• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জৈষ্ঠ ১৪২৮
অসহায় শীতার্তদের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোগিতা অব্যাহত

সংগৃহীত ছবি

সারা দেশ

অসহায় শীতার্তদের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোগিতা অব্যাহত

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২০ জানুয়ারি ২০২২

বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় ও কালের কণ্ঠ শুভসংঘ মৌলভীবাজার জেলা শাখার আয়োজনে রশিদিয়া এতিমখানায় অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থীর মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। সংগঠনের উপদেষ্টা জুবায়ের আলী আহমদ এর সভাপতিত্বে ও সমাজকর্মী রুবেল আহমদ মুন্না এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্রাফিক পরিদর্শক মাহফুজ আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা যুবলীগের সহসম্পাদক মনিরুজ্জামান শিপু, জুয়েল আহমদ, শফিক মিয়া।

এ সময় কম্বল পেয়ে ১২ বছরের শিক্ষার্থী আদনান বলে, ভোররাতে উঠে পড়তে বসলে অনেক ঠাণ্ডা লাগে।

এ কম্বল গায়ে দিয়া আরামে পড়তে পারমু। সুহেল নামে ১০ বছরের আরেক শিক্ষার্থী বলে, আমার বাপ নাই! কম্বলটাও পুরান হই গেছে। রাইত হইলে বাক্কা ঠাণ্ডা লাগে। এখন নয়া কম্বল দিয়া আরামে ঘুমাইতে পারমু।
এ সময় অনুষ্ঠানের সভাপতি জুবায়ের আলী আহমদ বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপ যেভাবে দেশের যেকোনো ক্রান্তিলগ্নে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায় সত্যিই তা প্রশংসার দাবিদার। বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান এর এমন উদ্দ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। সারা দেশের

তুলনায় মৌলভীবাজারে অনেক ঠাণ্ডা পড়েছে। প্রকৃত শীতার্তদের বাছাই করে আমরা বসুন্ধরা গ্রুপের উপহার এই কম্বল পৌঁছে দিচ্ছি।

বৃহস্পতিবার সকালে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলায় বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় কম্বল বিতরণ করে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ।

কম্বল নিতে আসা প্রতিবিন্ধী মোস্তাকিম, শরীফ ও মোস্তুফা এসেছে সদর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূর থেকে। ১১টায় কম্বল দেওয়ার সময় থাকলেও তাঁরা আসেন খুব সকালে। কখন কম্বল দিবে এ অপেক্ষায় থেকে কম্বল পাওয়ার পর তাঁরা জানায়, এই শীতে আর কোথাও থেকে কম্বল পাননি।

বসুন্ধরার কম্বল পেয়ে তাঁরা বেজায় খুশি হয়েছে। এর আগেও তাঁরা বসুন্ধরার ত্রাণসামগ্রী পেয়েছিল। কম্বল বিতরণের সময় ইউএনও হাফিজা জেসমিন বলেন, সরকারি বরাদ্ধের বাইরে কেউ যখন এগিয়ে আসে না তখন বসুন্ধরা তাদের হাত বাড়িয়ে দেয়। এ অবস্থা চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। তাদের এই মানবিক কর্ম যুগযুগ ধরে চলুক এই কামনা করি। প্রশাসনসহ সাধারণ জনগণ আছে তাদের সঙ্গে।

প্রধানমন্ত্রীর এ ডাকে সারা দিয়ে বসুন্ধরা গ্রুপ সারা দেশে যে সহযোগিতা করেছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়। দেশের সকল প্রতিষ্ঠানের এভাবে আর্তমানবতার সেবায় এগিয়ে আসা উচিত।

তিনি বৃহস্পতিবার বিকেলে ত্রিশাল উপজেলার চকপাচপাড়া রহমানিয়া মাদরাসা মাঠে শীতার্তদের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোতিায় কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

এ সময় সাংসদ আরো বলেন, করোনা মহামারির সময় বসুন্ধরা গ্রুপ অসহায়দের মাঝে ছুটে গিয়েছে। রোজা ও ঈদ উপলক্ষ্যে তারা অসহায়দের কাছে ছুটে গিয়েছে। এবার শীতে যেভাবে শীতার্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে তা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। আমরা বসুন্ধরা গ্রুপকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads