• শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৭
ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে ইলিশ

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

সারা দেশ

ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে ইলিশ

  • প্রকাশিত ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

হাতিয়া (নোয়াখালী) প্রতিনিধি

টানা ৬৫ দিন সাগরে মাছ ধরার সরকারি নিষেধাজ্ঞা ছিলো। সরকারি এ আদেশ জেলেরা মেনে নিয়ে অনেক কষ্টে দিন কাটিয়ে ইলিশের মৌসুমে মনে আশা বুনেছিলো ভালো কিছুর। নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর জেলেরা সাগরে মাছ ধরার জন্য নেমে পড়েন। কিন্তু বৈরী আবহাওয়ার কারণে জেলেরা প্রত্যাশিত ইলিশ না পেয়ে অনেকটা শূন‌্য হাতে তীরে ফিরে আসতো। মহাজন ও ফিশিং বোট মালিকদের কাছ থেকে অগ্রিম নেওয়া কীভাবে শোধ করবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ে তাদের। কিন্তু চলতি সপ্তাহে জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে রুপালি ইলিশ ধরা পড়ায় চিন্তা কমতে শুরু করেছে। কাঙ্ক্ষিত রুপালি ইলিশ নিয়ে ঘাটে ফিরছেন জেলেরা। এতে তাদের মুখে প্রশান্তির হাসি দেখা গেছে। ট্রলার ভর্তি বড় বড় রুপালি ইলিশ নিয়ে হাতিয়ার চেয়ারম্যান ঘাটে ফিরছেন তারা।

জেলেরা জানান, সাগরে মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার দেড় মাস পর চলতি সপ্তাহে জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়ছে রুপালি ইলিশ। প্রতিটি ট্রলারে ৮০০ গ্রাম থেকে প্রায় দুই কেজি ওজনের প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। যার কারণে দামও ভালো পাচ্ছেন তারা। কর্মব্যস্ততা বাড়ায় খুশি জেলে, ট্রলার মালিক ও মৎস্য ব্যবসায়ীরা। দিন যতই এগুচ্ছে, বাড়ছে সাগরে ইলিশ আহরণ। মাছগুলোর আকারও অনেক বড়।

চেয়ারম্যানঘাট ঘুরে দেখা গেছে, ঘাটে এখন উৎসবের আমেজ। চলতি সপ্তাহে জেলে ও ব্যবসায়ীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে ঘাট এলাকা। সাগর থেকে ট্রলার ভর্তি ইলিশ নিয়ে ঘাটে ফিরছেন জেলেরা। ঘাট থেকে মোকামে তোলা হচ্ছে ছোট-বড় ইলিশ। ব্যবসায়ীদের হাঁকডাক ও বেচা-বিক্রিতে সরগরম হয়ে উঠেছে চেয়ারম্যান ঘাট। অনেক ব্যবসায়ী কাঙ্ক্ষিত দাম পেয়ে ট্রাকে করে দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠাচ্ছেন ইলিশের চালান।

চেয়ারম্যান ঘাটের মেসার্স মামুন এন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধিকারী মাইন উদ্দিন জানান, এখন অনেক বড় বড় মাছ ধরা পড়ছে। মৌসুমের শুরুর দিকে এতো মাছ ছিলো না। বর্তমানে অনেক মাছ জালে আসছে। মাছগুলোর ওজন ৮০০ গ্রাম থেকে প্রায় দুই কেজির।

হাতিয়া মৎস্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল জানান, হাতিয়া উপকূলের ৫০০ ফিশিং বোট সাগরে মাছ আহরণ করে। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে নদীতে অনেক মাছ ধরা পড়ছে। আগে এই উপকূলে মাছ শিকারে গেলে ডাকাতের কবলে পড়তো জেলেরা। কিন্তু সাগরে কোস্টগার্ডের তৎপরতায় বর্তমানে ডাকাত নেই। জেলেরা নির্বিঘ্নে মাছ ধরতে পারছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads