অফ দ্য ক্যারিবিয়ান সিরিজ, অ্যাডওয়ার্ড সিজরহ্যান্ডস, ফাইন্ডিং নেভারল্যান্ড, পাবলিক এনিমিস, ব্ল্যাক ম্যাস, ট্রানসেন্ডেন্স, সুইনি টড, দ্য ডিমন বার্বার অফ ফ্লিট স্ট্রিট, স্লিপি হলো, ব্লো, দ্য নাইন্থ গেট, ডার্ক শ্যাডো দ্য লোন রেঞ্জার, এলিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads