• বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৭

সারা দেশ

জালিয়াতি মামলায় জামিন পেলেন ইউপি চেয়ারম্যান

  • মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

মানিকগঞ্জে জালিয়াতি মামলায় জামিন পেলেন সিংগাইর উপজেলার শায়েস্তা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন চোকদারসহ ইউপি সদস্য মনছের আলী, আব্দুর মান্নান ও ফজলুল হক।

আজ মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আসামীদের উপস্থিতিতে আদালতে জামিনের আবেদন করলে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৭নং আদালতের বিচারক জান্নাতুল রাফিন সুলতানা ইউপি চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন চোকদারসহ অন্যান্য আসামীদের জামিন মঞ্জুর করেন।

জানা যায়, গত ২০১৭ সালের জানুয়ারীতে শায়েস্তা ইউনিয়নের শায়েস্তা মৌজার এস এ ১৭৫২/১৫২১ খতিয়ানে ১৭৫৩ দাগে দুই শতাংশ ও আর এস রেকর্ডে ৯০১ নং খতিয়ানে ৩৮৪০ নং দাগে ১২ শতাংশ ভূমি জালিয়াতি ও প্রতারণার মাধ্যমে জীবিত ব্যক্তিকে মৃত দেখিয়ে চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন চৌকদার ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের নিয়ে দলিল তৈরি করেন। এরপর ২০১৭ সালের মে মাসে মানিকগঞ্জ বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৩ নং আদালতে ভূমির প্রকৃত মালিক অমিত কুমার রায়ের মেয়ে অদিতি রায়বাদী হয়ে চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন চোকদার, ইউপি সদস্য মনছের আলী, তুহিন আহমেদ, আব্দুর মান্নান, ফজলুল হক, দলিল লেখক ও সিংগাইর উপজেলা সাব-রেজিষ্টারসহ দশ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। এরপর মামলাটি তদন্তের জন্য সিআইডি পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া হলে সিআইডি পুলিশ তদন্ত করে সাত জন আসামীর সম্পৃক্ততা উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

মামলার তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, মামলার বাদী ও তার পরিবারের শত বছর যাবৎ ক্রয়সূত্রে ও পারিবারিক ওয়ারিশ সূত্রে মালিক হইয়া আর এস রেকর্ডে উক্ত ভূমি ৯০১ খতিয়ানে ৩৮৪০ নং দাগে ১২ শতাংশ জমি বাদির পিতামহ পরেশ নাথ রায় নামে লিপিবব্ধ হয়। পরেশ নাথ রায়ের মৃত্যুর পর তাহার স্থলাভিষিক্ত হন বাদির পিতা অমিত কুমার রায়। বাদির পিতা এখনো জীবিত আছে। মামলার বিবাদীগণ জীবিত অমিত কুমার রায়কে মৃত দেখিয়ে জালিয়াতি ও প্রতারণা করে মিথ্যা ওয়ারিশান সনদ তৈরি করে জাল দলিল তৈরি করে জমি আত্মসাতের চেষ্টা করেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads