• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ৩ জৈষ্ঠ ১৪২৯
কক্সবাজারে ইলিশের সরবরাহ প্রচুর, দাম বেশি হওয়ায় কিনতে পারছে না স্থানীয়রা

ছবি: বাংলাদেশের খবর

পণ্যবাজার

কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে ইলিশের স্তুপ

কক্সবাজারে ইলিশের সরবরাহ প্রচুর, দাম বেশি হওয়ায় কিনতে পারছে না স্থানীয়রা

  • মাহাবুবুর রহমান, কক্সবাজার
  • প্রকাশিত ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

কক্সবাজারে ইলিশের সরবরাহ প্রচুর থাকলেও উচ্চ দামের কারণে কিনতে পারছে না সাধারণ মানুষ। এছাড়া বড় সাইজের ইলিশগুলো থাকছে না কক্সবাজারে। মৎস অবতরণ কেন্দ্র থেকেই নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা চট্টগ্রামে। ফলে কক্সবাজারে ইলিশের উৎপাদন ও আহরণের কেন্দ্রস্থল হলেও ইলিশ খেতে পারছে না কক্সবাজারের মানুষ।

শহরের বড় বাজার এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি মাছের দোকানে প্রচুর সরবরাহ আছে ইলিশের কিন্তু কোন ক্রেতাই কিনতে পারছে না ইলিশ। এ সময় টেকপাড়ার আবদুস সালাম নামের একজন ক্রেতা বলেন, বাজারে প্রতিটি ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা উপরে। আর এক কেজি ওজনের ইলিশতো ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা বলছে। তাই সামর্থ না থাকায় ইলিশ না কিনে অন্য মাছ কিনতে হচ্ছে।

নুর পাড়া এলাকার জাফর আলম বলেন, চলতি মৌসুমে আমার পরিবারে ইলিশ মাছ খাওয়া হয়নি। অবশ্য আমার এক মাছ ব্যবসায়ি বন্ধু একবার একটি ইলিশ দিয়েছিল। তিনি বলেন, আমি সামান্য কাজ করি দৈনিক সর্বোচ্চ হাজার খানেক টাকা আয় হয়। এর মধ্যে পরিবারের অনেক খরচ আছে। তাই বেশি দাম হওয়াতে ইলিশ কিনতে পারিনি।

এদিকে শহরের নুনিয়ারছড়া এলাকার বোট মালিক আবছার কামাল বলেন, আমার নিজস্ব বোট আছে তবুও ভাল করে ইলিশ খাওয়া হয়নি। কারন চলতি বছরের মত ইলিশ মাছের দাম আগে কখনো হয়নি। এখন প্রতি কেজি ইলিশ সর্বনিম্ন ১২০০ টাকার নীচে নেই। আর কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে গেলে দেখা যাবে, ইলিশের সরবরাহ প্রচুর তবে এখানে কোন ইলিশ মাছ থাকে না। সব মাছ ঢাকা চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হয়। কক্সবাজার থেকে প্রতিদিন অন্তত ২০ ট্রাক মাছ ঢাকা যায়। সে হিসাবে প্রায় ১০০ মণের কাছাকাছি মন ঢাকায় চলে যাচ্ছে। যদি সেই মাছ এখানো থাকতো তাহলে প্রতি কেজী ইলিশের দাম হতো ৩০০ টাকা। টেকপাড়া এলাকার বোট মালিক জয়নাল আবেদীন সওদাগর বলেন,বর্তমানে ইলিশের রেকর্ড দাম চলছে। আমার ৩৫ বছর মাছ ব্যবসার জীবনে ইলিশ মাছের এত দাম আগে কখনো দেখিনি। আগে বোট আসলে আসপাশের প্রতিবেশী সহ বন্ধুবান্ধবদের খাওয়ার জন্য সৌজন্য মূলক ইলিশ মাছ দিতে পারতাম কিন্তু এখন প্রচুর দামের কারনে দেওয়া যায় না। তবে কি কারনে দাম বাড়তি তা জানেন না তিনি। খুরুশকুলের শাকের উল্লাহ বহদ্দার বলেন,মূলত যে কোন জিনিসের চাহিদা যত বেশি হবে তার দাম তত বাড়বে। বর্তমানে ইলিশের চাহিদা প্রচুর তাই দাম বাড়তি। এছাড়া সরকারি ভাবেও ইলিশ সংগ্রহ করা হয় বলেও জানান তিনি। এদিকে মোবাইলে ঢাকার এক ব্যবসায়ির সাথে কথা বলে জানা গেছে ঢাকাতে এককেজী ওজনের ইলিশের দাম বলা হয় কমপক্ষে ২৫০০ টাকা। তাই ইচ্ছা থাকলেও ইলিশ কিনা সম্ভব হয়নি। এ ব্যপারে কক্সবাজার জেলা মৎস অফিসার এস এম খালেকুজ্জামান বলেন,চলতি বছর কক্সবাজারেই সব চেয়ে বেশি উৎপাদন হয়েছে। আর দামের বিষয়টি হচ্ছে আমার ব্যাক্তিগত মতে গত কয়েক বছরের মধ্যে ৪০০ বা ৫০০ ওজনের ইলিশ মাছের যে পরিমান দাম ছিল সেই দামই আছে। আর চলতি বছর বড় সাইজের ইলিশ মাছ বেশি পাওয়া যাচ্ছে আর বড় সাইজের ইলিশের দাম আগেও ১ হাজার টাকার নীচে ছিল বলে আমার মনে হয় না। তাই আমার মতে দাম খুব বেশি সেটা সত্যি নয়। কারন বর্তমানে কক্সবাজারে বেশির ভাগই বড় সাইজের ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads