• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জৈষ্ঠ ১৪২৮
ঘোড়াঘাটে আগাম রসালো লিচু

ছবি: বাংলাদেশের খবর

সারা দেশ

ঘোড়াঘাটে আগাম রসালো লিচু

  • ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১২ মে ২০২২

বৈশাখ মাসের বিদায়ের পালা, আসছে মধু মাস জ্যৈষ্ঠ। তবে মধু মাস আসার আগেই লিচুর রাজ্য দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার বাজারে দেখা মিলেছে লাল টসটসে রসালো লিচুর। স্বাদে কিছুটা ভিন্নতা থাকলেও সৌন্দর্য্য নজর কেড়েছে ক্রেতাদের।

পৌর এলাকার বাসস্ট্যান্ড, আজাদমোড় ও পুরাতন বাজার ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন মোড়ে লিচুর পসরা সাজিয়ে বসে আছেন খুচরা বিক্রেতারা। আর আগাম লিচু দেখে ভিড় জমাচ্ছে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। চলছে দরদাম ও লিচুর স্বাদ নিয়ে নানা আলোচনা। এসব বাজারে মাদ্রাজি ও চায়না-৩ জাতের লিচু উঠেছে। প্রতি ১০০টি লিচু ২০০ থেকে ২৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আগাম এসব লিচুর স্বাদ ও মান নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও, বছরের নতুন ফল হিসেবে অনেকেই এসব লিচু কিনছেন। অনেকে আবার না কিনে ফিরেও যাচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ঘোড়াঘাট উপজেলায় প্রায় ৬৩ হেক্টর জমিতে লিচুর চাষ হয়। ছোট-বড় মিলিয়ে লিচুর বাগান রয়েছে প্রায় ১৬০টি। এসব বাগান থেকে বছরে লিচু উৎপাদন হয় প্রায় ৪৫২ মেট্রিক টন। অপরদিকে পুরো উপজেলায় লিচু চাষে জড়িত আছেন প্রায় ৬৬০ জন চাষি। তারমধ্যে ১৬০ জন চাষি বাগান আকারে লিচুর চাষ করে। আর বাকি ৫০০ জন নিজ বাড়িতে লিচুর চাষ করেন।

ঘোড়াঘাট বাসস্ট্যান্ড থেকে ১২০ টাকায় ৫০টি লিচু কিনেছেন রিক্সাচালক যুবক আরিফ মিয়া। তিনি বলেন, স্বাদ হয়তো খুব একটা ভালো হবে না। তবে বছরের নতুন ফল হিসেবে পরিবারের জন্য কিছু লিচু কিনলাম। মানুষকে বলতে তো পারব যে, বছরের নতুন ফলের স্বাদ নিয়েছি।

পুরাতন বাজারে একটি দোকানে লিচুর দরদাম করছিলেন স্কুল শিক্ষক মতিউর রহমান। কিন্তু তিনি লিচু না কিনেই ফিরে যাবার সময় বলেন, এসব লিচুর অপরিপক্ব। লিচুর ভিতরে মাংস নেই বললেই চলে। শুধু বড়বড় বিচি আছে। টাকা দিয়ে এসব লিচু কেনা মানে বোকামি করা।

বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন কে.সি পাইলট স্কুলের একটি লিচুর বাগান ৩ বছরের জন্য লিজ নিয়েছেন রোকনু মিয়া নামে এক ব্যবসায়ী। তিনি বলেন, এ বছর লিচুর ফলন নেই বললেই চলে। আমরা যারা লিচুর চাষ করেছি, তাদের ফকির হওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই। অগ্রিম লিচু পাকানোর জন্য কোনো রাসায়নিক  প্রয়োগ করিনি। স্বাভাবিক ভাবেই কিছু কিছু গাছের লিচু লাল হয়েছে। চাহিদা থাকায় সেগুলোই বাজারে বিক্রি করছি।

এদিকে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন, আর কয়েকদিন পরেই প্রায় সব জাতের লিচু পাকা শুরু হবে। মাটি ও আবহাওয়ার ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন জাতের লিচু ইতিমধ্যে পূর্ণ পরিপক্ব হয়েছে। তবে কিছু চাষি অধিক মুনাফার আশায় রাসায়নিক প্রয়োগ করে অপরিপক্ব লিচুর রং পরিবর্তন করে বাজারে বিক্রি করছে।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads